ঢাকা মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ১৯ মিনিট আগে
৩১ জুলাই, ২০১৯ ১৫:৩৭

আবারও ধর্মঘটে পশ্চিমবঙ্গের চিকিৎসকরা: অচল হাসপাতালগুলো

আবারও ধর্মঘটে পশ্চিমবঙ্গের চিকিৎসকরা: অচল হাসপাতালগুলো

মেডিভয়েস রিপোর্ট: আবারও চিকিৎসক ধর্মঘটে পশ্চিমবঙ্গের চিকিৎসকরা। দিনব্যাপী এ ধর্মঘটে যোগ দিয়েছেন সারাদেশের চিকিৎসকরা। যার প্রভাব পড়েছে কলকাতা সহ গোটা পশ্চিমবঙ্গে। কলকাতার বিভিন্ন সরকারি হাসপাতাল এবং মেডিকেল কলেজে জরুরি বিভাগে চিকিৎসা চললেও ডাক্তারদের সংখ্যা কম থাকায় সমস্যায় পড়েছেন রোগীরা। রোগীদের ভিড় বাড়তে শুরু করেছে কলকাতা মেডিকেল কলেজের বহির্বিভাগে। তবে জরুরি পরিষেবা ও হাসপাতালের অন্যান্য পরিষেবাকে এই ধর্মঘটের আওতার বাইরে রাখা হয়েছে।

বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত এ ধর্মঘটের ডাক দেয় ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন। ধর্মঘটে সামিল হয়েছে কলকাতা-সহ রাজ্যের বহু হাসপাতালই। ফলে, আউটডোর  বা হাসপাতালের বহির্বিভাগ পরিষেবা (OPD) বন্ধ থাকায় ডাক্তার দেখাতে এসে বিপাকে পড়েছেন অনেকেই।

গত ২৯ জুলাই লোকসভার পাশ হয় জাতীয় মেডিক্যাল কমিশন বিল (ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন বিল বা এনএমসি)। দেশজুড়ে চলা চিকিৎসকদের এই ধর্মঘটে কলকাতার হাসপাতালগুলির চিকিৎসকরা ছাড়া সামিল হয়েছেন মুর্শিদাবাদ, হুগলি সহ রাজ্যের বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসকরাও। ফলে রাজ্যের হাসপাতালগুলির আউটডোরগুলিতে দেখা যায় দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে চিকিৎসা পরিষেবা পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন রোগীরা।

জানা গেছে, এনএমসি বিলে মেডিকেল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া (এমসিআই) এর বদলে ন্যাশনাল মেডিকেল কমিশন বা জাতীয় মেডিকেল কমিশন প্রতিষ্ঠার কথা বলা হয়েছে  যারা চিকিৎসা ক্ষেত্রে সার্বিক উন্নয়ন এবং নিয়ন্ত্রণ সহ শিক্ষা, পেশা এবং প্রতিষ্ঠানের দিকে নজর দেবে। দেশের চিকিৎসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাতে, মেডিকেল শিক্ষায় দুর্নীতি রুখতে, সময়োপযোগী ও সংস্কারমুখী পাঠ্যসূচি চালু করতেই বিলটি আনা হয়েছে বলে জানিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন।

তবে আইএমএ অর্থাৎ ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের অভিযোগ, ওই এনএমসি বিল জনস্বার্থ বিরোধী। বিলটিকে (National Medical Commission Bill(NMC Bill) "গরীব বিরোধী, ছাত্র বিরোধী এবং অগণতান্ত্রিক" বলে উল্লেখ করে তারা। আইএমএর অভিযোগ এই বিল আইনে পরিণত হলে মেডিক্যাল শিক্ষার গোটাটাই নিয়ন্ত্রণ করবে কেন্দ্রীয় সরকার। তারই প্রতিবাদে ধর্মঘটের (doctors strike) ডাক দেয় তারা।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত