ঢাকা      সোমবার ২৬, অগাস্ট ২০১৯ - ১০, ভাদ্র, ১৪২৬ - হিজরী



লে. কর্নেল ডা. গোলাম মোস্তফা সারওয়ার

মেডিকেল অফিসার,

মালিতে শান্তিরক্ষী মিশনে কর্মরত।


ডেঙ্গুর ভয়াবহতা ও কিছু অবৈজ্ঞানিক তথ্য

ডেঙ্গু এখন ঢাকায় একটা আতঙ্কের নাম। ডেঙ্গুর ব্যাপকতায় মানুষ এখন প্রায় দিশেহারা। আর এর সুযোগ নিয়ে কিছু মানুষ গুজব বা অবৈজ্ঞানিক তথ্য দিয়ে মানুষকে আরও বিভ্রান্ত করছে। এমন দুইটা অবৈজ্ঞানিক তথ্য নিয়ে আলোচনা করবো আজ।

আজকের দিনের বহুল প্রচারিত গুজব হলো "আগামী বাদ জুম্মা ঢাকা শহরের সবাই যদি তাদের সিঙ্কে এক বোতল হারপিক বা ৫০০ গ্রাম ব্লিচিং পাউডার ফেলে, তাহলে নালা নর্দমার ৭০% মশা মারা যাবে।"

এর কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নাই। হারপিক, ব্লিচিং পাউডারে হয়তো মশার লার্ভা মরতে পারে। কিন্তু তার জন্য নির্দিষ্ট ঘনত্বের দরকার হবে। সবচেয়ে বড়কথা, এডিস মশার লার্ভা নালা-নর্দমায় থাকেনা। এরা থাকে আপনার বাড়ির আশেপাশে, এমনকি আপনার শোবার ঘরের শখের ফুলদানিতেও এরা আস্তানা গাড়তে পারে। তাই উপরের গুজবে বিভ্রান্ত হবেন না।

এবার আসি "পেঁপে পাতার রস" থিউরিতে। অনেকেই বলছেন পেঁপে পাতার রস খেলে একদিনেই ডেঙ্গু ভাল হয়ে যাবে। চলুন এর সত্যতা কতটুকু তা দেখা যাক।

ভারত এবং শ্রীলঙ্কায় কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, পেঁপে পাতার রস রক্তের অণুচক্রিকা বা প্লেটলেট বাড়াতে সহায়তা করে। তাই এই গবেষকেরা ডেঙ্গু রোগীকে পেঁপে পাতার রস খেতে বলেন। যদিও এটা এখনও যথাযথ মেডিকেল কর্তৃপক্ষের দ্বারা স্বীকৃত না।

ডেঙ্গু সাধারণত তিন প্রকার হয়ঃ

১। সাধারণ ডেঙ্গু, এটাই বেশীরভাগ মানুষের হয় এবং নিজে থেকেই ভাল হয়ে যায়। কোনো স্পেসিফিক চিকিৎসার দরকার হয় না।

২। ডেঙ্গু হেমোরেজিক জ্বর। এক্ষেত্রে রক্তের অণুচক্রিকা কমে যেয়ে রক্তক্ষরণ হয়।

৩। ডেঙ্গু শক সিন্ড্রোম। এক্ষেত্রে রক্তনালির ছিদ্র বড় হয়ে (Increased Blood vessel Permeability) রক্তের জলীয় অংশ বের হয়ে যেয়ে রক্তের ঘনত্ব বেড়ে যায় ফলে রক্তের মোট পরিমান কমে যায়। ফলে ব্রেইন, লিভার, কিডনিসহ শরীরের ভাইটাল অর্গানগুলি পর্যাপ্ত রক্ত সরবরাহ পায় না। এই অবস্থায় সঠিক চিকিৎসা না পেলে রোগী মারা যেতে পারে।

এবার দেখি এই তিনপ্রকার ডেঙ্গুর কোনগুলিতে "পেঁপে পাতা থেরাপি" কাজে লাগবেঃ

এক নাম্বার, বা বেশীরভাগ রোগীরই কোনো চিকিৎসা দরকার হয় না। পর্যাপ্ত তরল পানীয়, পুষ্টিকর খাবার আর বিশ্রাম, সাথে জ্বরের জন্য প্যারাসিটামল বড়িতে প্রায় ৯০% রোগী ভাল হয়ে যায়।

তিন নাম্বার অবস্থায় রোগীর চিকিৎসা হতে হবে হাসপাতালে। রক্তের ঘনত্ব কমাতে বা রক্তের জলীয় অংশ বাড়াতে যথাযথ পরিমানে স্যালাইন শিরায় প্রয়োগ করতে হবে, ডাক্তারের তত্বাবধানে। এইসময় যদি ঘরে বসে পেঁপে পাতা খেয়ে রক্তে প্লেটেলেটের সংখা বাড়ানোর ব্যাবস্থা করা হয়, তাহলে রক্তের ঘনত্ব আরও বাড়বে। ঘনত্ব আরও বাড়া মানে, রোগীর মৃত্যুকে তরান্বিত করা। এক্ষেত্রে পেঁপে পাতার রস খাবেন নাকি হাসপাতালে যেয়ে চিকিৎসা নিবেন, সে সিদ্ধান্ত আপনার।

দুই নাম্বার ক্ষেত্রের চিকিৎসাও হাসপাতালে ডাক্তারের তত্বাবধানে নিতে হবে। এক্ষেত্রে পেঁপে পাতার রস উপকারে আসতে পারে। তবে, যেহেতু পেঁপে পাতার রস এখনও বৈজ্ঞানিকভাবে স্বীকৃত না, তাই আপনার ডাক্তার আপনাকে এই রস খাওয়ার পরামর্শ দিবেন না। তবে ডাক্তারী চিকিৎসার পাশাপাশি অনেকেই পড়া পানি পান করেন, আপনি পেঁপে পাতার রস খেলে ক্ষতি কি?

ডেঙ্গু নিয়ে আতঙ্ক না, যথাযথ প্রতিরোধের ব্যাবস্থা করতে হবে। পরিবারের কেউ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হলে তুকতাকের আশ্রয় না নিয়ে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা নিন। ফেসবুকের সবকথা সরল মনে বিশ্বাস করার কোনো কারণ নাই। প্রচুর গুজব ঘুড়েবেড়ায় ফেসবুকের দেয়ালে আর পাতায়। সবার সুস্থতা কামনা করছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

গলায় মাছের কাঁটা: সায়েন্টিফিক সমাধান

গলায় মাছের কাঁটা: সায়েন্টিফিক সমাধান

শিরোনাম শুনে লেখাটি যেমন ভাবছেন, লেখাটি মোটেই সেরকম নয়। গলার কাঁটার সাহিত্যিক…

সারভাইক্যাল ক্যান্সার: কারণ, লক্ষণ ও করণীয় 

সারভাইক্যাল ক্যান্সার: কারণ, লক্ষণ ও করণীয় 

সারভাইক্যাল ক্যান্সার আমাদের দেশে খুব পরিচিত রোগ। তবে বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং সচেতনতার…

ব্যথাবিলাস ও আমাদের ব্যথাসহনীয়া ট্যাবু

ব্যথাবিলাস ও আমাদের ব্যথাসহনীয়া ট্যাবু

ব্যথা নিয়ে আমার নিজের মাথাব্যথা কম। আমার নিজের পেইন থ্রেসল্ড খুবই বেশী।…

গ্যাস্ট্রিক নামে কি কোন রোগ আছে?

গ্যাস্ট্রিক নামে কি কোন রোগ আছে?

আমাদের দেশে অনেক রোগী আছে গাস্ট্রিকের। কিন্তু বাস্তবতা হলো, গ্যাস্ট্রিক নামে এমবিবিএস…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর