২৫ জুলাই, ২০১৯ ০৪:১৩ পিএম

জনপ্রশাসন পদক পেলেন ডা. সাইফুল্লাহ এ কাফি 

জনপ্রশাসন পদক পেলেন ডা. সাইফুল্লাহ এ কাফি 

মেডিভয়েস রিপোর্ট: হাসপাতালের বহির্বিভাগে রোগী ভর্তির ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি (ওপিএএম) উদ্ভাবনের জন্য 'জনপ্রশাসন পদক-২০১৯' পেয়েছেন সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. সাইফুল্লাহ এ কাফি। 

গত মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁকে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়। পদক তুলে দেন সাতক্ষীরা-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল। 

সূত্রে জানা গেছে, ডা. সাইফুল্লাহ এ কাফির উদ্ভাবনী প্রকল্প প্রস্তাব ছিল ইমার্জিং প্রযুক্তি ব্যবহার করে বহির্বিভাগে রোগীদের অপেক্ষার সময় সংক্ষিপ্তকরণে ‘বহির্বিভাগে রোগী ভর্তির ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি (ওপিএএম)’। এটি স্বাস্থ্য চ্যালেঞ্জ তহবিল ২০১৯ এর জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ‘অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই)’ উদ্ভাবনী ল্যাবরেটরিতে জমা দেওয়া হয়েছিল। পরে এ ধারণাটি পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়। 

এ প্রসঙ্গে সাইফুল্লাহ এ কাফি বলেন, ‘এটি ছিল একটি দলগত কর্মকাণ্ড। এজন্য শৈশবের সবচেয়ে ভালো বন্ধু এবং প্রকল্প দলের সদস্য তথ্য ও প্রযুক্তি পরামর্শক আশিক হাসানকে ধন্যবাদ। কারণ গত ১৪ জুলাই এটুআই উদ্ভাবনী ল্যাবরেটরিতে অনুষ্ঠিত 'টেকনিক্যাল বিশেষজ্ঞ প্যানেল (টিইপি)' মূল্যায়নের ধারণাটি গঠন ও উপস্থাপনে তিনি অবদান রেখেছেন। পাশাপাশি প্রকল্প প্রস্তাবনায় দিকনির্দেশনা ও আন্তরিক পরামর্শের জন্য ডা. মো. রফিকুল ইসলামের প্রতিও অশেষ কৃতজ্ঞতা রইলো।’

নিজের অর্জন নিয়ে অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে ডা. কাফি মেডিভয়েসকে বলেন, ‘কোনো কাজের স্বীকৃতি পাওয়া নিশ্চয় ভালো লাগার বিষয়। তবে বিষয়টি বাস্তবায়নে বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ রয়েছে। এর ব্যবহারকীর যারা হবেন, অর্থাৎ সাধারণ মানুষ—সরকারি হাসপাতালগুলোতে টিকিট কেটে লাইনে দাঁড়িয়ে অভ্যস্ত। আগে থেকে অ্যাপয়েন্টমেন্টের বিষয়ে তারা পরিচিত না। সেজন্য তাদের কাছে এ পদ্ধতি সম্পর্কে ধারণা দেওয়াটাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।’

আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে আমাদের ফিজিশিয়ান, সার্জনদের জায়গাটা ধরে রাখতে হলে টেকনোলজির সঙ্গে ওরিয়েন্টেড হতে হবে। এজন্য রোগী দেখা কিংবা ডায়াগনোসিসের সময় চিকিৎসকদেরকে প্রযুক্তি ব্যবহার করে নিজেদের জায়গা করে নিতে হবে। এসব বিবেচনায় মেডিকেল ইমেজিং কিংবা ডায়াগনোসিসের ক্ষেত্রে আর্টিফিশিয়াল ইকুইপমেন্ট কিভাবে ব্যবহার করা যায়—এটা নিয়ে কাজ করার ইচ্ছা।’

প্রকল্পটির প্রাথমিক পাইলটিংয়ের জন্য জেলা প্রশাসনের অর্থায়নের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন বলেও জানান তিনি। 

এ রকম আরও কৃতিত্বপূর্ণ কাজ সম্পাদনের জন্য সবার দোয়া চেয়েছেন ডা. সাইফুল্লাহ এ কাফি।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত