২২ জুলাই, ২০১৯ ০৮:৫৯ এএম

ডেঙ্গুতে হবিগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জনের মৃত্যু 

ডেঙ্গুতে হবিগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জনের মৃত্যু 

মেডিভয়েস রিপোর্ট: ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন হবিগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. শাহাদাত হোসেন হাজরা। রোববার (২১ জুলাই) রাতে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

হবিগঞ্জ সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বেশ কিছুদিন ধরেই ডেঙ্গু জরে আক্রান্ত ছিলেন তিনি। রোববার সকালের দিকে কার্যালয়ে এসে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে তিনি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সমন্বয় সভায় অংশ নেন। এ সময় অসুস্থ বোধ করলে ডা. মো. শাহাদৎ হোসেন হাজরা সেখান থেকে চলে আসেন।

এরপর তাকে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিকেল ৪টার দিকে শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে ঢাকায় পাঠান। রাত সোয়া ১০টার দিকে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পৌঁছালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ডা. হাজরার বয়স হয়েছিল ৫৩ বছর। তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন। তার গ্রামের বাড়ি পিরোজপুর জেলায়। 

গত ৯ জুলাই পদোন্নতি পেয়ে হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন হিসেবে যোগদান করেন ভাণ্ডারিয়া উপজেলার সাবেক এ স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা।

ডা. শাহাদাত হোসেন হাজরা পিরোজপুর সরকার হাইস্কুল থেকে এসএসসি ও ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এইচসি পাস করেন। পরে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন শিক্ষার্থী ছিলেন। 

ভার্চুয়াল জগতে শোকের ছায়া: 

ডা. শাহাদাত হোসেনের মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মৃতুর সংবাদ দিয়ে ডা. জয়নাল আবেদীন টিটো বলেন, ‘ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন আরও একজন ডাক্তার। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন তাকে বেহেশত নসীব করুন।”  

চিকিৎসকদের নিরাপত্তা ও অধিকার রক্ষায় কাজ করে যাওয়া সংগঠন ফাউন্ডেশন ফর ডক্টরস সেফটি অ্যান্ড রাইটসের (এফডিএসআর) চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আবুল হাসনাত মিল্টন লেখেন, “আরো একটি চরম কষ্টের সংবাদ। আমরা শাহাদাত ভাইয়ের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। আল্লাহ তাকে বেহেশত নসীব করুন।  আমিন।”

ডা. শহিদুল আলম পলাশ বলেন, “হে আল্লাহ তুমি আমাদেরকে সমূহ বালা-মুসিবত থেকে রক্ষা করো এবং আমাদের এই ভাইকে জান্নাত নসীব করো, আমীন।”

তাঁর মৃত্যুতে মেডিভয়েস পরিবার শোকাহত।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত