১৮ জুলাই, ২০১৯ ০২:১১ পিএম

“আগস্টে আরও একটি লিভার ট্রান্সপ্লান্ট”

“আগস্টে আরও একটি লিভার ট্রান্সপ্লান্ট”

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) হেপাটোবিলিয়ারি ও প্যানক্রিয়েটিক ও লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. জুলফিকার রহমান খান জানিয়েছেন, লিভার ট্রান্সপ্লান্ট এখন থেকে দেশেই হবে। এ বছরের আগস্ট মাসেই আরও একটি লিভার ট্রান্সপ্লান্ট হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বিএসএমএমইউয়ের ডা. মিল্টন হলে দেশের প্রথম লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট সফলভাবে সম্পন্নের পর রোগী ও লিভার দাতাকে ছাড়পত্র প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। 

অধ্যাপক জুলফিকার রহমান খান জানান, তার জানা মতে প্রতিবেশী দেশ ভারতে লিভার ট্রান্সপ্লান্ট খরচ এক কোটি ও সিঙ্গাপুরে দুই কোটি টাকা। বাংলাদেশে যার জন্য খরচ হবে মাত্র ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা। বিশ্ববিদ্যালয়ের আরও পাঁচজন রোগীর লিভার ট্রান্সপ্লান্ট করা হবে। পরবর্তীতে সব খরচ বিবেচনায় প্যাকেজ ঘোষণা করা হবে। তবে বিশ্বের যেকোনো দেশের চেয়ে বাংলাদেশ লিভার ট্রান্সপ্লান্ট খরচ অনেক কম হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত আছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী জাহিদ মালেক এমপি। মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের হেপাটোবিলিয়ারি, প্যানক্রিয়েটিক ও লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোঃ জুলফিকার রহমান খান।

এর আগে গত ২৪ জুন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো লিভার প্রতিস্থাপন করা হয়। ওইদিন, ভোর ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত লিভার প্রতিস্থাপনের কার্যক্রম চলে। বিএসএমএমইউ-এর হেপাটোবিলিয়ারি ও প্যানক্রিয়েটিক ও লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. জুলফিকার রহমান খানের নেতৃত্বে বিভিন্ন বিভাগের চিকিৎসক, নার্স ও ওয়ার্ডবয়সহ প্রায় ৬০ জনের একটি দল এই কার্যক্রমে সেদিন অংশ নেয়।

এই চিকিৎসক টিমকে সহায়তা করেন ভারতের অভিজ্ঞ লিভার ট্রান্সপ্লান্ট সার্জন ডা. পি বালাচন্দ্র মেনন ও তার চার সদস্যের েএকটি বিশেষজ্ঞ টিম।

অধ্যাপক জুলফিকার রহমান খান বলেন, বিএসএমএমইউতে এটি প্রথমবারের মতো লিভার ট্রান্সপ্লান্ট। যা  আমরা সফলভাবে সম্পন্ন করতে সক্ষম হয়েছি। এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে আলাদা অপারেশন থিয়েটার, ল্যাব সুযোগ-সুবিধাসহ আইসিইউ, সি-আর্ম মেসিন, ডপলার আল্ট্রাসনোগ্রামসহ প্রয়োজনীয় সব সরঞ্জামাদি দরকার।

ইতোমধ্যে এ বিষয়ে বিএসএমএমইউর উপাচার্য ও স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ে লিখিতভাবে আবেদন করা হয়েছে বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের হেপাটোবিলিয়ারি, প্যানক্রিয়েটিক ও লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোঃ জুলফিকার রহমান খান।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে এটি প্রথম লিভার প্রতিস্থাপন হলেও দেশের ইতিহাসে এটি পঞ্চম। এর আগে ল্যাবএইড ও বারডেম হাসপাতালে চারজন রোগীর লিভার প্রতিস্থাপন করেছিলেন চিকিৎসকরা।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত