ঢাকা রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ৪ ঘন্টা আগে
১৭ জুলাই, ২০১৯ ১১:৩৫

মানুষের সেবা করা সবচেয়ে বড় ইবাদত: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মানুষের সেবা করা সবচেয়ে বড় ইবাদত: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মেডিভয়েস রিপোর্ট: স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, মানুষের সেবা হলো আল্লাহর কাছে সবচেয়ে বড় ইবাদত। তোমরা মানুষের সেবা করবে মানুষ তোমাদের ভালোবাসবে। মানুষ বেঁচে থাকে তার কর্মে, তোমরা ভালো ডাক্তার ও ভালো মানুষ হয়ে দেশের এবং মানুষের সেবা করবে তাহলেই কর্ণেল মালেকের আত্মা শান্তি পাবে।

মঙ্গলবার বিকেলে মানিকগঞ্জ কর্নেল মালেক মেডিকেল কলেজে মিলনায়তনে সাবেক মন্ত্রী ও ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র কর্নেল (অবঃ) আব্দুল মালেক এর ১৯তম মৃত্যু বার্ষির্কী উপলক্ষে স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি এসব কথা বলেন। মরহুম এম এ মালেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও পরিকল্পনা মন্ত্রী জাহিদ মালেকের বাবা।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, মেডিকেল কলেজে যারা পড়েন তারা মেধাবী। পড়াশোনা করে হয়তো ভালো ডাক্তার হওয়া যাবে। কিন্তু ভালো ডাক্তার হওয়ার পাশাপাশি ভালো মানুষ হতে হবে। ভালো মানুষ না হলে দেশে ও মানুষের সেবা করা যায় না। ভালো মানুষ হওয়ার জন্য মনমানসিকতা তৈরী করতে হবে।

ডাক্তারদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, আপনারা ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া করাবেন যাতে করে ছেলে মেয়েরা ভালো করতে পারে এবং প্রতিষ্ঠানগুলোর সুনাম হয়। দেশবাসী, আমাদের মানিকগঞ্জ বাসী এবং আশেপাশের মানুষ যাতে ভালো সেবা পায়। এটাই আমরা আপনাদের কাছ থেকে আশা করবো।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, আগামী একবছরের মধ্যে কর্ণেল মালেক মেডিকেল কলেজ ও হাসাপাতালের নির্মান কাজ শেষ হয়ে যাবে এবং স্বাস্থ্য সেবার জন্য মানিকগঞ্জ বাসীকে বাইরে যেতে হবে না। ১৯ বছর আগে তার পিতা কর্নেল মালেক মানিকগঞ্জে কোন চিকিৎসা সেবা পাননি। যে কারণে তার অকাল মৃত্যু হয়েছিল। আর সেদিন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যদি আল্লাহ সুযোগ সেবা করার সুযোগ দেয়। তাহলে মানিকগঞ্জবাসীর জন্য স্বাস্থ্য সেবায় কাজ করবো। আল্লাহ সেই সুযোগ দিয়েছেন এবং মানিকগঞ্জ বাসীর জন্য কাজ করে যাচ্ছি। এখন আর কেউ বিনা চিকিৎসায় মারা যায় না। কারণ বর্তমান সরকার স্বাস্থ্য সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছে এবং কাজ করে যাচ্ছে।

স্মরণ সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কর্নেল মালেক মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ আখতারুজামান, পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম, সিভিল সার্জন আনোয়ারুল আখন্দ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বাবুল মিয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ ফটো, জেলা ডায়াবেটিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সুলতানুল আজম খান আপেল, মেডিকেল কলেজের প্রফেসর আনিসুর জামান, মেডিকেল কলেজের ৪ বষের্র শিক্ষার্থী অলি আহম্মেদ ও ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী জান্নাতুল ফেরদৌসী অন্তরা প্রমুখ।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত