ঢাকা রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ৪ ঘন্টা আগে
০৪ জুলাই, ২০১৯ ২০:১৯

বার্ন ইনস্টিটিউটে দরিদ্ররা বিশেষ উপকৃত হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বার্ন ইনস্টিটিউটে দরিদ্ররা বিশেষ উপকৃত হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বার্ন ইউনিট সম্প্রসারিত হয়ে বর্তমানে ইনস্টিটিউটে রূপান্তরিত হওয়ায় দগ্ধ রোগীদের দেশের বাইরে যাওয়া বন্ধ হবে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, এর মাধ্যমে দরিদ্ররা বিশেষভাবে উপকৃত হবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীতে ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট বিশ্বের বৃহত্তম বার্ন ইনস্টিটিউটের সেবা কার্যক্রমের উদ্বোধন শেষে আয়োজিত সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

চাঁনখারপুলে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের অডিটোরিয়ামে আয়োজিত অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ আরও বলেন, পোড়া অসহায় রোগীদের জন্য এখন আর কোনো ধরনের দুশ্চিন্তা করতে হবে না। এই হাসপাতালটি রোগীদের সেবা দেওয়া ছাড়াও এ বিষয়ক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক তৈরিতেও ভূমিকা রাখবে। 

তিনি বলেন, এভাবে স্বাস্থ্যখাতে ব্যাপক উন্নয়ন হচ্ছে। আমাদের গড় আয়ু ও জিডিপি বেড়েছে। অনেক সমস্যাও সৃষ্টি হচ্ছে, অনেক প্রকল্প দীর্ঘদিন ধরে বাস্তবায়ন হচ্ছে না। এ কারণে মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে ও তার কার্যক্রম চলছে।

দেশে প্রতিবছর প্রায় ৬ লাখ মানুষ দগ্ধ হয় জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, দগ্ধদের অধিকাংশ দরিদ্র। এক্ষেত্রে আগুন ছাড়াও বিদ্যুতে পুড়ে অনেক আহত হয়, কিন্তু চিকিৎসা না করিয়ে তারা মানবেতর জীবনযাপন করেছে।

বার্ন ইনস্টিটিউটের ইতিহাস বলতে গিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে বিএনপি-জামায়াত জোট মানুষকে আন্দোলনের নামে ঝলসে দিচ্ছিল। তখন প্রধানমন্ত্রী এই ইউনিটকে সম্প্রসারিত করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। আগে এই ইউনিট শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চালু করেছিলেন। পরে তা ঢামেক ইউনিটে চালু করা হয়। বর্তমানে এটি ইনস্টিটিউটে রূপান্তরিত হয়েছে। ফলে দেশের বাইরে যাওয়া বন্ধ হওয়া ছাড়াও দরিদ্ররা বিশেষ করে উপকৃত হবে।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব ইউসুফ হারুন, সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান মেজর জেনারেল ইবনে ফজল শায়েখুজ্জামান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান, আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. এ কে এম নাসির উদ্দিন, শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়কারী ডা. সামন্ত লাল সেন প্রমুখ।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত