০১ জুলাই, ২০১৯ ১২:৪২ পিএম

মৃত্যুর খবর গুজব: অক্সিজেনে শ্বাস নিচ্ছেন এরশাদ

মৃত্যুর খবর গুজব: অক্সিজেনে শ্বাস নিচ্ছেন এরশাদ

মেডিভয়েস রিপোর্ট: রবিবার (৩০ জুন) দিবাগত রাতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের মৃত্যু হয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়ালেও এখনও তিনি বেঁচে আছেন। শারীরিক অবস্থাও অপরিবর্তিত রয়েছে। দলীয় মন্ত্রী, এমপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের ফেসবুক স্ট্যাটাসে এবং অখ্যাত কয়েকটি অনলাইন পোর্টালে তাঁর মৃত্যুর ভুয়া সংবাদ প্রকাশের ফলে সৃষ্টি হয় বিব্রতকর পরিস্থিতি।

গত বুধবার (২৬ জুন) থেকে ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি আছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক এই বিশেষ দূত।

জানা যায়, ঢাকাস্থ সেনানিবাসে অবস্থিত সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বিকেলের দিকে হঠাৎ তার শ্বাস কষ্টের পরিমান বৃদ্ধি পায়। ফুসফুসের ইনফেকশনের কারণে তা আরো প্রকট হয়ে ওঠে। ফলে তার নিঃশ্বাস নিতে খুব সমস্যা হচ্ছিলো। এ অবস্থায় তাকে চিকিৎসকরা তাৎক্ষনিকভাবে হাসপাতালের সিসিইউ (ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটে স্থানান্তর করেন এবং কৃত্রিমভাবে অক্সিজেন সাপোর্ট প্রদান করেন। তার এই অক্সিজেন সাপোর্ট এখনও চলছে।

এরশাদের প্রেস সেক্রেটারি ও সুনীল শুভ রায় জানান, জাপা চেয়ারম্যানের শরীরের অবস্থা খুব বেশি ভালো নয়। শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত রয়েছে। তাকে অক্সিজেনের সাহায্যে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে চিকিৎসকরা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।

এরশাদে ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি খন্দকার দেলোয়ার জালালী বলেন, সিএমএইচের চিকিৎসকরা অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গ পল্লীবন্ধুর চিকিৎসা দিচ্ছেন। তারা মনে করেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের চিকিৎসা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালেই সম্ভব। তবে, চিকিৎসকরা পরামর্শ দিলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পৃথিবীর যেকোনো দেশেই পাঠানোর প্রস্তুতি আছে আমাদের।

সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তির কয়েক মাস আগে সিঙ্গাপুর থেকে চিকিৎসা নিয়ে ফিরেছেন এরশাদ। পরে বিভিন্ন সময় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসকদের পরামর্শ নিয়েছেন।

এদিকে, এরশাদের শরীরের অবনতির খবর পেয়ে রবিবার সারা রাতই পার্টির দায়িত্বশীল নেতারা সামরিক হাসপাতালে গেছেন, দূর থেকে তাকে একটু দেখার জন্য। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ভেতরে প্রবেশ করতে না দিলেও রবিবার সন্ধ্যার পর থেকেই হাসপাতাল প্রাঙ্গণে নেতাকর্মীদের ভিড় ছিল।

রবিবার রাতে জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য ফখরুল ইমাম এমপি এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘স্যারকে দেখতে যাচ্ছি, তবে ভেতরে প্রবেশ করতে পারবো কিনা, জানি না।’

জাপার বর্তমান নেতাদের পাশাপাশি সাবেক নেতারাও এরশাদের শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নিতে হাসপাতালে ছুটে যান। জেপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু সামরিক হাসপাতালে এরশাদের স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নেন।

এর আগে, রবিবার (৩০ জুন) বিকালে এরশাদের ভাই জিএম কাদের সাংবাদিকদের জানান, সকাল থেকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে। ফুসফুসে পানি চলে এসেছে, ইনফেকশনও দেখা দিয়েছে। পরে শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাওয়ায় তাকে অক্সিজেন দেওয়া হয়। এদিন বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের অফিসে এক সংবাদ সম্মেলনে জিএম কাদের জানান, উন্নত চিকিৎসার জন্য এরশাদকে দেশের বাইরে নেওয়ার প্রস্তুতি রয়েছে পরিবারের। তবে এই মুহূর্তে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের (সিএমএইচ) চিকিৎসায় আমাদের আস্থা আছে।

গত ২০ জানুয়ারি এরশাদকে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে নেওয়া হয়েছিল।

এর আগে ৩০ ডিসেম্বরের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেই এরশাদ অসুস্থ হয়ে পড়েন। ১০ ডিসেম্বর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যান। এই কারণে নির্বাচনি প্রচারণায়ও অংশ নিতে পারেননি।

সম্প্রতি এরশাদ শারীরিক অসুস্থতার কারণে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করেন তার ছোট ভাই জিএম কাদেরকে।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি