ঢাকা      শনিবার ২১, সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ৫, আশ্বিন, ১৪২৬ - হিজরী

নিয়োগের ফলাফল বাতিলের সুযোগ নেই: বিএসএমএমইউ

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) মেডিকেল অফিসার নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ ও নিয়োগ বাতিলের দাবির প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অবস্থান তুলে ধরা হয়েছে। একই সঙ্গে নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে গনমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তাদের মতে, ক্যাম্পাসে দীর্ঘদিন ধরে চলমান চিকিৎসক নিয়োগ সম্পর্কিত আন্দোলন যুক্তিহীন। এছাড়া দাবি অনুসারে এ নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল করে পুনরায় পরীক্ষা গ্রহণের সুযোগ নেই।

মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার মজুমদার স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ বক্তব্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সুস্পষ্ট অবস্থান তুলে ধরা হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল অফিসার নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেননি এমন কিছু অকৃতকার্য প্রার্থী নানা ধরণের অপপ্রচার ও মিথ্যাচার করছেন। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসনের বিরুদ্ধে নানা ধরনের আপত্তিকর বক্তব্য ও স্লোগান দিচ্ছে। দেয়াল লিখনের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মান ও মর্যাদা ক্ষুণ্ন করছে।

নিয়োগ পরীক্ষায় অনিয়মের অভিযোগ প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অবস্থান নিম্নে তুলে ধরা হলো-

১. মেডিকেল অফিসার নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার আগেই কোনো একটি বিশেষ কক্ষে প্রশ্নপত্র খোলার অভিযোগটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। প্রশ্নপত্র মডারেশন, মুদ্রণ এবং প্যাকিং ও সিল করার জন্য গঠিত কমিটি অত্যন্ত সতর্কতা ও গোপনীয়তার সঙ্গে তাদের কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে। ওই কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর এবং পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অন্তর্ভুক্ত ছিলেন না এবং তাদের উপস্থিত থাকার বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার চার দিন আগে কোনো বিশেষ কক্ষে প্রশ্নপত্রের সিল্ড প্যাকেট খোলার প্রয়োজন পড়ে না এবং খোলাও হয়নি। এ অভিযোগটিও সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।

২. নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখিত আবেদনের সর্বোচ্চ বয়স ৩২ এর ঊর্ধ্বে অনেক প্রার্থীর নাম বৈধ তালিকায় রয়েছে এ কথা সার্বিকভাবে সত্য নয়। এ ধরনের দু’জন প্রার্থীর (যাদের বয়স ৩২ এর ঊর্ধ্বে) আবেদন ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। একজনের আবেদন প্রাথমিক যাচাই-বাছাইয়ের সময় ধরা পড়ায় তার আবেদন লিখিত পরীক্ষার আগেই বাতিল করা হয়েছে। তবে ডা. বিদ্যুৎ কুমার সূত্রধর নামে আরেকজন প্রার্থী তার বয়সের প্রকৃত তথ্য গোপন করে আবেদন করেছেন এবং লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন। আবেদনপত্রে তার জন্ম তারিখ ২১/০৬/১৯৮৬ উল্লেখ করেছেন, যাহা সঠিক ছিলো না। তার এ ধরনের ইচ্ছাকৃত অনৈতিক কর্মকাণ্ডের জন্য অত্র বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।      

৩. বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছুসংখ্যক শিক্ষক ও কর্মকর্তার আত্মীয়-স্বজন নিয়মনীতি অনুসরণ করে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন এবং তাদের মধ্যে মাত্র কয়েকজন লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। এখানে উল্লেখ্য যে, প্রশ্নপত্র মডারেশন, মুদ্রণ এবং প্যাকিং ও সিল করার জন্য গঠিত কমিটিতে ভাইস-চ্যান্সেলর, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বা ভাইস-চ্যান্সেলরের পিএস-২ অন্তর্ভুক্ত ছিলেন না। 

৪. ডেন্টালের পরীক্ষার্থীদের মধ্যে প্রশ্ন বিতরণের সময় কিছু অসঙ্গতি ধরা পড়ে এবং পরীক্ষার হলেই তাৎক্ষণিকভাবে ডেন্টালের প্রশ্নপত্র যথাযথভাবে সরবরাহ করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। তাই এ নিয়ে কোনো ধরনের বিতর্ক সৃষ্টির সুযোগ নাই। 

৫. ফলাফল প্রকাশের আগেই পরীক্ষার রোল নম্বরসহ যে তালিকা পাওয়ার কথা বলা হয়েছে, সেটা ভিত্তিহীন। কারণ এ ধরনের কোনো প্রমাণ বা লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। 

৬. পরীক্ষা কেন্দ্রে বা হলে মোবাইল ফোন, ইলেকট্রনিক হাত ঘড়ি বা অন্য কোনো ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস নিয়ে ঢোকার বিধান নেই (যা প্রতিটি প্রবেশপত্রে সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ আছে)। তাই এ ধরনের ডিভাইস ব্যবহারের মাধ্যমে পরীক্ষার উত্তর সরবরাহ করার কোনো সুযোগ নেই। পরীক্ষা চলাকালীন কোনো পরীক্ষার্থীর বিরুদ্ধে এ ধরনের ডিভাইস ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেলে বা এ ধরনের অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার পরীক্ষা বাতিল হবে।  

লক্ষ্যণীয় হলো যে, মেডিকেল অফিসার নিয়োগ পরীক্ষার দিন থেকে পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের দিন পর্যন্ত এ নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে প্রশ্নপত্র ফাঁস বা কোনো ধরনের অনিয়ম বা অসঙ্গতির অভিযোগ পাওয়া যায়নি। ফলাফল প্রকাশের পর কিছু অকৃতকার্য প্রার্থী এ পরীক্ষা নিয়ে ভিত্তিহীন অভিযোগ উত্থাপন করেন। এমতাবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মনে করেন, মেডিকেল অফিসার ও মেডিকেল অফিসার (ডেন্টাল সার্জারি) নিয়োগ পরীক্ষা স্বনামধন্য জ্যেষ্ঠ শিক্ষকদের নিয়ে গঠিত কমিটির মাধ্যমে সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছভাবে সম্পন্ন হয়েছে। তাই মেডিকেল অফিসার নিয়োগ পরীক্ষায় কিছুসংখ্যক অকৃতকার্য প্রার্থী পরীক্ষার ফলাফল বাতিলের যে দাবি করেছে, তা সম্পূর্ণরূপে অযৌক্তিক বিধায় ফলাফল বাতিল বা পুনঃপরীক্ষা গ্রহণের কোনো সুযোগ নাই।

প্রসঙ্গত, ২২ মার্চ মেডিকেল অফিসার নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ১২ মে এর ফলাফল প্রকাশিত হয়। এই পরীক্ষার পর থেকেই চাকরিপ্রত্যাশী একটি অংশের অভিযোগের মধ্যে রয়েছে— ফাঁস হওয়া প্রশ্নে পরীক্ষা গ্রহণ, ৩২ বছরের বেশি বয়সী প্রার্থীদের নিয়োগের পাঁয়তারা এবং লিখিত পরীক্ষা না দিয়েও কয়েকজন প্রার্থীর উত্তীর্ণ হওয়ার কথা।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় রেকর্ড সংখ্যক আবেদন

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় রেকর্ড সংখ্যক আবেদন

মেডিভয়েস রিপোর্ট: দেশের সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায…

চিকিৎসক সংকট: তথ্য জানতে জেলায় জেলায় ৩৯তম বিসিএসে উত্তীর্ণরা

চিকিৎসক সংকট: তথ্য জানতে জেলায় জেলায় ৩৯তম বিসিএসে উত্তীর্ণরা

ভ্রমণকাহিনী শুনলেই দৃশ্যপটে ভেসে ওঠে আনন্দময় কিছু মূহূর্ত। ভ্রমণকে বেছে নেয় সবাই…

‘ভ্যাকসিন হিরো’ সম্মাননায় ভূষিত হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

‘ভ্যাকসিন হিরো’ সম্মাননায় ভূষিত হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বাংলাদেশে টিকাদান কর্মসূচির সাফল্যের জন্য ‘ভ্যাকসিন হিরো’ সম্মাননায় ভূষিত হচ্ছেন…

উপ-পরিচালক পদে পদোন্নতি পেলেন ৪৯ চিকিৎসক

উপ-পরিচালক পদে পদোন্নতি পেলেন ৪৯ চিকিৎসক

মেডিভয়েস রিপোর্ট: স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের বিভাগীয় পদোন্নতি পদোন্নতি কমিটির (ডিপিসি) সুপারিশক্রমে…

কুমিল্লার সেরা মেডিকেল অফিসার ডা. আবুল ফরহাজ খান

কুমিল্লার সেরা মেডিকেল অফিসার ডা. আবুল ফরহাজ খান

মো. মনির উদ্দিন: কুমিল্লা জেলার সেরা মেডিকেল অফিসার হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছেন চান্দিনা…

রোগী দেখা রেখে ফিটনেস সার্টিফিকেট না দেয়ায় চিকিৎসক লাঞ্ছিত

রোগী দেখা রেখে ফিটনেস সার্টিফিকেট না দেয়ায় চিকিৎসক লাঞ্ছিত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: নাটোরে রোগী দেখা রেখে ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ফিটনেস সার্টিফিকেট না…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর