ঢাকা      শুক্রবার ২০, সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ৪, আশ্বিন, ১৪২৬ - হিজরী

১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকায় নির্মাণ হচ্ছে নতুন শিশু হাসপাতাল

মো. মনির উদ্দিন: সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী, ঢাকা শহরে এক হাজার শয্যা বিশিষ্ট একটি শিশু হাসপাতাল নির্মাণের প্রক্রিয়া এগিয়ে চলেছে। এর নির্মাণ খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। রাজধানীর পূর্বাচলে ওই হাসপাতালের জন্য এরই মধ্যে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) কাছে ১০ একর জমি চাওয়া হয়েছে।

রাজউক জায়গা বরাদ্দ দিলেই শুরু হবে প্রস্তাবিত ‘ন্যাশনাল চিলড্রেন হসপিটাল অ্যান্ড ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ’ নামে এই বিশেষায়িত শিশু হাসপাতালের কাজ। তবে জাতীয় অথনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) পাস হওয়ার ওপরই পুরো বিষয়টি নির্ভর করছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। 

প্রস্তাবিত এ শিশু হাসপাতালের প্রকল্প পরিচালক এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিওনেন্টাল সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. আবদুল হানিফ (তাবলু) মেডিভয়েসকে বলেন, “একটি উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) তৈরি করা হয়েছে। হাসপাতালের জন্য রাজউকের কাছে জায়গা চাওয়া হয়েছে। এতে সম্মতি দিয়েছে তারা। তবে কি পরিমাণ জায়গা পাবো—এ ব্যাপারে এখনো আমাদের জানানো হয়নি। তাদের মিটিংয়ে এটি পাস হতে হয়, এটি প্রক্রিয়াধীন।”

অধ্যাপক ডা. আবদুল হানিফ বলেন, “হাসপাতালের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ১৫ একর জমি প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়কে এরই মধ্যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শিশু হাসপাতাল নির্মাণ নিয়ে তারা গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিমের সঙ্গে দেখা করেছেন। তিনি জায়গা দেওয়ার বিষয়ে সম্মতি প্রকাশ করেছেন।”

তিনি আরও বলেন, জায়গা নিশ্চিত হয়ে গেলেই এক হাজার শয্যার এ হাসপাতালের কাজ শুরু হবে। এখানে শিশু মেডিসিন থেকে শুরু করে সব বিভাগ থাকবে, যাতে শিশুরা সব ধরনের চিকিৎসা পেতে পারে। হাসপাতালে সেবার পাশাপাশি ইনস্টিটিউটে জনবল প্রশিক্ষণ দেওয়া ও গবেষণার সুযোগ সৃষ্টি করা হবে।

হাসপাতালের অবকাঠামো 

প্রস্তাবিত ‘ন্যাশনাল চিলড্রেন হসপিটাল অ্যান্ড ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশের’ উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) নিয়ে কাজ করে যাওয়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মো. মাহবুবুল আলম বিপ্লব মেডিভয়েসকে বলেন, “হাসপাতালের আওতায় ১০টি ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা আছে। এর মধ্যে একটি হাসপাতাল, একটি অ্যাকাডেমিক, একটি আন্তর্জাতিক মানের ট্রেনিং সেন্টার, চিকিৎসকদের জন্য কোয়ার্টার, পরিচালকের কোয়ার্টার, সহকারী পরিচালকের কোয়ার্টার, নার্সদের জন্য ডরমেটরি এবং স্টুডেন্টদের থাকার জন্য একটি কোয়ার্টার থাকবে। এছাড়া রোগীর অ্যাটেনডেন্সদের থাকার জন্য ২/৩ তলা একটি বিল্ডিং করে দেওয়া হবে। যাতে তারা রাতে সেখানে ঘুমানোর পাশাপাশি দিনে বিশ্রাম নিতে পারেন। এজন্য তাদের সামান্য পরিমাণ (২০-৩০ টাকা) চার্জ দিতে হবে। ”

তবে ভূমিকম্পের ঝুঁকি বিবেচনায় মূল হাসপাতাল ভবন ১০তলার বেশি হবে না বলে জানান তিনি।   

এর মধ্যে আরও কিছু অবকাঠামো থাকবে উল্লেখ করে ডা. বিপ্লব জানান, হাসপাতালে শিশু পার্ক, পুকুর ও বাচ্চারের খেলার মাঠ—এ রকম শিশুবান্ধব একটি পরিবেশ থাকবে। 

প্রস্তাবিত এ শিশু হাসপাতাল নির্মাণের জন্য কী পরিমাণ ব্যয় ধরা হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। তবে বাজেট কম-বেশি হতে পারে। 

হাসপাতালের জনবল

ডা. মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম বিপ্লব জানিয়েছেন, হাসপাতালে প্রায় ৩ হাজার ২০০ জনবল থাকবে। স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে ৭-৮শ’ চিকিৎসক, এর মধ্যে ৪শ’ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকবেন। এছাড়া ৭শ’ নার্স থাকবেন। 

হাসপাতালে ১ দিনের শিশু থেকে ১৮ বছরের শিশুদের যেকোনো রোগের সেবা দেওয়া হবে। এখানে সকল শিশু রোগের চিকিৎসা ও অপারেশন সম্ভব হবে।

প্রাথমিকভাবে যেসব বিভাগ থাকবে

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এ হাসপাতালে মেডিসিন বিভাগ থাকবে পেডিয়াট্রিক পালমোনলজি, পেডিয়াট্রিক এন্ডোক্রাইনোলজি, পেডিয়াট্রিক গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি, পেডিয়াট্রিক রিউমার্কোলজি, পেডিয়াট্রিক কার্ডিওলোজির মতো গুরুত্বপূর্ণ বিভাগসমূহ। 

এছাড়াও কার্ডিয়াক সার্জারি, অর্থোপেডিক সার্জারি, পেডিয়াট্রিক গাইনোকোলজি, পেডিয়াট্রিক ইএনটি, পেডিয়াট্রিক ডেনটিস্ট্রি, পেডিয়াট্রিক বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি, গ্যাস্ট্রোলজি, নেফরোলজি, ইউরোলজি বিভাগের চিকিৎসা দেওয়া হবে হাসপাতালে। শিশুদের হার্ট সার্জারি, ফুসফুস সার্জারি ও অর্থোপেডিক সার্জারিসহ যেকোনো রোগের বিশেষায়িত চিকিৎসা দেওয়া হবে এখানে। 

এদিকে, বর্তমানে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে শিশুদের বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছে স্বায়ত্তশাসিত বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান ঢাকা শিশু হাসপাতাল। এখানে থ্যালাসেমিয়া, অ্যাজমা, লিভার, ক্যান্সার, হৃদরোগ, কিডনি, বক্ষব্যাধি, সার্জারি ও মেডিসিনসহ সব ধরনের চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হচ্ছে। 

কাঙ্খিত চিকিৎসা না পাওয়ায় জটিল রোগে আক্রান্ত শিশুদেরকে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে এ প্রতিষ্ঠানে নিয়ে আসা হচ্ছে। ভালো চিকিৎসার আশায় প্রতিদিনই রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অসংখ্য রোগী ভিড় জমাচ্ছে এখানে। কিন্তু হাসপাতালে শয্যাসঙ্কটের কারণে ভর্তিযোগ্য এসব রোগীদের অর্ধেকের বেশি শিশুকে নিয়ে ফিরে যেতে হয় অভিভাবকদের। এছাড়া অর্থাভাবে মানসম্মত সেবাও নিশ্চিত করতে পারছে না কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালের চিকিৎসকরা আছেন আবাসনসংকটে।

জ্বরে আক্রান্ত শিশুকে হাসপাতালে নিয়ে আসা এক অভিভাবক মেডিভয়েসকে বলেন, শয্যা খালি না থাকায় প্রিয় সন্তানকে ভর্তি করাতে ব্যর্থ হয়ে একরাশ হতাশা নিয়ে ফিরে যাচ্ছেন তিনি। ওই অভিভাবক জানান, এই হাসপাতালটা ভালো বলে মানুষের মুখে শুনেছিলেন। এ জন্যই ঢাকার বাইরে থেকে সন্তানকে নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু সিট খালি না থাকায় ফিরে যাচ্ছেন।

একজন অভিভাবক মেডিভয়েসকে বলেন, প্রাইভেটে চিকিৎসা ব্যয়সাপেক্ষ, অসুস্থ হলে বাচ্চার রোগের চিকিৎসার জন্য ঋণের মুখোমুখি হতে হয়। কারণ অনেক সময় বিভিন্ন টেস্ট করাতে হয়, এ খরচের টাকা হাতে থাকে না। 

সরকারি উদ্যোগে বিশেষায়িত শিশু হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগকে ইতিবাচক উল্লেখ করে তিনি বলেন, পরিকল্পনা অনুযায়ী—এ রকম সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হলে অনেক খরচ থেকে মুক্তি মিলবে তাদের। 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় রেকর্ড সংখ্যক আবেদন

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় রেকর্ড সংখ্যক আবেদন

মেডিভয়েস রিপোর্ট: দেশের সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায…

চিকিৎসক সংকট: তথ্য জানতে জেলায় জেলায় ৩৯তম বিসিএসে উত্তীর্ণরা

চিকিৎসক সংকট: তথ্য জানতে জেলায় জেলায় ৩৯তম বিসিএসে উত্তীর্ণরা

ভ্রমণকাহিনী শুনলেই দৃশ্যপটে ভেসে ওঠে আনন্দময় কিছু মূহূর্ত। ভ্রমণকে বেছে নেয় সবাই…

‘ভ্যাকসিন হিরো’ সম্মাননায় ভূষিত হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

‘ভ্যাকসিন হিরো’ সম্মাননায় ভূষিত হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বাংলাদেশে টিকাদান কর্মসূচির সাফল্যের জন্য ‘ভ্যাকসিন হিরো’ সম্মাননায় ভূষিত হচ্ছেন…

উপ-পরিচালক পদে পদোন্নতি পেলেন ৪৯ চিকিৎসক

উপ-পরিচালক পদে পদোন্নতি পেলেন ৪৯ চিকিৎসক

মেডিভয়েস রিপোর্ট: স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের বিভাগীয় পদোন্নতি পদোন্নতি কমিটির (ডিপিসি) সুপারিশক্রমে…

রোগী দেখা রেখে ফিটনেস সার্টিফিকেট না দেয়ায় চিকিৎসক লাঞ্ছিত

রোগী দেখা রেখে ফিটনেস সার্টিফিকেট না দেয়ায় চিকিৎসক লাঞ্ছিত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: নাটোরে রোগী দেখা রেখে ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ফিটনেস সার্টিফিকেট না…

কুমিল্লার সেরা মেডিকেল অফিসার ডা. আবুল ফরহাজ খান

কুমিল্লার সেরা মেডিকেল অফিসার ডা. আবুল ফরহাজ খান

মো. মনির উদ্দিন: কুমিল্লা জেলার সেরা মেডিকেল অফিসার হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছেন চান্দিনা…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর