অমিত ঘোষ

অমিত ঘোষ

শিক্ষার্থী, তায়রুন্নেছা মেমোরিয়াল মেডিকেল কলেজ। 


১০ মে, ২০১৯ ০৩:৩৯ পিএম

অমেরুদণ্ডী থেকে মেরুদণ্ডী প্রাণীতে রুপান্তরের প্রয়াস!

অমেরুদণ্ডী থেকে মেরুদণ্ডী প্রাণীতে রুপান্তরের প্রয়াস!

ডাক্তার বলতেই চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী আমাদের চোখের সামনে ভেসে উঠে এমন একটা শ্রেণী, যাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া তো দূরের কথা দেয়াল ভেঙ্গে পেছনে চলে গেলেও মুখে ‘টু’ শব্দটি করবে না। বিস্তারিত বিবরনে না গিয়ে শুধু এইটুকু বলি, ডাক্তার মানে হবে- সর্বংসহা।

মানবাধিকার থেকে শুরু করে ন্যায় অন্যায়, অনিয়ম-দূর্নীতি কোন কিছু নিয়েই এরা কথা বলতে পারবেনা। মানে বলতে দেয়া হবেনা। রোগীর লোকজন মেরে হাত ভেঙে দিলেও ভাঙা হাত নিয়েই সেই রোগীর চিকিৎসা দিতে হবে, বিচারের তো প্রশ্নই উঠে না।

হ্যাঁ, এমন চিকিৎসক প্রজাতি দেখেই আমরা অভ্যস্ত। এসব কারনে পেশাগত বিভিন্ন ফোরামেও আমরা নিজেরা নিজেদেরকে অমেরুদণ্ডী বলে থাকি। কিন্তু, বাঙালী তো বীরের জাতি। সেই বীরের জাতি হয়ে একটি নির্দিষ্ট পেশার লোকজন অমেরুদণ্ডী প্রাণীর মতো আচরণ করবে, এটা তো হতে দেয়া যায়না। এতোদিনেও যেহেতু এরা পাল্টায়নি, তাই এবার এদেরকে রুপান্তরের চেষ্টা করা হচ্ছে একটু ভিন্ন কৌশলে!আর সেই চেষ্টাটা বেশ জোরেশোরেই শুরু হয়েছে, মোটামুটি আমাদের ব্যাচ/জেনারেশন থেকে।

বুঝলেন না তো..! ওকে, উদাহরনসহ বুঝিয়ে দিচ্ছি:

১. আমাদের সময়ই হঠাৎ করে শুনলাম, মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা সেকেন্ড টাইম দেয়া যাবেনা। তারচেয়েও তাড়াতাড়ি জানলাম, এই সিদ্ধান্ত নাকি কার্যকরও হয়ে গেছে। -অতঃপর আন্দোলন এবং আগের নিয়ম পুনর্বহাল।

২. একদিন হুট করে শুনলাম, "ক্যারিওন সিষ্টেম" আর থাকবেনা। থাকবেনা মানে অলরেডী বাতিল করে দেয়া হয়েছে। -অতঃপর আন্দোলন এবং আগের নিয়ম পুনর্বহাল।

৩. মেডিকেল ভর্তিপরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস। এটা অবশ্য হঠাৎ নয়, মোটামুটি নিয়মিতই ছিলো এবং আরও নিয়মিত ছিলো কর্তৃপক্ষের অস্বীকার করাটা। -অতঃপর আন্দোলন এবং এখন ঠিকঠাক।

৪. আগেই বলেছি, ডাক্তার মার খাবে এটাই নিয়ম। কিন্তু, হঠাৎ করেই সেই নিয়ম ভেঙ্গে ফেলেন বগুড়া মেডিকেল কলেজের তৎকালীন ইন্টার্ন চিকিৎসকগন। একজন মহিলা ইন্টার্ন চিকিৎসককে অত্যন্ত নোংরা ভাষায় কথা বলার পরও তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছের লোক পরিচয়ে হুমকি দিয়ে চিকিৎসকদের আক্রমণ করতে গেলে এবার চিকিৎসকেরাই উল্টো ধোলাই দেন।

তারপরের ঘটনা আমরা সবাই জানি, সেই ইন্টার্ন চিকিৎসকদেরকে ৬ মাসের জন্য ইন্টার্নশিপ স্থগিতসহ পরবর্তীসময়ে বিভিন্ন জায়গায় বদলী করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। -অতঃপর আন্দোলন এবং যথারীতি এবারও সব ঠিকঠাক।

তাহলে এখন বুঝতে পারছেন তো, গাছের গোড়া কেটে আগায় কেন পানি ঢালা হচ্ছে, মানে কোন ধরনের পরিকল্পনা ছাড়া কোন ধরনের সম্পূরক ব্যবস্থা না নিয়ে হঠাৎ করেই ইন্টার্নিশিপ ২ বছর করার কথা চলছে কেন...!

এরপরও না বুঝলে আমি আর কিছুই বলতে পারবোনা, ওস্তাদের নিষেধ আছে। তার ওপর আছে মূর্খ মানুষের গালির ভয়। মূর্খ মানুষের গালি এমন তিতার তিতা, যে খাইছে সে-ই জানে। তারপরও বলা রইলো, কারো খুব বেশী খারাপ লাগলে আমাকে আপনাদের লোক মনে করে মাফ করে দিবেন। কারণ-

দেশের মেডিকেল সেক্টরটা নিয়ে আপনারা সবাই তো আসলে মজাই করতেছেন, আমিও না হয় একটু করলাম!

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না