ডা. মোঃ মাকসুদ উল্যাহ্‌

ডা. মোঃ মাকসুদ উল্যাহ্‌

চিকিৎসক, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল


২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ১০:৪৩ এএম

ডাক্তারের বউয়ের কি সিজার হয় না?

ডাক্তারের বউয়ের কি সিজার হয় না?

সিজারিয়ান সেকশন বেশি হওয়ার অন্যতম প্রধান কারণ, প্রসূতিগণ অনেকেই প্রসবের ব্যথা সহ্য করতে নারাজ। তারা সংক্ষেপে সেরে যেতে চান। সিজার করতে পারলেই যেন তারা বেঁচে যান। তাছাড়া এতে পরিবার পরিকল্পনার প্রভাব আছে।

প্রথম সন্তান সিজারে হলে সেই প্রসূতি সাধারনত পরবর্তীতে আর তিন সন্তানের বেশি গ্রহন করতে পারেন না। কিন্তু পরিবার পরিকল্পনার ক্ষেত্রে তারা মনে করেন দুই সন্তানই যথেষ্ট। ফলে একদিকে প্রসব বেদনা থেকে বাঁচা গেল, অন্যদিকে সময় লাগলো কম, অন্যদিকে বোনাস হিসেবে পরিবার পরিকল্পনা হয়ে গেল।

এসব চিন্তা করে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রসূতি এবং তার স্বামী উভয়েই চান সিজারের মাধ্যমে ডেলিভারি করাতে। সংক্ষেপে এবং সস্তায় সেলিব্রেটি হওয়ার জন্য অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দেন, "এদেশে ডাক্তারের বউয়ের সিজার হয় না।" মুহূর্তের মধ্যেই সেই পোস্ট বিশ-ত্রিশ হাজার শেয়ার হয় এবং তারা হয়ে যায় সস্তা সেলিব্রেটি তথা প্রতারক তথা পাপী।

বাস্তবতা হচ্ছে, জরিপ করলে হয়তো দেখা যাবে ডাক্তারের বউদের সিজারের হার সাধারণ প্রসূতিদের চাইতে বেশি আর তারা অধিকাংশরাই ডাক্তার। যদি শুধুমাত্র ডাক্তারের লোভের কারণে সিজারের হার বৃদ্ধি পেয়ে থাকে, তাহলে সরকারি হাসপাতালে দিন রাত এত সিজার হয় কেন? অনেক সময় প্রসূতির অবস্থা এতই খারাপ থাকে যে, জরুরী সিজার না করলে প্রসূতি এবং গর্ভস্থ সন্তান উভয়েই মারা যাবে। তাই অন্ধ এবং একতরফা অপপ্রচার বন্ধ হোক।

নতুন শনাক্ত দেড় সহস্রাধিক

ঈদের আগে করোনায় একদিনে ২৮ জনের মৃত্যু

দাবি পেশাজীবী সংগঠনের, রিট পিটিশন দায়ের

‘বেসরকারি মেডিকেলের ৮২ ভাগের বোনাস ও ৬১ ভাগের বেতন হয়নি’

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না