ঢাকা      সোমবার ২৩, সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ৭, আশ্বিন, ১৪২৬ - হিজরী



ডা. কাওসার আলম

মেডিকেল অফিসার ও রেসিডেন্ট, কার্ডিওলজি বিভাগ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়


ভূলুণ্ঠিত মানবিকতা

একটি আর্টিকেলে পড়েছিলাম, কেনিয়ার কোনো এক অঞ্চল থেকে কিছু কঙ্কাল নিয়ে পরীক্ষা করে দেখা গেছে, এগুলো প্রায় দশ হাজার বছর আগের মানুষের। কোন কঙ্কালে মাথার স্কাল বোনে তীর ছেদ করা ছিদ্র, কোন কঙ্কালের পাজরের হাড় ভাঙা, একটি কংকাল ছিল খুবই হৃদয়বিদারক সেই কংকালটি ছিল একজন গর্ববতীর মহিলার, যাকে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় তীর মেরে হত্যা করা হয়েছিল।

ধারণা করা হয়েছিল, এটা পৃথিবীর প্রথম মানুষে মানুষে যুদ্ধে নিহতদের কঙ্কাল। সেই যুদ্ধটি খাবার নিয়ে হয়েছিল বলে গবেষণায় উঠে আসে।

ইতিহাস বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, এক দল মানুষ খাবার সংগ্রহ করেছে আর আরেক দল তাদের কাছ থেকে খাবার কেড়ে নেওয়ার জন্য স্বজাতির মানুষকে হত্যা করে।

আজকে সভ্য যুগের মানুষ স্বজাতির কাউকে হত্যা করছে। দশ হাজার বছরেও মানুষ তার ভিতরের সহিংস মানসিকতাকে কাটিয়ে উঠতে পারেনি। আগের অসভ্য মানুষের চেয়ে এখনকার যুগের সভ্য মানুষের সহিংসতা অনেকগুণ বেশি।

প্রস্তর যুগে মানুষ মানুষকে হত্যা করেছে খাবারের জন্য, এটা মানুষের মৌলিক চাহিদা। সেই চাহিদা পূরণ করতে পারতো না বলে সে তার স্বজাতির কাউকে হত্যা করেছে। খুব নেতিবাচক চিন্তা করলে এটা ব্যখ্যা করা যায়, মানুষ প্রয়োজনের জন্য সেটা করেছে। কিন্তু বর্তমান এই সভ্য যুগে মানুষ কেন মানুষকে হত্যা করে? আমি দৃশ্যত কোনো কারণ খুঁজে পাই না।  

মানুষ কি তার ভিতরের পারস্পরিক ভালবাসা দিয়ে বিশ্ব জয় করতে পারে না? সে সময় মানুষ নৈতিকতা আর মানবিকতা এই শব্দগুলোর সঙ্গে পরিচিত ছিল না। আর এ যুগে শব্দগুলো সবার কাছে বেশ পরিচিত। তবে পৃথিবীতে চলমান সহিংসতার প্রেক্ষাপটে মনে হয়, এই শব্দগুলো শুধু বই পুস্তক আর মানুষের লেখনীতে বিদ্যমান।  

আমি যখন দেখি, পোড়া মানুষের লাশের গন্ধ কোনো এক মন্ত্রীর দাম্ভিকতা বাড়িয়ে দেয়, তখন আমি ভাবি আমার সমাজে মানবিকতার জায়গা কোথায়? যখন দেখি, বিচার চাওয়ার দোষে নুসরাতের মতো জলজ্যান্ত একজন মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়, তখন ভাবি এদেশে মানবতা আর নৈতিকতা ধূলায় গড়াগড়ি খায়। মানুষের মনে, হৃদয়ে চলনশীলতায় মানবিকতার কোনো জায়গা নেই।

আমি আগে ভাবতাম, আমার এই সমাজ ও দেশেই শুধু মানবিকতা আর নৈতিকতার কোন স্থান নেই। এখন দেখছি, সারাবিশ্বের কোথাও নৈতিকতা, মানবিকতার কোনো বালাই নেই।  

আমি বারবার স্তম্ভিত হই, যখন দেখি মসজিদে বোমা হামলায় নামাজরত অবস্থায় মানুষকে ব্রাশফায়ার করে হত্যা করা হয়,  আমার হৃদয় ফেটে রক্ত ঝরে যখন দেখি গীর্জায় আমার একজন খ্রিস্টান ভাই প্রার্থণারত অবস্থায় ঘাতকের বোমায় প্রাণ হারায়।  

ধর্ম বিশেষের সংকীর্ণ দৃষ্টিকোণ হয়তো মানুষে মানুষে পার্থক্য তৈরি করতে পারে। কিন্তু মানবিকতার বিচারে প্রতিটি মানুষই পরস্পরকে ভাই। শ্রীলঙ্কায় যখন আমার একজন ভাই রক্তাক্ত হয়, তখন আমি আঘাত পাই, কারণ সে একজন মানুষ এবং আমিও একজন মানুষ।

কবি চন্ডীদাসের সেই অমর বাণী সবার উপর মানুষ সত্য তাহার উপরে নাই।  আমি মনে করি, এটি মানব ইতিহাসের সবচেয়ে মানবিক বাণী।  সারা পৃথিবীর শরীর থেকে যখন রক্ত ঝরছে, তখন রক্তপাত বন্ধ করার জন্য এরচেয়ে মহৌষধ আর কি হতে পারে?  মানুষে মানুষে ভালবাসা, মানবিকতা দিয়ে এই হত্যা আর রক্তপাতের অবসান হওয়ার  প্রতিক্ষায় থাকলাম।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


পাঠক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

সন্তানের থ্যালাসেমিয়ার জন্য পিতা-মাতার অজ্ঞতাই দায়ী!

সন্তানের থ্যালাসেমিয়ার জন্য পিতা-মাতার অজ্ঞতাই দায়ী!

সিএমসি, ভেলোরে আমি যে রুমে বসে রোগী দেখছি সেখানে ইন্ডিয়ার অন্যান্য রাজ্যের…

আধুনিক মায়েরা সিজার ছাড়া বাচ্চা প্রসবের চিন্তাই করেন না

আধুনিক মায়েরা সিজার ছাড়া বাচ্চা প্রসবের চিন্তাই করেন না

সমাজে কিছু মানসিকভাবে অসুস্থ ডাক্তার বিদ্বেষী মানুষ আছে। অসুখ হলে ইনিয়ে বিনিয়ে…

আনিসের প্রত্যাবর্তন 

আনিসের প্রত্যাবর্তন 

রাস্তায় একজনের মুখে সরাসরি সিগারেটের ধোঁয়া ছেড়ে দিলো আনিস। আচমকা এ আচরণে…

কনজেনিটাল হার্ট ডিজিজ: গল্পে গল্পে শিখি

কনজেনিটাল হার্ট ডিজিজ: গল্পে গল্পে শিখি

স্রষ্টার সৃষ্টি বড় অদ্ভুত, মেডিকেল সায়েন্স পড়লে এটা ভাল বুঝা যায়। মাছের…

বদ লোকের গল্প!

বদ লোকের গল্প!

উপজেলায় নতুন তখন। সবাইকে ঠিকঠাক চিনিও না। হঠাৎ একদিন আমার রুমে পেট…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস