ঢাকা      মঙ্গলবার ২১, মে ২০১৯ - ৭, জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ - হিজরী



ডা. সাইফুল ইসলাম

সহকারী রেজিষ্ট্রার (শিশু)

শিশুবিভাগ,

টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল


অটিজম: মস্তিষ্কের বুদ্ধিবৃত্তিক বিশৃঙ্খলার এক অজানা জগত

আমরা দেখতে পাই একটি অদ্ভূত জগতে মানুষের বসবাস, জীবন যাপন। অদ্ভূত বলা হচ্ছে, কারণ আমরা যা করি তার বেশির ভাগই আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে অদৃশ্য কোনো সত্তার নিপুণ কারসাজিতে ক্রমাগত ঘটে চলেছে।

আমরা যা চিন্তা করি; ভালো কী মন্দ, তার মাত্র কয়েক হাজার ভাগের এক ভাগ বাস্তবে বলি বা করে থাকি। এই চিন্তা ভাবনা চলে মনের জগতে, আমাদের আত্মা বা রূহ সেই চিন্তাকে পথ দেখায়। শেষমেশ দেহ তা কাজে পরিণত করে। তাহলে দেখা যাচ্ছে, কোন কাজ বাস্তবে পরিণত করা পর্যন্ত বেশ কয়েকটি ধাপ অতিক্রম করে। যেমন: ইনফরমেশন বা তথ্য সংগ্রহ, মেমোরি বা স্মরণশক্তির আধারে তথ্য জমা হওয়া বা মিলিয়ে নেয়া, প্রসেস করা বা বিশ্লেষণ/বিচার বুদ্ধির সাহায্য নেয়া, নতুন কর্মপদ্ধতির জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ, দৈহিক অঙ্গকে সিগনাল প্রদান করা এবং সর্বশেষ কাজটি অনুষ্ঠিত হওয়া।

এই সমস্ত প্রক্রিয়াটিকে বলা হয় কগনিটিভ পাথওয়ে (Cognitive pathway) বা বিচার বুদ্ধির পথরেখা। মানুষ ছাড়া অন্য কোন প্রাণী এই পদ্ধতিকে এতটা সুচারুভাবে ব্যবহার করে না।

সুতরাং এটি সম্পূর্ণ ভিন্ন, জটিল, বিশেষায়িত একটি কর্মসম্পাদনা পদ্ধতি, যা মানব সভ্যতাকে অনন্য মর্যাদা প্রদান করেছে।

এই ‘কগনিটিভ পাথওয়ে’ (Cognitive pathway) বা ‘বিচার বুদ্ধির পথরেখা’, যাকে সহজ বাংলায় ‘মানুষের চিন্তা-ভাবনার জগত’ বলা যায়। এর কারণেই মানুষ সৃষ্টির পরে আল্লাহ তায়ালা আদমকে শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি বিবেচনায় সমস্ত ফেরেশতা এবং জ্বিন সর্দার ইবলিশকে হুকুম করেন, আদমকে সেজদা করো।

...তো সেই সর্বোচ্চ শক্তিসম্পন্ন ‘বিচার বুদ্ধি’ কিন্তু জন্মের সাথে সাথেই কোন মানব শিশু ধারণ করে না। মস্তিষ্কের নিউরণের লক্ষ কোটি কানেকশন (সিনাপসের) মাধ্যমে কয়েক বছর ধরে পাকাপোক্ত হয় এই মূল্যবান নেটওয়ার্ক।

বিশ্বের সকল মানুষ যদি মোবাইল নেটওয়ার্কে একই সঙ্গে কাজ করতে থাকে আর Google, Facebook বা Twitter ব্যবহার করতে থাকে, তাহলেও তা একজন মানুষের মস্তিষ্কের এই Cognitive Pathway প্রতি সেকেন্ডে যে কাজ করে তার সমতূল্য কখনও হতে পারবে না। এমনই সুপার কম্পিউটার মানব মস্তিষ্ক। বিষয়টা একটু ভালো করে বোঝার জন্য নিচের ডায়াগ্রামটি লক্ষ্য করুন।


 

এই ‘কগনিটিভ পাথওয়েটা’ যে যত বেশি কার্যকরভাবে ব্যবহার করবে সে তত দ্রুত শিখবে (Learning)। কে কত বেশি Intelligent তা নির্ভর করে সে কত ভালভাবে এই সমগ্র প্রক্রিয়াটি সফলভাবে এবং কত দ্রুত ব্যবহার করে নতুন নতুন পরিকল্পনা, সিদ্ধান্ত নিতে পারে তার উপর।

এমনকি যদি সে তার সিদ্ধান্তকে মটর সিগনালে পরিণত করতে না পারে তবুও তার IQ বেশি। যেমন: স্টিফেন হকিং (যিনি দুরারোগ্য Motor Neuron Disease রোগে আক্রান্ত থাকায় হাত-পাসহ শরীরের কোনো অঙ্গ- প্রত্যঙ্গ স্বেচ্ছায় নড়তে পারেন না। কিন্তু তার Brain কাজ করছে এবং চিন্তা-ভাবনা করতে পারেন)।

মানুষের মস্তিষ্কের গাঠনিক এবং কাজের একককে বলা হয় নিউরোন (Neuron), প্রতিটি নিউরন শত শত কানেকশনের মাধ্যমে অপর অনেকগুলি নিউরনের সঙ্গে সংয্ক্তু থাকে। এই কানেকশনগুলো সিনাপ্স (Synapse) নামে পরিচিত।

প্রতিটি সিনাপ্সের মাধ্যমে যোগাযোগ স্থাপিত হয়, তখনই যখন এক প্রান্তের নিউরন হতে কিছু নিউরোট্রান্সমিটার (এক ধরনের জৈব যৌগ) নিঃসৃত হয় এবং তা সিনাপ্সের অপর প্রান্তে গিয়ে তার রিসেপ্টরের সঙ্গে মিলিত হয়।

এখন যদি কোন মানুষের মস্তিষ্কের এই নিউরোট্রান্সমিটারগুলো (যে কোন কারণেই হোক না কেন) কাজ করতে না পারে তাহলে চিন্তা করুন কি বিপর্যয় ঘটতে পারে। তখন মস্তিষ্কের একেক অঞ্চল একেকভাবে কাজ করবে। কিন্তু সকলে মিলে একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে তা বাস্তবায়ন করতে পারবে না। তার মানে সেখানে কাজের সমন্বয় ঘটবে না।

‘অটিজম’ রোগের মূল কার্যকারণ অনেকটা এমনই। অটিজম (Autism) শব্দটি এসেছে `Autos=Self’ এবং ÔIsmos=Condition’ থেকে। শাব্দিক অর্থ করলে দাড়ায় ‘অটিজম=নিজস্ব জগত’।

প্রকৃত অর্থেই অটিজমে আক্রান্ত বাচ্চাদের চিন্তার জগতটি এককেন্দ্রিক থাকে। তারা পরিবর্তন বা নতুন কিছুতে সহজে অভ্যস্থ হয় না। তারা আশপাশের জগতের সাথে মিথস্ক্রিয়া (Interaction) করতে পারে না। এমনকি অনেকে ভাষার মাধ্যমে অথবা ইঙ্গিতের মাধ্যমে (Verbal and Non-verbal) যোগাযোগ (Communication) করতেও ব্যর্থ হয়। এবং নির্দিষ্ট কিছু আচরণ, বারবার একই ধরনের খেলা/কাজ করতে পছন্দ করে।

বড় প্রশ্ন হলো কেন এমনটি হয়? দুঃখজনক হলেও সত্য এর কোন সুনির্দিষ্ট কারণ এখনও পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। বিজ্ঞানীরা দীর্ঘদিন গবেষণার পরে কয়েকটি অবস্থা চিহ্নিত করতে পেরেছেন যেগুলি ‘অটিজম’ রোগের সঙ্গে সম্পর্কিত এবং ‘ঝুকিপূর্ণ’ (Risk Factors)। যেমন:

১. সন্তান ধারণের সময় মা অথবা বাবার বয়স ৩৫ বছরের বেশি হওয়া।
২. অপরিণত শিশুর জন্ম হওয়া (গর্ভকালীন বয়স ২৬ সপ্তাহের কম)।
৩. গর্ভকালীন সময়ে মায়ের ডায়াবেটিস থাকা।
৪. গর্ভকালীন সময়ে মায়ের ‘রুবেলা’ বা ‘সাইটোমেগালো’ ভাইরাসের সংক্রমণ হওয়া।
৫. স্বল্প সময়ের ব্যবধানে মায়ের পরপর বাচ্চা জন্মদান।
৬. গর্ভকালীন সময়ে মা কর্তৃক মানসিক রোগের ঔষধ সেবন।
৭. গর্ভকালীন সময়ে মা কর্তৃক পারদ বা সীসা জাতীয় ভারি ধাতুর সংস্পর্শে আসা।

এছাড়াও বংশগতিক কারও এ ধরনের কোন রোগ থাকলে অটিজম হওয়ার ঝুঁকি থেকে যায়। বেশ কিছু ‘জিনগত (Genetic)’ কারণও চিহ্নিত করা হয়েছে, যা অটিজমের সাথে সম্পর্কযুক্ত। যেমন:

১. Trisomy 21.
২. Chromosomal deletion syndrome (15q11.2BP1-BP2, Proximal 16p 11.2, 15q 13.3, NRXN1, 22q 13, 16p 13.11)
৩. Chromosomal duplication syndrome (Proximal 16p 11.2, 16 P 13.1, 22q 11.2)

শেষ কথা হলো, অটিজম রোগটি যদিও আরোগ্যযোগ্য নয়, তথাপি দ্রুত এবং অল্প বয়সে (৩ বছরের আগে) রোগ নির্ণয় করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করলে অনেকটাই শিশুকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা সম্ভব। অদূর ভবিষ্যতে এ রোগের ব্যাপারে আমরা আরও জানতে পারবো এবং উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারবো বলে আশাবাদ ব্যক্ত করছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

ডা. মুরাদ স্বাস্থ্য থেকে তথ্য মন্ত্রণালয়ে 

ডা. মুরাদ স্বাস্থ্য থেকে তথ্য মন্ত্রণালয়ে 

মেডিভয়েস রিপোর্ট: মন্ত্রিপরিষদ পুনর্বিন্যাস করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। রোববার বিকালে…

`দশ হাজার চিকিৎসক নিয়োগে অনুমোদন দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী'

`দশ হাজার চিকিৎসক নিয়োগে অনুমোদন দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী'

প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেশের বিভিন্ন খাতের সঙ্গে সঙ্গে…

চিকিৎসক ও নার্সদের আর কোনো তদবির গ্রাহ্য হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

চিকিৎসক ও নার্সদের আর কোনো তদবির গ্রাহ্য হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মেডিভয়েস রিপোর্ট: স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ঢাকার বাইরে…

ছাত্রীকে যৌন হয়রানির প্রতিবাদে উত্তাল মমেক ক্যাম্পাস

ছাত্রীকে যৌন হয়রানির প্রতিবাদে উত্তাল মমেক ক্যাম্পাস

মেডিভয়েস রিপোর্ট: ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের (মমেক) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রীকে রিকশাচালকের যৌন হয়রানির…

চিকিৎসক নার্সদের কর্মস্থলে উপস্থিতি নিশ্চিতে মনিটরিং সেল

চিকিৎসক নার্সদের কর্মস্থলে উপস্থিতি নিশ্চিতে মনিটরিং সেল

মেডিভয়েস রিপোর্ট: স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলোতে চিকিৎসক ও নার্সসহ সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়মিত কর্মস্থলে উপস্থিতি…

১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকায় নির্মাণ হচ্ছে নতুন শিশু হাসপাতাল

১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকায় নির্মাণ হচ্ছে নতুন শিশু হাসপাতাল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট: সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী, ঢাকা শহরে এক হাজার শয্যা বিশিষ্ট একটি…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর