ঢাকা      মঙ্গলবার ২৩, এপ্রিল ২০১৯ - ৯, বৈশাখ, ১৪২৬ - হিজরী



ডা. শরীফ উদ্দিন

রেসিডেন্ট, বিএসএমএমইউ

 

 


একটি সুন্দর-বৈষম্যহীন বাংলাদেশের পক্ষে দাঁড়ান

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসকদের উপর রোগীর স্বজনদের বর্বরোচিত হামলার ঘটনায় সারাদেশের মেডিকেল কলেজগুলোতে কর্মবিরতিসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছেন চিকিৎসকরা।

এসব কর্মসূচিতে হামলায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির পাশাপাশি চিকিৎসকদের জন্য নিরাপদ কর্মস্থলেরও দাবি জানিয়েছেন তারা।

ঐতিহ্য বজায় রেখেই সেই কর্মসূচিগুলো নির্বিষ। এই যেমন: কালোব্যাজ ধারণ করা, ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়া, শুকনামুখে রাস্তায় দাঁড়িয়ে মানববন্ধন নামক একটা অদ্ভূত কর্মসূচি পালন। আরেক গ্রুপ আবার সোশ্যাল মিডিয়ায় এসব কর্মসূচিকে ‘হাইস্যকর’ অভিহিত করে ট্রল করছেন। তারা এ রকম মোলায়েম কর্মসূচিতে সন্তুষ্ঠ নন। হামলার প্রতিবাদে আগুন কর্মসূচি, হাসপাতাল ধর্মঘট চান তারা।

বর্তমান পৃথিবীতে তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে চিকিৎসকরা নানা ধরণের সমস্যার শিকার। এসব দেশে জনগণ শক্তের ভক্ত, নরমের যম। আর সরকারসমূহ চরম পর্যায়ের দুর্নীতিগ্রস্ত, নিপীড়নে ওস্তাদ। তাই প্রাচ্যের উগান্ডায় আপনি চাইলেই চিকিৎসকরা ন্যায্য অধিকার পাবেন না, চিকিৎসকদের কর্মস্থল নিরাপদ থাকবে না।

একজন পুলিশ কর্মকর্তা আর একজন স্বাস্থ্য কর্মকর্তার গুরুত্ব এসব দেশের সরকারগুলোর কাছে কখনোই এক হবে না।

আলাদা করে আপনি আপনার সম্প্রদায়ের পক্ষে সোচ্চার হতে চাচ্ছেন ভালো কথা। কিন্তু কেনো আশা করছেন, অন্যরাও আপনার পক্ষে দাঁড়িয়ে আপনার অধিকারের কথা বলুক?

তার চেয়ে আপনি একটা স্বচ্ছ বাংলাদেশ, একটা স্বচ্ছ বিচার ব্যবস্থা কেনো চাইছেন না? আপনি কেনো এটা বুঝেন না, বিচার ব্যবস্থায় দলীয়করণ, প্রশাসনে দলীয়করণ-সম্প্রদায়করণ না হলে আপনাকে রাস্তায় দাঁড়াতে হতো না?

রাষ্ট্র, প্রশাসন ও বিচার বিভাগ যখন নিজেই নিপীড়নব্যবস্থার অংশ হয়ে যায়, তখন আলাদা করে আপনার বা আপনার সম্প্রদায়ের জন্য সুবিচার প্রত্যাশা আসলে আকাশ কুষুম কল্পনা। তাছাড়া আপনি নিজেওতো আপনার সম্প্রদায়ের পক্ষে অঙ্গীকারাবদ্ধ নন।

একজন প্রশাসন ক্যাডারের নিয়মিত পদোন্নতি দেখে আপনি স্বাস্থ্য ক্যাডারের বৈষম্য নিয়ে ফেসবুক গরম করছেন। অথচ আপনি জানেন, শুধু ভিন্ন মতাবলম্বী হওয়ায় অনেক চিকিৎসকের পদোন্নতি হয় না, অনেক চিকিৎসক বিসিএস চাকরির ভেরিফিকেশনে আটকে যান, অনেক ডাক্তার জীবনেও তার পছন্দসই জায়গায় পদায়িত হন না।

একজন চিকিৎসক হয়ে আপনি বাইরের কারো কাছে অপদস্ত হলে ক্ষুব্ধ হন। অথচ বাংলাদেশের মেডিকেল কলেজগুলোতে প্রতিনিয়ত ক্ষমতাসীন সংগঠনের ছাত্র ও চিকিৎসকদের হাতে অন্যদের অপদস্ত হওয়া, শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হওয়ার চর্চা বহুদিনের পুরনো।

এগুলো আপনাকে ক্ষুব্ধ করে কখনো? এগুলো নিয়ে আপনি সোচ্ছার হওয়ার তাগিদ অনুভব করেন? এমনটি যদি না হয় এবং এসব বিষয়ে চুপ বা নির্লিপ্ত থাকার নানা ধরনের যুক্তি খুঁজে পান; তাহলে বলি, আপনাদের সমস্যাগুলোও কোনোদিন দূর হবে না।

আপনার পেশাদারিত্বের মধ্যে আপনি নিপীড়িতের পক্ষে নন, ক্ষমতাকেন্দ্রের সঙ্গে মাথা নোয়ানোয় আগ্রহী। তাহলে অন্য ক্ষমতাবান পেশাদার লোকেরা কেনো আপনার পক্ষে দাঁড়াবে? কেনো আপনার সমস্যাগুলো মোচনে এগিয়ে আসবে?

তাই বলি, একটা সুন্দর, মানবিক ও বৈষম্যহীন বাংলাদেশের পক্ষে দাঁড়ান। দেখবেন, সেই বাংলাদেশে আপনার সমস্যালোর অনেকগুলোই থাকবে না। আপনার যৌক্তিক এবং ন্যায্য কথাগুলো অন্যরা শুনবে। সম্মান প্রদর্শন করবে আপনার সার্বজনীন ও শাশ্বত দাবিগুলোর প্রতি। নইলে তৃতীয় বিশ্বের একজন চিকিৎসক হিসেবে ‘ভুল পেশায়’ আসার, ‘ভুল মানুষদের’ সেবা করার হীনমন্যতা নিয়েই কাটবে আপনার সারাটি জীবন।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


পাঠক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

পেপটিক আলসারের ওষুধ আমাদের দেশের মানুষ অনেক বেশি গ্রহণ করে।অনেকেই গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ…

বিজিএমইএ ভবন না ভেঙে সরকারি শিশু হাসপাতাল করে দিন

বিজিএমইএ ভবন না ভেঙে সরকারি শিশু হাসপাতাল করে দিন

ভবনের সামনে একটা দৃশ্যমান বড় বিলবোর্ডে ভবনের ইতিহাস লেখা থাকবে। লেখা থাকবে…

চিকিৎসকদের জন্য বেকারত্ব এক অভিশাপ

চিকিৎসকদের জন্য বেকারত্ব এক অভিশাপ

দেশে যে হারে সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে, সেগুলো…

২০০ টাকার ওষুধ যে যেভাবে ১২০০ টাকা হয়!

২০০ টাকার ওষুধ যে যেভাবে ১২০০ টাকা হয়!

আন্তর্জাতিক বাজারে যখন কোন ওষুধ আসবে বা কোন দামী এন্টিবায়োটিক কোম্পানী বাজারে…

রোজায় জীবনযাত্রা ও খাবারের পরিবর্তন

রোজায় জীবনযাত্রা ও খাবারের পরিবর্তন

রোজা রাখতে ডায়াবেটিক রোগীদের সাধারণত কোনো নিষেধ নাই। তারা রোজা রাখলে খুব…

সূর্যোদয়ের দেশে

সূর্যোদয়ের দেশে

ছোটবেলায় যখন পড়েছিলাম জাপানকে বলা হয় সূর্যোদয়ের দেশ, তখন থেকেই একটি ইচ্ছা…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর