ঢাকা      মঙ্গলবার ১৮, জুন ২০১৯ - ৪, আষাঢ়, ১৪২৬ - হিজরী

সার্জারিতে উচ্চশিক্ষা নিতে চান বডিবিল্ডার ডা. দেবাশীষ

ডা. দেবাশীষ রায়। একজন চিকিৎসক ও একজন সফল বডিবিল্ডার। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ থেকে MBBS পাস করেন তিনি। ডা. দেবাশীষ ২০১৩ সালে Bangladesh Olympic Game Bodybuilding এ চতুর্থ এবং Mr. Marcel Bodybuilding Bangladesh ২০১৭ এ ষষ্ঠ স্থান অধিকার করেন। এ বছর চ্যাম্পিয়ন হয়ে আগামীতে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করা ইচ্ছা তাঁর। সম্প্রতি মেডিভয়েস মুখোমুখি হয়েছিল এ চিকিৎসকের। আলাপচারিতায় উঠে এসেছে তাঁর জীবনের বিভিন্ন দিক। পাঠকদের কাছে তা তুলে ধরা হলো। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আহসান হাবিব।

মেডিভয়েস: মেনস ফিসাইক চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন, আপনার অনুভূতি কী?

ডা. দেবাশীষ রায়: খুবই ভালো। বিশেষ করে এ ধরনের আন্তর্জাতিকমানের প্রতিযোগিতা বাংলাদেশে এবারই প্রথম এবং এখানে সর্বোচ্চ ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়ন সত্যিই গর্বের। আসলে আমি যে চ্যাম্পিয়ন হবো এটা স্বপ্নেও ভাবিনি, জিম করি তাই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করি। এর আগে ২০১৩ সালে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত Bangladesh Olympic Game Bodybuilding এ চতুর্থ এবং Mr. Marcel Bodybuilding Bangladesh ২০১৭ এ ষষ্ঠ স্থান অধিকার করি। তাই এবার চ্যাম্পিয়ন হয়ে মনে হচ্ছে পরিশ্রমটা সার্থক হয়েছে। 

মেডিভয়েস: কখন থেকে এ স্বপ্নের শুরু, আগামী দিনের স্বপ্ন কী? 

ডা. দেবাশীষ রায়: ব্যায়াম শুরু করি ২০০৬ সাল থেকে যখন রাজশাহী সিটি কলেজে এইচএসসিতে ভর্তি হই। সত্যি বলতে এরকম বডিবিল্ডিং প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করব ভাবতাম না। জিমের Instructor এবং বড় ভাই এবং বন্ধুবান্ধবের অনুপ্রেরনায় প্রথমবারের মতো রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত বডিবিল্ডিং শো ২০১১ সালে অংশগ্রহণ করে দ্বিতীয় স্থান লাভ করি। তবে এ বছর চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় আমার আগামীর ইচ্ছা আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করা। 

মেডিভয়েস: BBFB বলতে কী বোঝায়, এর কাজ কী?

ডা. দেবাশীষ রায়: Bangladesh Association of Bodybuilding Federation. এই প্রতিষ্ঠান জাতীয় পর্যায়ে বডিবিল্ডিং প্রতিযোগিতা আয়োজন, নির্দেশনা প্রদান এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনুষ্ঠিত প্রদর্শনীতে বাংলাদেশ থেকে প্রতিনিধি নির্বাচন, প্রেরণসহ সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করে। 

মেডিভয়েস: যারা আপনার মতো হতে চায় তাদের প্রতি আপনার পরামর্শ কী?

ডা. দেবাশীষ রায়: আসলে ব্যাপারটা এরকম নয়। আমাদের প্রকৃত ঊদ্দেশ্যে হওয়া উচিৎ শরীর সুস্থ রাখা। কিন্ত সত্যিই কেউ যদি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে চায় তাহলে নিয়মিত খাদ্যাভাসের পাশাপাশি ভালো একটা জিমে নিয়মিত ব্যায়াম করা উচিত। তবে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন মানসিক শক্তি ও দৃঢ়তা। কারন বডিবিল্ডিং ব্যাপারটা খুবই পরিশ্রমের এবং কষ্টের। তাই অনেকেই জিমে ভর্তি হয়ে মাঝপথে ব্যায়াম ছেড়ে দেয়, এতে লাভের থেকে ক্ষতিই বেশি হয়। 

মেডিভয়েস: চিকিৎসা পেশাকে কিভাবে দেখেন? বডিবিল্ডিং নাকি চিকিৎসা সেবা, কোনটাকে বেশি গুরুত্ব দেন?

ডা. দেবাশীষ রায়: প্রথমত আমি একজন চিকিৎসক তারপর বডিবিল্ডার। সাধারণত আমার পেশাগত কাজ শেষে অবসর সময়ে জিমে যাই। সুতরাং বুঝতেই পারছেন চিকিৎসাই বেশি গুরুত্বের।

মেডিভয়েস: আপনি একজন ডাক্তার, দেশের স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে আপনার মন্তব্য কী?

ডা. দেবাশীষ রায়: আপনি হয়তো জেনে থাকবেন বাংলাদেশ স্বাস্থ্য সূচকে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, পাকিস্তানের চেয়ে অনেক এগিয়ে। আমি মনে করি বাংলাদেশের চিকিৎসকরা তাদের সব্বোর্চ মেধা, শ্রম, ধৈর্য ও ভালবাসা দিয়ে এদেশের মানুষের সেবা করে যাচ্ছে, তা স্বত্ত্বেও আমরা চিকিৎসকরা কর্মস্থলে নিরাপত্তা নিয়ে এখনও অনিশ্চিত। প্রশাসন এ ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করলে এদেশের মানুষের স্বাস্থ্যসেবার মান আরও উন্নত হবে। 

মেডিভয়েস: সিনিয়র ডাক্তারদের প্রতি আপনার চাওয়া কী?

ডা. দেবাশীষ রায়: জীবনের প্রতিটি ধাপে সিনিয়রদের আন্তরিক সহযোগীতা কামনা করি। মেডিকেল কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় সিনিয়ররা পাশে ছিলেন, তাদের দিকনির্দেশনায় আমি আজ এ পর্যায়ে আসতে সক্ষম হয়েছি। 

মেডিভয়েস: আপনার সম্পর্কে জানতে চাই।

ডা. দেবাশীষ রায়: আমার জন্ম হিমালয় কন্যা খ্যাত সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ থানার কালীগঞ্জ গ্রামে। বর্তমানে পরিবারে মা ও ছোটভাই আছে, বাবা মারা গেছেন ছোটবেলায়। SSC পর্যন্ত দাদুর বাড়িতেই থাকি। পরবর্তিতে রাজশাহী সিটি কলেজ থেকে HSC এবং রাজশাহী মেডিকেল থেকে MBBS পাশ করি। ভবিষ্যতে সার্জারিতে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করার ইচ্ছা আছে। আমি সকলের আর্শীবাদপ্রার্থী।

মেডিভয়েস: মেডিভয়েস সম্পর্কে কিছু বলুন।

ডা. দেবাশীষ রায়: মেডিভয়েস ডাক্তার সমাজের স্বার্থরক্ষা, নতুন নতুন তথ্য-উপাত্ত সরবরাহ, সর্বোপরি মেডিকেল সেক্টরের অন্যতম জনপ্রিয় সংবাদপত্র। ২০১৩ সাল হতে মেডিভয়েস চিকিৎসক সমাজের অন্যতম মুখপাত্র হিসেবে নিরলস পরিশ্রম করছে। আমি মেডিভয়েস এর উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করি। ধন্যবাদ।

(সাক্ষাৎকারটি মেডিভয়েসের জানুয়ারি ২০১৯ প্রিন্ট সংখ্যায় প্রকাশিত)

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর