অধ্যাপক ডা. মো. মনির হোসেন

অধ্যাপক ডা. মো. মনির হোসেন

শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ

ঢাকা শিশু হাসপাতাল


২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০১:৫২ পিএম

সিএ স্টমাক ও সারার দ্বিতীয় জীবন!

সিএ স্টমাক ও সারার দ্বিতীয় জীবন!

স্যার আমি কি মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছি?
না তুমি মরে যাচ্ছ না।
স্যার আমি অনেকদিন বাঁচতে চাই!
অবশ্যই তুমি অনেকদিন বাঁচবে!
স্যার, সবাই যে বলে সিএ স্টমাক হলে কেউ বাঁচে না!
ওরা না জেনে বলেন।
স্যার আপনি যে এত চেষ্টা করছেন, মনে হয় কোন লাভ হবে না!

সারার সঙ্গে এটা আমার প্রতিদিন সকাল-বিকেলের টেলিফোনের কথোপকথন!

সারা ইউনিভার্সিটিতে পড়া অবস্থায় আমাদের সঙ্গে খণ্ডকালীন প্রেস এবং পাবলিকেশনের কাজ করতো। এর মাধ্যমে সে তার ইউনিভার্সিটির পড়াশুনার খরচ চালাতো!

সারার পাকস্থলিতে ক্যান্সার ধরা পড়লো। প্রথম প্রথম কেউই বিশ্বাস করতে পারছিল না। রাজধানীর অ্যাপোলো, স্কয়ার ও আনোয়ারা হাসপাতালে তিনবার হিস্টোপ্যাথলজি। তিনবারই একই ফল-‘সিএ স্টমাক’।

রোগের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার পর ওর বাবা, মা, ভাই এবং সে নিজে পুরোপুরি ভেঙে পড়লো। যখন শুনলো, বাংলাদেশেই সর্বনিম্ন চিকিৎসা ব্যয় সার্জারি, কেমথেরাপি আর বিভিন্ন পরিক্ষা-নীরিক্ষাসহ প্রায় ২০ লক্ষ টাকা লাগবে। তাও আবার এই চিকিৎসায় ক্যান্সার ভালো হওয়ার সম্ভাবনা মাত্র ২০-৫০ ভাগ।

ওর বাবা-মার সঙ্গে কথা বলে বুঝলাম, ওদের কাছে চিকিৎসার খরচ দেয়ার জন্য খুবই সামান্য টাকা আছে।

এই তহবিল থেকে এর আগে চিকিৎসার জন্য ৫ হাজার, ২৫ হাজার বা সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এ রকম রোগীর চিকিৎসায় টাকার পরিমাণটাতো একেবারেই কম!
 
এ জাতীয় রোগের চিকিৎসা এ রকম স্বল্প আয়ের পরিবারের জন্য যোগাড় করা একেবারেই কষ্টসাধ্য! তারপর ও আল্লাহর রহমতে জোগাড় হয়ে গেল!

সার্জারি হলো, ‘পুরো পাকস্থলি কেটে ফেলার’। অনেক কষ্টের ৬টা কেমথেরাপি শেষ হলো!

এরপর চিকিৎসার অংশ হিসেবে আরেফীন স্যার সারার অ্যানডসকপি করলেন। স্কয়ার হাসপাতালে তার স্টমাকের হিস্টোপ্যাথলজি হলো। আশ্চর্যজনকভাবে ক্যানসারের কোনো আলমত পাওয়া যায়নি। পেটস স্ক্যানের রিপোর্টেও তার শরীরের কোথাও ক্যানসারের সেলের উপস্থিতি মেলেনি।

আল্লাহ অশেষ দয়ায়, অসম্ভব জয় করার পর সারা আবারও সপ্ন দেখতে শুরু করেছে! পড়া লেখা করে বড় হওয়ার স্বপ্ন! উন্নতজীবনের স্বপ্ন। বিশেষ করে অসুস্থ হওয়ায় ভবিষ্যত অন্ধকার মনে করে, যে অনিক তাকে ছেড়ে চলে গিয়েছে, তার সমকক্ষ হয়ে উঠার সপ্ন! তার ধারণা, একদিন এই অনিক এসে তার ভুলের জন্য অনুশোচনা করবে!

বড় হওয়ার চেষ্টা ছাড়া সারা এখন আর কিছুই ভাবতে চায় না। তাকে অনেক অনেক দূর যেতে হবে! এমনিতেই অনেক দেরি হয়ে গেছে!

সব শেষে সারার ক্যানসার জয়ে ভূমিকা রাখা ক্যান্সার সার্জারি বিশেষজ্ঞ প্রফেসর আনোয়ারের কাছে শুধু কৃতজ্ঞ বললে অনেক অনেক কম বলা হবে।

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না