২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১১:২৪ এএম

নাটোরে চিকিৎসকের নামে মামলার হুমকি ওসির

নাটোরে চিকিৎসকের নামে মামলার হুমকি ওসির

মেডিভয়েস রিপোর্ট: তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নাটোর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন নাটোরের বাগাতিপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম।

জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬.১১টায় হাসপাতালের সহকারী সার্জন চিকিৎসক আবদুল্লাহ মোহাম্মদের নাম্বারে ফোন করেন বাগাতিপাড়া থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম। তিনি একটি রেইপ/অ্যাটেম্পট টু রেইপের রোগী সম্পর্কে জানতে চান। তখন ডা. আব্দুল্লাহ বলেন, ডিউটিতে না থাকায় ওই রোগীর ব্যাপারে কিছু জানেন না তিনি। এ সময় হাসপাতালের অফিসিয়াল নাম্বারে ফোন করে রোগীর ব্যাপারে জানতে বলেন ডা. আব্দুল্লাহ। এতেই ওসি উত্তেজিত হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দেন তিনি।

এ ব্যাপারে ডা. আবদুল্লাহ মোহাম্মদ মেডিভয়েসকে বলেন, ‘আমি হাসপাতালে না থাকায় রেইপের রোগী সম্পর্কে আমার জানা ছিল না। পরে শুনেছি, হাসপাতালে রেইপ কেইসের একজন রোগী এসেছেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছেন। উপজেলা হাসপাতালে রেইপ কেইসের পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থা না থাকায় পরে তাকে জেলা হাসপাতালে রেফার্ড করেন। এই ঘটনার ব্যাপারে আমি কিছুই জানতাম না। রোগীর বিষয়ে কোনো তথ্য দিতে না পারায়, তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন এবং আমাকে মামলায় ডুকিয়ে দেয়ার হুমকি করেন।’

তিনি বলেন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একজন কর্মকর্তা হয়ে তিনি কিভাবে একজন চিকিৎসকের সঙ্গে এমন দুর্ব্যবহার করতে পারেন? অযথা মামলার হুমকি দিতে পারেন? 

এ ব্যাপারে তিনি পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বরাবর পিটিশন দেবেন জানিয়ে ডা. আবদুল্লাহ বলেন, তার কাছে অডিও রেকর্ড আছে, এটা তিনি সেখানে উপস্থাপন করবেন।

ডা. আবদুল্লাহর সঙ্গে একই সময়ে বিসিএস ক্যাডার হিসেবে চাকরিতে যোগ দেওয়া তার এক সহকর্মী ডা. নাজিরুম মুবিন বলেন, ‘আমি অডিওটা শুনেছি, পুরো কথোপকথনে ওসির অভিব্যক্তি ছিলো ঔদ্ধত্যপূর্ণ, অশোভনীয় এবং ভদ্রতাবিবর্জিত। দাগী অপরাধীর সঙ্গেও এ ভাষায় কোন পুলিশ সদস্য কথা বলতে পারেন না’। 

তিনি আরও বলেন, বিসিএস স্বাস্থ্য ক্যাডার কর্মকর্তারা প্রজাতন্ত্রের প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তা। অন্যদিকে, নন ক্যাডার কর্মকর্তা ওসি, ২য় শ্রেণি থেকে ক্রমান্বয়ে পদোন্নতি পেয়ে ১ম শ্রেণিতে উন্নীত হন। তাই একজন ওসির পক্ষ থেকে এমন আচরণ সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ১৯৮৫-এর সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। আপাতদৃষ্টিতে এটি ছোট মনে হলেও প্রায় প্রতিদিনই সারাদেশে এরকম ঘটনা ঘটছে। তাই এইসবের সুষ্ঠু তদন্ত এবং দোষীদের শাস্তির আওতায় আনা একান্ত জরুরি।

এ ব্যাপারে বাগাতিপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলামকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

►অডিও ক্লিপ

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি