ডা. নাজমুল ইসলাম

ডা. নাজমুল ইসলাম

অনারারি মেডিকেল অফিসার

শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ, বগুড়া।


১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০৯:০০ পিএম

চিকিৎসকদের মর্যাদায় গণমাধ্যমে রিফাতের যত উদ্যোগ

চিকিৎসকদের মর্যাদায় গণমাধ্যমে রিফাতের যত উদ্যোগ

সোশ্যাল, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় ‘ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু’-সংক্রান্ত খবরে জনসাধারণের মধ্যে ক্ষোভ-বিক্ষোভের বিষয়টি সর্বজনবিদিত। এক্ষেত্রে চিকিৎসকের সযত্ম সেবা ও শত সতর্কতার বিষয়টি কেউ আমলে নিতে চায় না। খবরের আড়ালে না গিয়ে এক তরফাভাবে চিকিৎসককে দোষারূপ করাই যেন তখন সকলের কাছে অধিকতর যৌক্তিক বলে মনে হয়।

এ বিষয়ে শুধুমাত্র মেডিকেলভিত্তিক গ্রুপগুলোতে চিকিৎসকদের আত্মপক্ষ সমর্থনের ব্যাপারটি মেডিকেলে প্রথম বর্ষে পড়ার সময় থেকে আমাকে ভাবাতো। চিন্তা করতাম, চিকিৎসা প্রদান-সংক্রান্ত এই ব্যাপারগুলো সাধারণের কাছে ঠিকভাবে যেমন পৌঁছানো যাচ্ছে না, তেমনি প্রচার হচ্ছে না এখাতের গুণগত মানোন্নয়নে চিকিৎসকদের বিভিন্ন উদ্যোগ কিংবা সাফল্যের কথাও। তখন থেকেই ভাবনা আসে, চিকিৎসকদের নিয়ে সাধারণ মানুষের মনে ইতিবাচক মনোভাব তৈরিতে মেইনস্ট্রিম মিডিয়ায় কাজ করার।

চিকিৎসকদের অবমূল্যায়ন দূর করতে এভাবেই নিজের ভাবনার কথা বলছিলেন রিফাত বিন রহমান নাঈম।

রিফাত বিএএফ শাহীন স্কুল থেকে এসএসসি এবং নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি সম্পন্ন করে ডেল্টা মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস কোর্সে ভতি ভর্তি হন। বর্তমানে পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থী। রিফাতের মিডিয়ায় হাতেখড়ি হয় সংবাদ উপস্থাপনার মধ্যে দিয়ে। পরবর্তীতে এবিসি রেডিও ৮৯.২ এফ এমে প্রোগ্রাম ম্যানেজমেন্ট টিম মেম্বার এবং ঢাকা এফ এম ৯০.৪ এ আউটডোর ব্রডকাস্টিং টিম মেম্বার হিসেবে কাজ করেন। এখন  কালারস এফ এম ১০১.৬ এ একজন প্রোগ্রাম হোস্ট হিসেবে যুক্ত আছেন। কালারস এফ এম এ প্রচলিত ‘স্বাস্থ্যকথা’ সংক্রান্ত প্রোগ্রাম ধারণার বাইরে গিয়ে রিফাত এ দেশে প্রথমবারের মতো একটি নতুন ধরনের প্রোগ্রাম সংযোজন করেন। এর নাম ‘হোয়াটস আপ ডক’। হেলথ সেক্টর, ক্যারিয়ার কাউন্সেলিং, রিসার্চ, হেলথ ফাউন্ডেশন ও মেডিকেল লাইফ সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয় ‘হোয়াটস আপ ডক’ এ। চিকিৎসা অঙ্গনে বিভিন্ন ক্ষেত্রের গুণী ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ করা হয় এতে। মেডিকেল কমিউনিটিতে এরই মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলে দেওয়া এই অনুষ্ঠানটি ৪০ পর্ব সম্পন্ন করেছে।

এখানেই শেষ নয়। দেশের প্রথম মেডিকেলভিত্তিক অনলাইন টেলিভিশন চ্যানেল ‘রাজ টিভির’ হেড অব মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশন পদে তিনি নিযুক্ত হয়েছেন সাম্প্রতিক সময়ে। অদূর ভবিষ্যতে স্যাটেলাইট চ্যানেল হিসেবে চিকিৎসকদের শক্তিশালী প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করার লক্ষ্যে এগিয়ে চলছে রাজ টিভি। পাশাপাশি রিফাত বিভিন্ন বাংলা ও ইংরেজি জাতীয় দৈনিকে ফিচার রাইটার হিসেবে কাজ করছেন। লেখনীতে তুলে ধরছেন চিকিৎসকদের বিভিন্ন উদ্যোগ, ইভেন্ট এবং সাফল্য। বর্তমানে দৈনিক সমকাল, ইত্তেফাক, ভোরের পাতা, ডেইলি অবজারভার ও ডেইলি ইন্ডাস্ট্রিতে নিয়মিত লিখছেন এ মেডিকেল শিক্ষার্থী।

সংবাদপত্রে লেখালেখির পাশাপাশি সাহিত্য রচনায়ও রিফাতের রয়েছে সদর্প পদচারণা। এবারের অমর একুশে বইমেলায় ৫৩ জন চিকিৎসক, মেডিকেল শিক্ষার্থীর লেখা নিয়ে প্রকাশিত ‘গল্পটা চিকিৎসকের’ বইয়ে সহকারী সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছেন রিফাত। এবারের বইমেলায় আলাদা সংকলনে তার নিজেরও তিনটি গল্প প্রকাশিত হয়েছে।

কাজের স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন ‘আওয়ার ক্যানভাস পাবলিকেশন্স’ এর পক্ষ থেকে ‘লেখক সম্মাননা ২০১৯’।

ভবিষ্যতে চিকিৎসা পেশার পাশাপাশি হলুদ সাংবাদিকতার অসারতা পরিহার করে চিকিৎসক ও সাধারণ জনগণের মেলবন্ধনে মিডিয়ায় কাজ করে যেতে চান রিফাত।

তার পথচলায় মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ডা. সাকলায়েন রাসেল ও ডা. বাসুদেব সাহার অনুপ্রেরণার কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন তিনি।

মেডিভয়েসকে বিশেষ সাক্ষাৎকারে পরিচালক

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শতাধিক করোনা বেড ফাঁকা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত