ঢাকা      শুক্রবার ১৯, জুলাই ২০১৯ - ৩, শ্রাবণ, ১৪২৬ - হিজরী

ক্যানসার পুরোপুরি নিরাময় হবে!

মেডিভয়েস ডেস্ক: চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় ক্যান্সার অনিয়ন্ত্রিত কোষ বিভাজন সংক্রান্ত রোগসমূহের সমষ্টি। পৃথিবীতে এখনও পর্যন্ত এই রোগে মৃত্যুর হার আশঙ্কাজনক।  সম্প্রতি বিশ্বজুড়ে ব্যাপক হারে ক্যানসারে মানুষের আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশিত হয়েছে। যা প্রতিরোধ করা বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের জন্য। এমন অবস্থার মধ্যেই আশার খবর শোনালেন ইসরায়েলের বিজ্ঞানীরা।  

দেশটির একটি বায়োটেক কোম্পানি জানিয়েছে, ২০২০ সালের মধ্যেই ক্যানসার রোগের পুরোপুরি নিরাময়ের উপায় বের করতে পারবেন তারা।

টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, বর্তমানে বাজারে ক্যানসার রোগের কিছু ওষুধ পাওয়া যাচ্ছে। তবে কোনো ওষুধ বা নিরাময় পদ্ধতিই শতভাগ সাফল্যের কথা বলে না। অর্থাৎ এসব পদ্ধতিতে ক্যানসার পুরোপুরি নিরাময়ের নিশ্চয়তা দিতে পারে না। কিন্তু ইসরায়েলের এই বায়োটেক কোম্পানি বলছে, তাদের উদ্ভাবিত পদ্ধতিতে ক্যানসার রোগ পুরোপুরি নিরাময় সম্ভব হবে।

২০০০ সালে প্রতিষ্ঠিত ইসরায়েলের এই বায়োটেক কোম্পানির নাম একসিলারেটেড ইভোলিউশন বায়োটেকনোলজিস লিমিটেড (এইবিআই)।  সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে এর চেয়ারম্যান দাবি করেছেন, ক্যানসারের শতভাগ নিরাময়ের নিশ্চয়তা দেবে এমন পদ্ধতি উদ্ভাবন করছেন তারা।

তবে ক্যানসার আক্রান্ত হওয়ার পর পরই এই পদ্ধতিতে চিকিৎসা দেওয়া শুরু করতে হবে বলে জানান তিনি।  বলেন, কয়েক সপ্তাহ ধরে এই পদ্ধতিতে চিকিৎসা দেওয়া হলে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পাওয়া যাবে।  এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও হবে অত্যন্ত কম। 

এইবিআই বলছে, তাদের উদ্ভাবিত নতুন পদ্ধতির নাম হবে মুটাটো, যা মূলত ‘মাল্টি-টার্গেট টক্সিন’-এর সংক্ষিপ্ত রূপ।

এইবিআই’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইলান মোরাড জানান, ক্যানসার নিরাময়ের অন্যান্য ওষুধ ও পদ্ধতি কেন পুরোপুরি সফল হচ্ছে না, তা নিয়ে তারা গবেষণা করেছেন।  এজন্য আরও কি পদক্ষেপ নেওয়া যায়, সেটি উদ্ভাবন করতে গিয়েই নতুন পদ্ধতির আবিষ্কার হয়। প্রচলিত বেশির ভাগ ওষুধ ক্যানসার আক্রান্ত কোষের একটি নির্দিষ্ট অংশে আক্রমণ চালাতে সক্ষম। কিন্তু নতুন পদ্ধতিতে ক্যানসার আক্রান্ত কোষকে একই সময়ে তিনটি ভিন্ন ভিন্ন দিক থেকে আক্রমণ করবে।

ইলান মোরাড বলেন, এরই মধ্যে ইঁদুরের ওপর নতুন পদ্ধতি পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হয়েছে। কোম্পানিটির দাবি, পরীক্ষায় সফল হয়েছেন তারা। এবার এই পদ্ধতির জন্য উপযুক্ত ওষুধ তৈরির প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। আগামী বছরেই নতুন ওষুধ বাজারে আনার পরিকল্পনা আছে তাদের।
 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর