ঢাকা      বৃহস্পতিবার ১৮, জুলাই ২০১৯ - ২, শ্রাবণ, ১৪২৬ - হিজরী

চক্ষু সেবায় আর পিছিয়ে নেই বাংলাদেশ

ইস্পাহানী ইসলামিয়া আই ইনস্টিটিউট এন্ড হসপিটালে অত্যাধুনিক সেবা


 

মানুষের পঞ্চেন্দ্রিয়ের মধ্যে চোখ অন্যতম। দেহের যতেœর পাশাপাশি চোখের যতেœর একান্ত প্রয়োজন থাকলেও সে কথা আমরা অনেকেই মনে রাখি না। চোখ মানব দেহের খুবই প্রয়োজনীয় একটি অঙ্গ, যেটি অত্যন্ত সেনসিটিভ বা সংবেদনশীল। এটি পানি ভর্তি খুব নরম একটি বলের মতো এবং এর সামনে একটি পাতলা আবরণ থাকে। সামান্য এই জিনিসটি দিয়ে সমস্ত পৃথিবীকে আমরা দেখতে পাই। চোখ যেমন অতি সহজে আমাদেরকে পৃথিবীর সবকিছু দেখাতে পারে এবং সমস্ত কাজে সহায়তা করে তেমনি এটি অতি সহজে ক্ষতিগ্রস্থও হতে পারে। সুতরাং চোখ যাতে ক্ষতিগ্রস্থ না হয় সেজন্য সাধারণ কিছু যতœ নেয়া একান্ত প্রয়োজন। 
চোখের বিভিন্ন জটিলতার সমাধানের জন্য সরকারি ও বেসরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় গড়ে উঠেছে অসংখ্য হাসপাতাল ও ক্লিনিক। ‘মেডি ভয়েস’ আজ আপনাদের সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে ইস্পাহানী ইসলামিয়া আই ইনিস্টিটিউট এন্ড হসপিটালের সাথে। ফার্মগেট কৃষি বিপণন অধিদপ্তর থেকে ৫০ গজ দক্ষিণ দিকে ইস্পাহানী ইসলামিয়া আই ইনস্টিটিউট এন্ড হসপিটালটি অবস্থিত। 
এই ইনস্টিটিউট ভবনটি ৩ তলা বিশিষ্ট। ভবনের এক ফ্লোর থেকে অন্য ফ্লোরে যাতায়াতের জন্য রয়েছে সিঁড়ি এবং ১টি লিফট। লিফটটি ভবনের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে অবস্থিত। ভবনের ৩য় তলায় অপারেশন থিয়েটারটি অবস্থিত। হাসপাতালের অনুসন্ধান ডেস্কটি ভবনের নিচতলায় প্রবেশমুখেই অবস্থিত। সার্বক্ষণিক সেবা প্রদানের জন্য সেখানে ৪ জন লোক নিয়োজিত থাকেন। 
জরুরী যোগাযোগ নম্বর: ৮১১২৮৫৬, ৯১১৯৩১৫।
ইস্পাহানী ইসলামিয়া আই ইনিস্টিটিউট এন্ড হসপিটালের সেবাগুলো: 
১. চক্ষু সমস্যাজনিত রোগী ভর্তি রেখে চিকিৎসা প্রদান।
২. বহির্বিভাগ চিকিৎসা সেবা।
৩. চোখের সকল ধরনের টেস্ট।
রোগী ভর্তি প্রক্রিয়া:

    রোগী ভর্তি করানোর জন্য প্রথমে বহির্বিভাগে ডাক্তার দেখাতে হয়।
    রোগের ধরণ পর্যবেক্ষণ করে রোগী ভর্তি করা হয়।
    রোগী ভর্তি করার জন্য হাসপাতালের সি ব্লকে যোগাযোগ করতে হয়।
    হাসপাতালের নির্ধারিত ফরম পূরণ করে রোগী ভর্তি করা হয়।
    ভর্তির সময় কোন টাকা পরিশোধ করতে হয় না।
    এখানে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের কেবিন ও ওয়ার্ড।
    এই হাসপাতালটিতে সিঙ্গেল ও ডাবল মিলিয়ে ২০টি কেবিন রয়েছে।
    কেবিনগুলোতে আধুনিক বেড, এসি, চেয়ার-টেবিল, এটাচ বাথ রয়েছে।
    সিঙ্গেল কেবিনের ভাড়া (দৈনিক) ২,০০০ টাকা এবং ডাবল কেবিনের ভাড়া (দৈনিক) ৩,০০০ টাকা।
    সাধারণ বেডের সংখ্যা ৩৫টি। সাধারণ বেডের ভাড়া (দৈনিক) ৩০০ টাকা।
    কেবিন ও ওয়ার্ডে সিট পাওয়ার জন্য সিট বন্টন কক্ষে যোগাযোগ করতে হয়।
এছাড়াও এখানে রয়েছে বহির্বিভাগ চিকিৎসা সেবা। এই হাসপাতালে ভর্তিকৃত রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদানের পাশাপাশি বহির্বিভাগেও চক্ষু রোগের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। সপ্তাহের ৭ দিনই বহির্বিভাগে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। বহির্বিভাগে চিকিৎসা ফি বাবদ ১০০ টাকা পরিশোধ করতে হয়।
বহির্বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসকগণ হলেন- প্রফেসর ডা: কামাল উদ্দিন এবং ডা: নাজমুন নাহার (সিনিয়র কনসালটেন্ট)।
এছাড়াও রয়েছে জরুরী অপারেশনের ব্যবস্থা। এখানে যেসব অপারেশন করা হয়, সেসব অপারেশনের খরচ:

  •  ছানি অপারেশন ২০,০০০/-    
  •   ডিসিআর অপারেশন ৮,০০০/- 
  •   কর্ণিয়া অপারেশন ৯,০০০/    
  • রেটিনা অপারেশন ১২,০০০/-
  • অরবিট অপারেশন ১০,০০০
  •  ট্রমা অপারেশন ৭,০০০/-
  •  নেত্রনালী অপারেশন ৩,০০০/-

রোগীর প্রয়োজন অনুযায়ী এই হাসপাতালে রয়েছে চোখের যাবতীয় রোগের টেস্ট করার সুবিধা। টেস্টের নাম ও খরচ- 

  • প্রিল্যাসিক ৩,০০০/-    
  • সেক ৩০/-
  • হামপ্রে ১,২০০/-     
  • সি.ই.সি ৩,০০০/- 
  • এফ.এফ.এ ৩,০০০/-     
  • ই.সি.জি ৬১০/-
  •   গ্রেট ৮০০/-   
  •  সি.সি.টি ৬৫০/-
  •  ব্লাড ২৬০/-    
  • ও.সি.টি ৫৫০/
  • ইউরিন ২২০/-।

দায়িত্বশীল ডাক্তার ও নার্স: এখানে রোগীদের সেবা প্রদানের জন্য মোট ৬০ জন ডাক্তার রয়েছেন। এদের মধ্যে ৮ জন ডাক্তার স্থায়ী এবং বাকী ৫২ জন ডাক্তার অস্থায়ী ভিত্তিতে চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন। ডাক্তারগণ ২টি শিফটে ভাগ হয়ে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে থাকেন। ডাক্তার ও রোগীদের সহায়তা ও সেবা প্রদানের জন্য ৭০ জন প্রশিক্ষিত নার্স ও ব্রাদার রয়েছেন।
হাসপাতালটির নিজস্ব একটি ঔষধের দোকান রয়েছে। ঔষধের দোকানটি হাসপাতালের নিচতলায় উত্তর-পশ্চিম কোণে অবস্থিত। প্রতিদিন সকাল ৮.০০ টা থেকে রাত ৮.০০ টা পর্যন্ত এটি খোলা থাকে। এখানে দেশী-বিদেশী সকল ধরনের ঔষধ পাওয়া যায়।
এই হাসপাতালের যাবতীয় বিল ক্যাশে পরিশোধ করতে হয়। কোন প্রকার ক্রেডিট কার্ড গ্রহণ করা হয় না। হাসপাতালের নিজস্ব কোন গাড়ি পার্কিং ব্যবস্থা নেই। হাসপাতালটিতে অগ্নি নিরূপনের প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি রয়েছে। প্রতি ফ্লোরেই রয়েছে ১টি করে ফায়ার এক্সিটের ব্যবস্থা। হাসপাতালের প্রতি ফ্লোরে মহিলাদের জন্য ২টি এবং পুরুষদের জন্য ২টি করে মোট ৪টি টয়লেট রয়েছে। আর সকল কেবিনেই এটাচ্ টয়লেটের ব্যবস্থা রয়েছে।
এসব মিলিয়েই ইস্পাহানী ইসলামিয়া আই ইনস্টিটিউট এন্ড হসপিটাল। চোখের যে কোন সমস্যায় চলে যেতে পারেন এই ঠিকানায়: ফার্মগেট, শেরে বাংলা নগর, খামারবাড়ী, ঢাকা-১২১৫। ফোন: ৮১১২৮৫৬, ৯১১৯৩১৫, [email protected].
  (প্রথম সংখ্যায় প্রকাশিত)

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর