ঢাকা      বুধবার ১২, ডিসেম্বর ২০১৮ - ২৮, অগ্রাহায়ণ, ১৪২৫ - হিজরী

ডা. শাওনের মৃত্যুতে ভার্চুয়াল জগতে শোকের ছায়া

তুমি রবে নীরবে…

মেডিভয়েস ডেস্ক: যশোর মেডিকেল কলেজ থেকে সদ্য পাস করা ডা. হাবীবুল করিম শাওন হৃদরোগে (কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট) আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। গত বুধবার ৭ নভেম্বর ফাইনাল প্রফের সাপ্লিতে পাস করে চিকিৎসক হয়েছিলেন তিনি। পাস করার ঠিক দুই দিন পরই তার এভাবে চলে যাওয়া মেনে নিতে পারছে না কেউই। ডা. হাবীবুল করিম শাওনের মৃত্যুতে তার সহপাঠী, বন্ধু-বান্ধবসহ পরিচিত বিভিন্নজন সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকে তাকে নিয়ে নানা স্মৃতি রোমান্থন করেছেন। সবাই তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেছেন। সবারই প্রত্যাশা ওপারে ভালো থাকুক ডা. শাওন।

যশোর মেডিকেল শিক্ষার্থী সুব্রত তালুকদার তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ‘মাত্রই ডাক্তার হইলো কিন্তু দেশ ও মানুষের সেবা করা হইলো না। একজন ডাক্তার হওয়া যে কতটা কষ্টের আর ধৈর্য্যের সেটা যারা ডাক্তার হয় তারাই শুধু বুঝেন। এভাবে চলে যাওয়াটা মেনে নিতে পারছি না।’

যশোর মেডিকেলের ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা. নাদিয়া আলম পিয়ামনি তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, মনিটর হওয়ার জন্য ক্লাসের সময়সূচি জানতে মাঝে মাঝে নক করতো।প্রায়ই পড়াশোনার জন্য বকাবাজিও করতাম। জে-২ এর সবাই কমবেশি আমার বকা খেয়েছে।কিন্তু ওরা তো আমার পরিবার তাই অল্পতে রেগে যাওয়া আমাকে খুব ভালবাসা দিয়েই আগলে রেখেছে। র্যা গ ডের দিন বললাম দোস্ত ক্ষমা করে দিস।বলে, আরে তুই হইলি লিডার।লিডার তো একটু আধটু বকবেই।কাকতালীয়ভাবে সেদিন যমেক স্টেজে আমার লাস্ট পারফরমেন্স ছিল ওর সাথে।অনেক মজা করেছিলাম। অনেক কষ্ট হয়তো জমা ছিল তোর মনে।কিন্তু দু’দিন আগের তোর স্ট্যাটাসটা কিন্তু আমার মন ভালো করেছিল। 'It's late,but not too late' আলহামদুলিল্লাহ।

ডা. শাওনের উদ্দেশে ডা. নাদিয়া আলম পিয়ামনি আরও লেখেন, ‘তোকে হারানোর কষ্ট আমাদের ডুকরে ডুকরে কাঁদাবে। কিন্তু তোর পরিবারের কষ্ট কেউ মুছতে পারবে না।’

যশোর মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি প্রান্ত সরকার তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ‘যশোর মেডিকেল কলেজের ২য় ব্যাচের শিক্ষার্থী ডা. হাবীবুল করিম শাওন ভাই একজন সুন্দর মনের মানুষ। তিনি যমেকের সেরা টেবিল টেনিস প্লেয়ার ছিলেন। তার মৃত্যুতে যমেক শোকাহত।’

সন্ধানী কেন্দ্রীয় পরিষদের উপদেষ্টা ও যশোর মেডিকেলের তৃতীয় ব্যাচের শিক্ষার্থী হিমাদ্রী পাল হিমু তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ‘মেডিসিন দ্বিতীয় পত্রের লিখিত পরীক্ষার অন্তিম মুহূর্ত। Kala-azar এর treatment plan মাথায় আসছে না। ঠিক পেছনের সিটে শাওন ভাই সবেমাত্র ফুল-অ্যান্সার করে খাতা রিভাইজ দিচ্ছেন। আমার জিজ্ঞাসা মাত্র খাতা খুলে treatment planটা বলা শুরু করলেন। এদিকে সাইফুল স্যার বারবার তাড়া দিচ্ছেন- ‘বেশি সাইড-টক করলে পরীক্ষার খাতা নিয়ে নেব।’ ভাই সেই রিস্কের তোয়াক্কা না করে পুরো অ্যান্সারটা এতো সুন্দর করে বললেন,এখনো কানে বেঁধে আছে। বুঝলাম এবার মেডিসিনে ভাইয়ের প্রিপারেশন বেশ ভাল।

ডা. শাওন সম্পর্কে হিমাদ্রী পাল হিমু আরও লেখেন, ‘খুব ভাল কবিতা লিখতেন আবার গাইতেনও বেশ ভাল। নিজে কেমন একটা উদাসীন- খামখেয়ালি ছিলেন- জানি মেধাবীরা এমনই হয়। আফসোস, ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের পরেও আপনার সাথে ইন্টার্নশিপটা করা হলো না! জীবনের হিসেবগুলো এমনই। মেডিকেল কলেজে আপনার টুকরো স্মৃতিগুলো মনে পড়বে আর মন পুড়বে।

দিবা নামের একজন তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ‘পাস-ফেল নিয়ে আমরা কত ডিপ্রেশনে থাকি। উনি এতদিন পাস করেননি ওনার আয়ু ছিল। পাসও করল আয়ুও ফুরালো। দুইদিন আগে ডাক্তার নামটা যোগ হল। রোগীর সেবা করার সুযোগটা হল না। অপ্রাপ্তির সবটুকু দিয়ে আল্লাহ ওনাকে ভরিয়ে দিন অন্য জগতে।’

যশোর মেডিকেলের তৃতীয় ব্যাচের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. নাসিফ সাঈদ তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, মেডিকেল জীবনের একবারে শুরুতেই প্রথম পরিচয় গণজাগরণ মঞ্চের সেই আন্দোলন থেকে। এরপর আমাকে টানতে চাইতেন তার বাম ধারার দিকে। আমিও পাল্টা যুক্তি দেখাতাম আমার আদর্শের দিকে। এরপর দুইজন দুই আদর্শের দিকে থাকলেও এক সাথে পেতাম ক্রিকেট মাঠে। টিভি রুমে হাতেগোনা কয়েকজন দর্শক থাকলেও আপনাকে পেতাম। ‘চল একটা টিটি খেলি’ এই বলে খেলে ফেলতেন ৭-৮ গেম। সব স্মৃতি হয়ে গেল ভাই। কাল রাতেও মেসেঞ্জারে বললেন তাড়াতাড়ি ইন্টার্ন শুরু করি, দেরি হয়ে যাচ্ছে। আর আজ কী শুনলাম!

বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন করা যশোর মেডিকেল কলেজের সাবেক শিক্ষার্থী ডা. দিল আফরোজ তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, হাবিবুল করীম শাওন বারবার মনে হচ্ছে এই ছেলেটাকে যদি নিজের আয়ু থেকে একটু খানি ভাগ দিতে পারতাম!

হাবিবুল করীম শাওন সম্পর্কে ডা. দিল আফরোজ লেখেন, ৪/৫ দিন আগেও ছেলেটা নক করলো। আম্মুকে নিয়ে ছুটাছুটি করতে গিয়ে আর সময় পাইনি রিপ্লাই করার।কে জানতো আর কোনদিন ও কথা হবে না! আমার ইমিডিয়েট জুনিয়র ব্যাচের এই ছেলেটাকেই প্রথম খেয়াল করেছিলাম। খুব বেখেয়ালি লাগতো।এখন মনে হচ্ছে নিজের পরিবারের কেউ হারিয়ে গেছে।এই কষ্টটা ভুলবার নয়।

খুলনা মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা. রিন্টি চৌধুরী তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘ব্যাচমেটরা ভাই বোনের মতই আপন হয়ে যায় একটা সময়। তা সে যত কম কথাই হোক, যত দূরেই থাকা হোক না কেন। শাওনের চলে যাওয়া ভীষণ কষ্ট দিল। আল্লাহ যেন যশোর মেডিকেল কলেজ পরিবারকে আর কোন সদস্যকে এভাবে অকালে হারানোর কষ্ট না দেন।’

যশোর মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ আল লায়েস তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, এখনো বিশ্বাস করতে পারছি না শাওন ভাই নেই। বাবা মা হয়তো চেয়েছেন ডাক্তার হতে হবে হয়েছেন। আর যেন তর সইছিল না চলে যেতে হবে তাড়াতাড়ি, যশোর মেডিকেল পরিবারের আমাদের একান্ত আপন একজন চলে গেলেন পরোপারে আমাদের সবাইকে কাঁদিয়ে।

ডা. শাওনের ফেসবুক সর্বশেষ আপলোড হয়েছিল একটি ছবি। গত ৫ নভেম্বর আপলোড করা ওই ছবিটি তুলেছিলেন শারমিন হক।

ডা. শাওনের মৃত্যুতে শোক জানিয়ে সেই যশোর মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা. শারমিন হক লেখেন, আইডিতে ঢুকেই কলিজা ছ্যাঁত করে উঠল। শেষ(???) প্রোফাইল পিকটার নিচে লেখা "ফটো তুলেছেন শারমিন হক"

শাওন, এইটা করতে গেলি কেন দোস্ত?

তোরে কত বকছি, কত কিছু বলছি হাসতে হাসতে উড়ায়ে দিয়ে বলতি, আরে তারপর কী খবর তোর! বেতন পাইছিস চল আইসক্রিম খাওয়া!

এইগুলা আর কখনোই হবে না সত্যিইইই!

বাবা মায়ের কথাও ভাবলি না একবার! এত্ত অভিমান তোর?

যেখানেই থাক ভাল থাক।’

যশোর মেডিকেল কলেজের সাবেক চিকিৎসক ও বর্তমানে আশিয়ান মেডিকেল কলেজের ইমার্জেন্সি মেডিকেল অফিসার (ইএমও) ডা. মো. শাহীদুল ইসলাম সোহান তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন,আমি ফেসবুকে ঢুকে আজ একেবারে অন্য মনস্ক হতে চাই। জীবনে প্রথমবার একটা মৃত্যু সংবাদ আমাকে ভয় পাইয়ে দিয়েছে। যে যেই মতাদর্শের হোক, আমরা সবাই তো রক্ত মাংসের গড়া মানুষ। আমার মেডিকেলের ইট বালু সিমেন্টকেও যতটা ভালবাসি ততটা বোধহয় আর কোনো বস্তুকে ভালবাসি না। আর মানুষগুলো তো যেন ভালবাসার উর্ধ্বে মনে হয়। অনেকের সাথে হয়তো সামাজিক সম্পর্ক রাখা হয় না, কিন্তু বিশ্বাস করুন, এটা একটা অন্য রকমের পরম আত্মিক সম্পর্ক।

তিনি আরও লেখেন, আমার মেডিকেলের কোনো মানবাত্মা কষ্ট পেলেও আমাদের কষ্ট হয়। মেডিকেল কলেজের প্রত্যেকটা স্টুডেন্ট, চিকিৎসক, প্রত্যেক শিক্ষক, কর্মচারীসহ প্রত্যেকটা মানুষকে আমরা আমাদেরই নিজের পরিবারের একজন সদস্য মনে করি।

যশোর মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি ডা. মো. শাহীদুল ইসলাম সোহান ফেসবুক স্ট্যাটাসে আরও বলেন,‘অনেক মেডিকেল শিক্ষার্থীর অথবা চিকিৎসকের মৃত্যুর খবর শুনে মনটা এতকাল ধরে বারংবারই খারাপ হয়েছে, অশান্ত হয়েছে, কিন্তু গতকাল রাতে যখন নিজের মেডিকেলের এক ছোট ভাইয়ের মৃত্যুর খবর শুনলাম, আত্মাটা কেঁপে উঠলো। একটা মৃত্যু শোকের বেদনার স্বাদ এই প্রথমবার আমার মাত্র ৯ বছর বয়সি মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে এসে ধরা দিয়েছে। এত তাড়াতাড়ি আমাদেরই একজনের হঠাৎ মৃত্যুর স্বাদ পেতে হবে কখনো কল্পনাও করি নাই। গতকাল রাত থেকে ফেসবুকে ঢুকতেই কষ্ট হচ্ছিল। শুধুই চিন্তা হচ্ছিল, হু ইজ নেক্সট?

ডা. শাওনের উদ্দেশে স্মৃতিকাতর ডা. শাহীদুল ইসলাম সোহান বলেন, তুই আমার মেডিকেলের প্রথম ছাত্র এবং প্রথম ডাক্তার যে এই পৃথিবীর সমস্ত জ্বালা যন্ত্রণাকে সবার আগে চির বিদায় জানিয়েছিস। ওপারে অনেক শান্তিতে থাক, এই কামনা করি।

আরও পড়ুন

►যশোর মেডিকেলের ডা. শাওন আর নেই 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

সংসদ নির্বাচনে সর্বকনিষ্ঠ প্রার্থী ডা. সানসিলা

সংসদ নির্বাচনে সর্বকনিষ্ঠ প্রার্থী ডা. সানসিলা

মেডিভয়েস রিপোর্ট: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সবচেয়ে কনিষ্ঠ প্রার্থী হিসেবে বিএনপির মনোনীত ধানের…

এক বছর মেয়াদী অনারারি ট্রেনিংয়ের জন্য দরখাস্ত আহবান

এক বছর মেয়াদী অনারারি ট্রেনিংয়ের জন্য দরখাস্ত আহবান

মাতৃসদন ও শিশু স্বাস্থ্য প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে অবস অ্যান্ড গাইনী ও শিশু বিভাগে…

বিদেশী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের জন্য নীতিমালা

বিদেশী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের জন্য নীতিমালা

যথাযথ অনুমোদন না নিয়ে বাংলাদেশে দীর্ঘদিন অবস্থান করে চিকিৎসা পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন…

হবু চিকিৎসকের পাশে দাড়ালেন চিকিৎসকরা

হবু চিকিৎসকের পাশে দাড়ালেন চিকিৎসকরা

মেডিভয়েস রিপোর্ট: সিরাজগঞ্জের বেলকুচির প্রত্যন্ত অঞ্চলের ছেলে আরিফুল ইসলাম। বাবা একজন চা…

বাংলা একাডেমি সম্মানসূচক ফেলোশিপ পেলেন অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল

বাংলা একাডেমি সম্মানসূচক ফেলোশিপ পেলেন অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল

দেশের চিকিৎসাসেবায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য বাংলা একাডেমি সম্মানসূচক ফেলোশিপ ২০১৮ পেয়েছেন…

বাংলাদেশে প্রতি ১০ হাজারে ১৭ জন শিশু অটিজমে আক্রান্ত

বাংলাদেশে প্রতি ১০ হাজারে ১৭ জন শিশু অটিজমে আক্রান্ত

বাংলাদেশে প্রতি ১০ হাজার শিশুর মধ্যে গড়ে ১৭ জন অটিজমে আক্রান্ত। এ…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর