ঢাকা বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ৪ ঘন্টা আগে
০৮ অগাস্ট, ২০১৬ ১০:২৪

মাগুরার শিশুটি ‘প্রোজেরিয়া’র রোগী বলে ধারণা

মাগুরার শিশুটি ‘প্রোজেরিয়া’র রোগী বলে ধারণা

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিকেল বোর্ড প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে, বৃদ্ধদের মতো চেহারার চার বছরের শিশুটি ‘প্রোজেরিয়া’ রোগে আক্রান্ত। বোর্ড কিছু পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেগুলোর ফল পাওয়ার পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে শিশুটির বিষয়ে সাংবাদিকদের জানাবে।

বিরল রোগে আক্রান্ত মাগুরার এই শিশু মোহাম্মদ বায়েজিদের চিকিৎসায় গঠিত আট সদস্যের মেডিকেল বোর্ড রোববার প্রথম শিশুটির স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে। বোর্ডের সদস্যরা সবাই প্রাথমিকভাবে একমত হয়েছেন যে শিশুটি প্রোজেরিয়া রোগে আক্রান্ত। বোর্ড কয়েকটি পরীক্ষা করানোর নির্দেশ দিয়েছে।

চার বছর বয়সী বায়েজিদকে গত শনিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করা হয়। শিশুটির মুখ, চোখ, পেট, হাত-পায়ের চামড়া বৃদ্ধ মানুষের মতো ঝুলে পড়েছে। দেখলে বৃদ্ধই মনে হয়।

চিকিৎসকেরা বলেছেন, এটা বিরল জিনগত ত্রুটি। এক কোটি শিশুর মধ্যে একজন এই জিনগত ত্রুটি নিয়ে জন্মাতে পারে।

বার্ন ইউনিটের সহযোগী অধ্যাপক হেদায়েত আলী খান বলেন, প্রোজেরিয়ার কারণে শরীরের পরিবর্তন হয়। এ ছাড়া শিশুটির হৃদ্যন্ত্র ও বাঁ কিডনির সমস্যা থাকতে পারে। তার চিকিৎসা শুরুর আগে তাই কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে। এরপর আনুষ্ঠানিকভাবে সাংবাদিক ও দেশবাসীকে শিশুটি সম্পর্কে জানানো হবে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্বাভাবিকভাবে জন্মানো শিশুর চেয়ে প্রোজেরিয়া রোগ নিয়ে জন্মানো শিশুর শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের বয়স দ্রুত বেড়ে যায়। বয়স ১২-১৩ বছর হলে তাদের হৃদরোগ বা কিডনির সমস্যা দেখা দিতে পারে। সে হঠাৎ স্ট্রোকে আক্রান্ত হতে পারে।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত