ঢাকা      মঙ্গলবার ১৩, নভেম্বর ২০১৮ - ২৯, কার্তিক, ১৪২৫ - হিজরী



ডা. জাহিদুর রহমান

চিকিৎসক ও লেখক


জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটকে যে কোন মূল্যে দুর্নীতিমুক্ত করা হোক

বিশেষায়িত সরকারি হাসপাতালগুলোর মধ্যে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট (NICVD) দুর্নীতিতে বরাবরই এক নম্বর। হার্টের রিং বাণিজ্য নিয়ে লেখালেখির সময় আমরা সেটার প্ৰমাণ পেয়েছি। কিন্তু সেই দুর্নীতির পরিমাণ যে এত ভয়াবহ পর্যায়ে চলে গিয়েছে বুঝি নাই। 

গত কয়েক বছরে এই হাসপাতালে অপারেশন থিয়েটার জীবাণুমুক্ত করার যন্ত্রপাতি কেনার নাম করে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে কোটি কোটি টাকা। দাম ধরা হয়েছে সবচে ভাল মানের যন্ত্রপাতির, আর কেনা হয়েছে সব নষ্ট কিংবা একেবারেই নিম্নমানের জিনিস। কখনো কখনো তাও কেন হয়নি। এমনও হয়েছে খোঁজ করে শুধু বাক্স পাওয়া গিয়েছে, ভিতরে কোন যন্ত্র পাওয়া যায়নি! 

মাস দুয়েক আগে একে একে অপারেশন থিয়েটারের সবগুলো অটোক্লেভ মেশিন (অপারেশনের যন্ত্রপাতি জীবাণুমুক্ত করার যন্ত্র) নষ্ট হয়ে গেলে এক পর্যায়ে অপারেশনের সরঞ্জামাদি সঠিকভাবে জীবাণুমুক্ত না করেই হার্টের সংবেদনশীল অপারেশনগুলো চলতে থাকে। যার ফলাফল হয়েছে ভয়ঙ্কর। শুধুমাত্র গত আগস্ট মাসেই অপারেশন পরবর্তী ইনফেকশনের কারণে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অন্তত ১৫-২০ জন রোগী মারা গিয়েছে! অবস্থা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবার কারণে তারপর থেকে এখন পর্যন্ত ঐ হাসপাতালে অপারেশন করা বন্ধ রয়েছে।

জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের অসীম পরিমাণ দুর্নীতি নিয়ে গণমাধ্যমে নিয়মিত রিপোর্ট প্রকাশিত হয়, জাতীয় সংসদে আলোচনা হয়, সংসদীয় তদন্ত কমিটি গঠিত হয়, দুদকের মামলা হয়, শুধুমাত্র দুর্নীতিবাজ চিহ্নিত করা হয় না। বিচার করা তো পরের ব্যাপার। আমাদের জানামতে ঐ হাসপাতালে কর্মরত বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী রাজনৈতিক ব্যক্তি আছেন। এবং এখন পর্যন্ত তাদের নামে সরাসরি কোন দুর্নীতির অভিযোগ ওঠেনি। তার মানে উনারা নিজেরা এসব দুর্নীতির সাথে জড়িত না। তাহলে উনাদের হাসপাতালের এই করুণ অবস্থা কেন? উনারা চাইলে কি এসব দুর্নীতি, অনিয়ম বন্ধ করতে পারেন না? বন্ধ না হোক, নিয়ন্ত্রণ তো করতে পারেন, নাকি?

যে কোন সরকারি হাসপাতালের যন্ত্রপাতি কিনতে যে কোটি কোটি টাকার দুর্নীতি হয়, সেটা মোটামুটি সবাই জানে। এই অশুভ সিন্ডিকেটকে বা কারা নিয়ন্ত্রণ করে, তাও আমরা জানি। চাকরি হারানোর ভয়ে বেশি কিছু বলব না। ঐ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে একটাই অনুরোধ, কয়েকগুণ টাকা বরাদ্দ নেন, সেগুলো লুটপাট করেন, অন্তত জীবন বাঁচানোর যন্ত্রপাতিগুলো ভাল মানের কিনেন। 

একমাত্র বাংলাদেশ বলেই আপনারা একমাসে এতগুলো মানুষ খুন করেও জেলের বাইরে আছেন। মরে যাওয়া রোগীদের পরিবারগুলোকে কোন ধরনের ক্ষতিপূরণ তো দেয়াই হয়নি, এমন কি তারা জানতেই পারেনি কী কারণে তাদের রোগী মারা গিয়েছে, কারা তাদের স্বজনহারা করার জন্য দায়ী। তবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বাংলাদেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশে সারা জীবনই যে এরকম নিরাপদ থাকবেন, তারও কিন্তু কোন নিশ্চয়তা নাই। 

প্রধানমন্ত্রীর কানে এসব খবর পৌঁছাতে দেরি হতে পারে, উনাকে ভুল তথ্য দেয়া হতে পারে, তাতে উনি সাময়িকভাবে বিভ্রান্তও হতে পারেন। কিন্তু দিন শেষে উনার হাত থেকে এখন পর্যন্ত কোন দুর্নীতিবাজই কিন্তু রেহাই পায়নি। যেই মায়া নিজের বুক আগলে ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়েছিলেন, নিজের পরিবারের দূর্নীতির কারণে তিনিও কিন্তু নিস্তার পাননি।

কর্তৃপক্ষের অবহেলা জনিত কারণে প্রাণ হারানো প্রতিটি ঘটনা তদন্ত করা হোক। জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটকে যে কোন মূল্যে দুর্নীতিমুক্ত করা হোক।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


সম্পাদকীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

সন্তানকে প্রাইভেট মেডিকেলে পড়াতে চান?

সন্তানকে প্রাইভেট মেডিকেলে পড়াতে চান?

অনেকেই প্রাইভেট মেডিকেলে ভর্তি হতে চান। বিশেষ করে তাদের অভিভাবকগণ তাদেরকে ডাক্তার…

বিয়ের আগে রক্ত পরীক্ষার আইন প্রশ্নে হাইকোর্টের রিট, বাংলাদেশ কি প্রস্তুত?

বিয়ের আগে রক্ত পরীক্ষার আইন প্রশ্নে হাইকোর্টের রিট, বাংলাদেশ কি প্রস্তুত?

থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধে বিয়ের আগে রক্ত পরীক্ষার আইন করার বিষয়ে রিটে রুল জারি…

যৌথ পরিবার টু একক পরিবার, নিউরোমেডিসিন কী বলে?

যৌথ পরিবার টু একক পরিবার, নিউরোমেডিসিন কী বলে?

ময়নসিংহের একটি যৌথ পরিবারকে নিয়ে ফিচার করা হয়েছিলো ‘ইত্যাদি’ তে। বৃদ্ধ আব্দুর…

থ্যালাসেমিয়া নিয়ে ন্যাশনাল পলিসি গ্রহণের দাবি

থ্যালাসেমিয়া নিয়ে ন্যাশনাল পলিসি গ্রহণের দাবি

মানুষ যতক্ষণ না জানছে থ্যালাসেমিয়া কী, কেন হয় ততক্ষণ বিয়ের আগে রক্ত…

পৃথিবীর রহস্যময় বিজ্ঞানী কারা?

পৃথিবীর রহস্যময় বিজ্ঞানী কারা?

পৃথিবীতে এখন পর্যন্ত অসম্ভব বলে যা কিছু আছে, তার মধ্যে একটি হল…

মেধাবীদের রাজনীতিতে আসা উচিত

মেধাবীদের রাজনীতিতে আসা উচিত

  অষ্টম শ্রেণীতে ভিত্তি পরীক্ষার জন্য গ্রাম থেকে চাঁদপুর মফস্বল শহরে যাই।বাংলা পরীক্ষায় রচনা…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর