অধ্যাপক ডা. সালমা আফরোজ

অধ্যাপক ডা. সালমা আফরোজ

সাবেক বিভাগীয় প্রধান, হেমাটোলজি, ঢাকা মেডিকেল কলেজ। 


২৯ অক্টোবর, ২০১৮ ১০:৫৪ এএম

সন্তান ছেলে বা মেয়ে হওয়ার জন্য কে দায়ী?

সন্তান ছেলে বা মেয়ে হওয়ার জন্য কে দায়ী?

ড্রাইভার আসেনি রিকশা বা সিএনজিতে অফিস যেতে হবে। ভিআইপি রোডের পাশে বাসা তাই ফার্মগেট থেকে রিকশায় উঠতে হবে। আমি হাঁটতে খুব পছন্দ করি।কিছুটা যেতেই পুলিশের হুইসেল ভিআইপি যাবে তাই রাস্তা খালি করছে। আমাদেরকে গলিতে ঢুকিয়ে সামনে দাড়িয়ে রইল। লোকজনের ভীড়ে দাড়িয়ে থাকলাম। 

ওই ভীড়ে ২০-২২ বছরের একজন মেয়ে এসে দাড়াল। খুব ক্লান্ত শরীর যেন টানতেই পারছে না, হাতে আবার কাপড়ের ব্যাগ। সাথে কাপড়ে জড়ানো বাচ্চা নিয়ে মধ্যবয়স্ক মহিলা। এমনভাবে জড়ানো ওযে কতটুকু ছেলে না মেয়ে বুঝার উপায় নেই। 

ওনার পরিচিত মহিলা জিজ্ঞাসা করলেন, ‘আপা বাচ্চা কবে হলো, ছেলে না মেয়ে?’ 
- উনি খুবই তাচ্ছিল্যভরে বলল, এবারও মেয়ে হয়েছে। 
- আগের মহিলা বললেন- এভাবে বলবেন না, মেয়েরা তো ঘরের লক্ষী। ছেলে মেয়ে এখন সমান। 

আমি ভাবলাম মহিলা মেয়েটার শাশুড়ি। কিন্তু পরের কথোপথনে অবাক হলাম। কারণ মহিলা বললেন, আমার মেয়ের জামাই মেয়ে হয়েছে তাই রাগ করে দেখতে আসেনি। কোন খবরও নেয়নি। আরও বললেন, ভাষণে বলা যায় ছেলেমেয়ে সমান কিন্তু বাস্তবতা অন্যরকম। ওনার কথায় ক্ষোভ ও কষ্ট ছিল।

আমার এক মেয়ে রোগীর কথা মনে পড়লো। ব্লাড ক্যানসার হয়েছিল। চিকিৎসায় ওটা ৮০% রোগীর ক্ষেত্রে সেরে যায়। তাই ওর বাবাকে বুঝিয়ে বললাম, কিছু টাকাও জোগাড় করে দিলাম কিন্তু ওর বাবা খরচ করতে রাজি হল না। উনি বললেন বাঁচলে কী লাভ আবারতো বিয়েতে খরচ করতে হবে। ছেলে হলে খরচ করতেন সোজা উত্তর। কতটুকু এগিয়েছি আমরা? কোন কোন বাবা আবার অসম্ভব করেন।

বাচ্চাটার বাবা ভাবছেন মেয়ে হওয়ার জন্য স্ত্রী দায়ী। জানি না উনি শিক্ষিত না অশিক্ষিত। ছেলেরা chromosome xy ও মেয়েরা x বহন করে। বাচ্চা মায়ের কাছ থেকে একটাও বাবার কাছ থেকে একটা chromosome পেয়েই ছেলে হবে না মেয়ে হবে নির্ধারিত হয়। মা তো শুধু x-ই বহন করে। তাই ছেলে হতে হলে xy পেতে হবে যে y শুধু বাবারই থাকে। তাহলে বাবাইতো ছেলে না হবার জন্য দায়ী। 

আসলে কেউই দায়ী না। কিন্তু আমরা ছেলে না হলে মাকে দায়ী করি। দুর এই রোদে উল্টাপাল্টা কথা মনে হচ্ছে। পুলিশের হু়ইসেল বেজে উঠল সবাই ব্যাস্ত। আমাদের মহামান্য প্রধানমন্ত্রী গেলেন স্পীকার গেলেন। দুজনেই মহিলা। অনূর্ধ্ব ১৯ মেয়েরা চ্যাম্পিয়ন হয়ে দেশে ফিরলো। এসবই তো এগিয়ে যাবার চিহ্ন। তবুও এখনও মেয়ে হলে মনে কষ্ট হচ্ছে। সত্যি কি আমরা এগিয়েছি? ছোটবেলার বানরের তৈলাক্ত বাশে উঠার অ়ঙ্কটা মনে পড়ছে ৩ ফুট উঠে আর ১ ফুট নামে। আমাদের মেয়েদেরও কি সেই অবস্হা?

রিকশায় উঠে ছোট্ট বাবুটার কথা মনে হতে লাগলো। ওর কি বাবার আদর পাবার ভাগ্য হবে? যখন ও বাবার গলা জড়িয়ে ধরবে বাবার লুঙ্গি নিয়ে ঘুমিয়ে থাকবে, ছোট্ট নরম হাতে অফিস ফেরত বাবার জুতা খুলে দিবে। বাবা কি তখন ওকে আদরে আবেগে না জড়িয়ে ধরে পারবে?

সিন্ডিকেট মিটিংয়ে প্রস্তাব গৃহীত

ভাতা পাবেন ডিপ্লোমা-এমফিল কোর্সের চিকিৎসকরা

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা উপেক্ষা

অতিরিক্ত বেতন নিচ্ছে একাধিক বেসরকারি মেডিকেল

প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অক্টোবর-নভেম্বরে ২য় ধাপে করোনা সংক্রমণের শঙ্কা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না