ঢাকা      বুধবার ২০, মার্চ ২০১৯ - ৬, চৈত্র, ১৪২৫ - হিজরী

ডিআরইউতে ক্যান্সার বিষয়ক ক্যাম্পেইন

৩০ বছর বয়সের পর বিয়ে হলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি!

মেডিভয়েস রিপোর্ট: নিঃসন্তান নারীদের স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বেশি। এছাড়া বেশি বয়সে সন্তান নিলেও নারীদের এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশংকা থাকে। বিশেষ করে ৩০ বছর বয়সের পর বিয়ে ও প্রথম সন্তানের মা হওয়া স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়। 

বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনী মিলনায়তনে ‘ক্যান্সার জিজ্ঞাসা ও স্তন ক্যান্সার স্ক্রিনিং’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবুল্লাহ তালুকদার রাসকিন এসব কথা বলেন। 

ডিআরইউর সভাপতি সাইফুল ইসলাম সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শুকুর আলী শুভর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সংগঠনটির সদস্য ও তাদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ডা. মো. হাবিবুল্লাহ তালুকদার রাসকিন বলেন, নবজাতক সন্তানকে নিয়মিত বুকে দুধ খাওয়ালে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বহুলাংশে কমে যায়। কারণ, স্তন ক্যান্সার হওয়ার জন্য বিভিন্ন ফ্যাক্টর কাজ করে। তবে স্তন ক্যান্সারের সবচেয়ে বেশি দায়ী হচ্ছে সন্তানকে বুকের দুধ না খাওয়ানো। তাই সকল মাকে স্তন ক্যান্সারকে এড়িয়ে চলার জন্য সন্তানকে নিয়মিত বুকের দুধ খাওয়ানো উচিত। 

শাকসবজি ও ফলমূল না খেয়ে চর্বি ও প্রাণীজ আমিষ জাতীয় খাবার বেশি খেলে স্তান ক্যান্সার বেশি হওয়ার ঝুঁকি থাকে।

‘স্তন ক্যান্সার সচেতনতার মাস’ উপলক্ষে পুরো অক্টোবরজুড়ে সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত ডিআরইউর নারী সদস্য ও সদস্যদের পরিবারের (নারী) জন্য প্রাথমিক পরীক্ষারও (স্ক্রিনিং) ব্যবস্থা রয়েছে। ডা. মো. হাবিবুল্লাহ তালুকদার রাসকিনসহ আরও দুইজন নারী চিকিৎসক স্তন ক্যান্সার বিষয়ক প্রশ্ন জিজ্ঞাসার উত্তর ও স্ক্রিনিং-এ অংশ নেন।  ওই ক্যাম্পেইনে ডিআরইউ সদস্য ও পরিবারের সদস্যরা (নারী) ফ্রি বিশেষজ্ঞ পরামর্শ নেন।


ডা. মো. হাবিবুল্লাহ তালুকদার রাসকিন বলেন, একটা সময় বলা হতো, ক্যান্সারের কোন অ্যান্সার নাই। কিন্তু আমরা বলি, সেই দিন এখন আর নাই। অবশ্যই আমাদের কাছে অনেকগুলো অ্যান্সার আছে। আমরা বলি, ব্রেস্ট ক্যান্সার এই মুহুর্তে একটা রিচ ফ্যাক্টর। ব্রেস্ট ক্যান্সারের বেলায় দুই ধরনের ফ্যাক্টর আছে। একটা হলো আমরা চাইলেই এটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি। আর কিছু আছে আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি না। এগুলোতে আমাদের কোন হাত নাই। 

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দেশের মোট জনসংখ্যার মধ্যে প্রতিবছর নতুন করে ১লাখ ৫০ হাজার ৭৮১ জন ক্যান্সারে আক্রান্ত হন। এর মধ্যে ১৭ হাজারেরও বেশি নারী স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হন। নারী ক্যান্সার রোগীদের মধ্যে আক্রান্তের হার শতকরা ১৯জন।

আরও পড়ুন

৩০ বছর বয়সের পর বিয়ে হলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি!

ব্রেস্ট ক্যান্সার সম্পর্কে জেনে নিন 

►স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত ৭০ ভাগ নারীই বিনা চিকিৎসায় মারা যান

ক্যানসার রোগীদের জন্য কিছু একটা করতে পেরেছি-অ্যালিসন

‘আমার হাতে কি বছর দশেক সময় আছে, ডক্টর?’

বাংলাদেশে মৃত্যুর ষষ্ঠ প্রধান কারণ ক্যান্সার

ক্যান্সার সচেতনতায় আনোয়ার খান কলেজের কর্মসূচি ২ অক্টোবর শুরু

বছরে তিন লাখ মানুষ ক্যান্সারে আক্রান্ত হন

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বছরেই স্বাস্থ্য খাতে ৩০ হাজার নিয়োগ

এ বছরেই স্বাস্থ্য খাতে ৩০ হাজার নিয়োগ

মেডিভয়েস রিপোর্ট: চলতি বছরই স্বাস্থ্য খাতের শূন্য পদের বিপরীতে ৩০ হাজার চিকিৎসক,…

বিএসএমএমইউতে ‘হেপাটাইটিস সি’র ওষুধ মিলছে বিনামূল্যে

বিএসএমএমইউতে ‘হেপাটাইটিস সি’র ওষুধ মিলছে বিনামূল্যে

মেডিভয়েস রিপোর্ট: হেপাটাইটিস সি’র চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধ সম্পূর্ণ বিনামূল্যে প্রদান করছে বঙ্গবন্ধু…

ডা. রাজনকে হত্যার অভিযোগ স্বজনদের

ডা. রাজনকে হত্যার অভিযোগ স্বজনদের

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ওরাল অ্যান্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারি…

নন ক্যাডার প্রথম শ্রেণীতে ৩৬ চিকিৎসককে নিয়োগের সুপারিশ

নন ক্যাডার প্রথম শ্রেণীতে ৩৬ চিকিৎসককে নিয়োগের সুপারিশ

মেডিভয়েস রিপোর্ট: ৩৭ তম বিসিএসে নন ক্যাডার প্রথম শ্রেণির (৯ম গ্রেড) পদে…

বিএসএমএমইউর সহকারী অধ্যাপক ডা. রাজন কর্মকার আর নেই

বিএসএমএমইউর সহকারী অধ্যাপক ডা. রাজন কর্মকার আর নেই

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ওরাল এন্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারি বিভাগের…

ডা. রাজন কর্মকারের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন

ডা. রাজন কর্মকারের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ডা. রাজন কর্মকারের ময়নাতদন্ত…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর