ঢাকা      মঙ্গলবার ১৭, সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ২, আশ্বিন, ১৪২৬ - হিজরী



আয়েশা আলম প্রান্তী

শিক্ষার্থী, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ


মানসিক স্বাস্থ্য সচেতনতায় নারীদের পাশে ডব্লিউএসআইএফ 

মানসিক স্বাস্থ্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। শারিরীক সুস্থতা যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি মানসিক সুস্থতাও খুব জরুরি সুস্থ, সুন্দর জীবন যাপনের জন্য৷ আমাদের নারীরা সমাজে নানা ক্ষেত্রে অবহেলিত। শুধু তাই নয় নিজের হতাশা, দুঃখ কারও সাথে বলারও সুযোগ হয় না তাদের৷ অনেক নারীরাই মানসিক অশান্তিতে ভোগে। নারীদের এসব পরিস্থিতিতে তাদের পাশে থাকার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন ডা. কামরুন কলি। তিনি আইসিডিডিআরবি-তে কর্তব্যরত একজন এসিস্ট্যান্ট সাইনটিস্ট।  

এছাড়াও বর্তমানে তিনি ইংল্যান্ডে কিংস কলেজে গ্লোবাল মেন্টাল হেল্থের মাস্টার্সয়ের শিক্ষার্থী। ডা. কামরুন কলি ও সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ফাতেমা আলম মিলে প্রতিষ্ঠা করেন WSIF (women support initiative forum). উদ্দেশ্য হতাশাগ্রস্ত নারীদের পাশে থাকা, তাদের সাহায্য সহযোগিতা করা, তাদের নানা প্রজেক্ট ও ওয়ার্কশপের মাধ্যমে সচেতন করে তোলা, তাদের বিপদে মানসিক বিপর্যস্ত অবস্থায় তাদের অনুপ্রেরণা দেয়া। 

ডা. কামরুন কলি তার এ উদ্যোগের মাধ্যমে সম্পূর্ণ নতুন আঙ্গিকে মেন্টাল সাপোর্ট দিচ্ছেন নারীদের৷ যা বেশ ফলপ্রসূ ও কার্যকরী। ডা. কলি ও ফাতেমা ছাড়াও ওমেন সাপোর্ট ইনিশিয়েটিভ ফোরামের অর্গানাইজিং কমিটিতে আছেন নানা দক্ষ মানুষ, যাদের অধিকাংশই নারী।  

প্রতি বছর মানসকি স্বাস্থ্য সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করে গড়ে তুলতে পালিত হয়, বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস (World Mental Health Day). বিশ্ব মানসিক সাস্থ্য দিবস ২০১৮ উপলক্ষে ওমেন সাপোর্ট ইনিশিয়েটিভ ফোরাম কর্তৃক আয়োজিত অনুষ্ঠান সংঘটিত হয় গত ১১ অক্টোবর রাজধানীর ইএমকে সেন্টারে।

সম্পূর্ণ ভিন্ন আঙ্গিকে সাজানো এ অনুষ্ঠানের প্রথমভাগে প্যানেল ডিসকাশনে ছিলেন সনামধন্য মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ, ছিলেন ফ্রিডম উয়িদিনের ম্যানেজিং ডিরেক্টর নাসিমা আক্তার, বিশিষ্ট সাইকোলজিস্ট সাফিনা বিনতে এনায়েত এবং আইডেন্টিটি ইনক্লুশনের ডিরেক্টর শামসিন আহমেদ।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় ভাগে ‘কিভাবে আমরা আরো সুষ্ঠুভাবে মনের ভাব আদান প্রদান করতে পারি এবং কিভাবে তা আমাদের মানসিক সাস্থ্য উন্নত করতে পারে’ সে বিষয়ে একটি কর্মশালা পরিচালনা করেন সৈয়দা ফাতেমা আলম, ওমেন সাপোর্ট ইনিশিয়েটিভ ফোরামের সহ-প্রতিষ্ঠাতা।

নিজেদেরকে কোথায় দেখতে চান এই প্রশ্নের উত্তরে WSIF-এর কোফাউন্ডার ফাতেমা বলেন, ‘আমার চাওয়াটা খুব সরল, আমি চাই যে কেউ পেট ব্যথার মতো করেই বলতে পারুক তার মানসিক কষ্টের কথা, শারীরিক অসুস্থতার মতোই মানসিক অসুস্থতায়ও মিলুক ছুটি। বাংলাদেশ যেমন সাস্থ্যখাতে এগিয়ে চলেছে, আমরা চাই মানসিক সাস্থ্যও তার সাথে যুক্ত হোক।’ 

ওমেন সাপোর্ট ইনিশিয়েটিভ ফোরাম বিগত ৬ মাসে ৫০০ এর বেশি মহিলাকে মানসিক সাস্থ্য সেবা প্রদান করেছে। তাদের ভিন্নধর্মী এই উদ্যোগ অল্প সময়েই জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে দেশের বিশেষত নারীদের মধ্যে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এবার ড্রোনেই পৌঁছাবে জরুরি ওষুধ ও রক্ত

এবার ড্রোনেই পৌঁছাবে জরুরি ওষুধ ও রক্ত

মেডিভয়েস ডেস্ক: রোগীদের কাছে জরুরি ওষুধ ও রক্ত পৌঁছে দিতে নতুন পরিষেবা…

আরো সংবাদ
























জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর