ডা. মাহফুজুর রহমান রাজ

ডা. মাহফুজুর রহমান রাজ

ডেন্টাল সার্জন

রাজশহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে


২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০৪:৪৬ পিএম

ঢাকা ডেন্টালের শিক্ষার্থীদের পড়ার টেবিলে ফিরিয়ে আনুন

ঢাকা ডেন্টালের শিক্ষার্থীদের পড়ার টেবিলে ফিরিয়ে আনুন

১১ তম দিনে ও আন্দোলন করছে ঢাকা ডেন্টাল কলেজের শিক্ষার্থীরা। কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক কালাম স্যারকে পুণরায় অধ্যক্ষ পদের ব্যাপারে অনড় অবস্থানে রয়েছে।  দেশের একমাত্র পূর্ণাঙ্গ ডেন্টাল কলেজ ঢাকা ডেন্টাল কলেজ। বাংলাদেশের ডেন্টিস্ট্রি বিকাশ এখান থেকে হয়। 

এখানে শিক্ষা চিকিৎসা গবেষণা এবং উচ্চ শিক্ষার ব্যবস্থা আছে। অনেকদিন ধরেই ছিল রাজনীতি পেশী শক্তির প্রভাব। অধ্যাপক আবুল কালাম ব্যাপারী তার ব্যক্তিত্ব দিয়ে রাজনীতি ও পেশীশক্তির মোকাবেলা করে সেখানে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে এনেছিলেন। এই ফিরে পাওয়া শিক্ষা পরিবেশটার জন্য ছাত্র ছাত্রীদের আন্দোলন।

তারা আর পূর্বের অবস্থায় ফিরে যেতে চায় না। সেজন্যই তারা অধ্যাপক আবুল কালাম ব্যাপারীকে স্বপদে বহাল চান। এর মাঝে মন্ত্রণালয় একজন নতুন অধ্যক্ষকে পদায়ন করেছেন।কিন্তু শিক্ষার্থীরা তাকে কলেজে প্রবেশ করতে দেয়নি । 

জানা গেছে নতুন অধ্যক্ষ একাডেমিক তার চেয়ে বেশি রাজনৈতিক। শিক্ষার্থীরা যেহেতু আন্দোলন করছে শিক্ষার পরিবেশের জন্য সেখানে রাজনৈতিক বিবেচনায় কাউকে অধ্যক্ষ করা হোক এমনটা তারা চাননা । বাংলাদেশে সর্বমোট চার থেকে পাঁচজন পূর্ণ অধ্যাপক , সাত থেকে আটজন অধ্যাপক চলতি দায়িত্বে আছেন। নতুন অধ্যক্ষ সর্বকনিষ্ঠ চলতি দায়িত্বের অধ্যাপক হওয়ার কারণে সকল সিনিয়র এবং অধ্যাপক বৃন্দের জন্য বিব্রতকর বলে ধারণা করছেন অনেকে। সেই সাথে যুক্ত হয়েছে নতুন অধ্যক্ষের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক অতীত । 


রাজনৈতিক নেতার কারণে সবাই আবার আতঙ্কিত কলেজ কি আবার সেই রাজনীতি ও প্রযুক্তির যুগে ফিরে যাবে ? কলেজ সংশ্লিষ্ট অনেকেই মনে করেন কিছুদিন পূর্বে মন্ত্রণালয় থেকে জারি হওয়া নতুন বিসিএসের যোগদানকারীদের জন্য নীতিমালা কয়েকদিনের ভেতরে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। স্বাভাবিকভাবেই মন্ত্রণালয়ের আদেশ জনস্বার্থে বৃহত্তর স্বার্থে পরিবর্তন এর অনেক উদাহরণ আছে।

যেকোনো জনবান্ধব সরকার ভালো কিছু করার জন্য আদেশ পরিবর্তন করেন। তবে যাই হোক না কেন এটার একটা সুষ্ঠু সমাধান প্রয়োজন। শিক্ষার্থীদের পড়ার টেবিলে পুনরায় ফিরিয়ে নেয়া দরকার। ডেন্টিস্ট্রি পেশার নেতৃবৃন্দ , চিকিৎসা বিজ্ঞানের নেতৃবৃন্দ একজন অ্যাক্যাডেমিশিয়ান এর হাতে একজন সিনিয়র অধ্যাপক এর হাতে ডেন্টিস্ট্রি পেশার এই প্রতিষ্ঠান দায়িত্ব তুলে দেওয়া যায় কিভাবে তা ভেবে দেখা দরকার।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না