ঢাকা      সোমবার ২৪, জুন ২০১৯ - ১০, আষাঢ়, ১৪২৬ - হিজরী



আলভী আরাফাত

শিক্ষার্থী, প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ, জাফরাবাদ,করিমগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ


কিশোরগঞ্জের জনপ্রিয় এক চিকিৎসকের গল্প 

প্রতি মাসে বিনামূল্যে অন্তত ৩০০ রোগী দেখেন তিনি

গ্রামের গরিব অসহায় মানুষের টাকার অভাবে চিকিৎসাহীনতা ও তাদের দুঃখ-দুর্দশা দেখে বড় হয়েছেন তিনি। বিষয়টা তাঁকে খুব পীড়া দিতো। এজন্যই মূলত তার চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন জাগে। তিনি আর কেউ নন তিনি হলেন ডা. ইসরাঈল হোসেন। কিশোরগঞ্জের এ চিকিৎসক গত তিন যুগ ধরে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সেবা দিয়েছেন। আসুন জেনে নিই তার জীবনের গল্প। 
  
বেড়ে ওঠার গল্প

কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর উপজেলার পূমদী ইউনিয়নে জন্মগ্রহণ করেন ইসরাঈল। তার বাবার নাম সাবেদ আলী। যে সময়টাতে বাবার হাত ধরে স্কুলে যাওয়ার কথা, সেই প্রথম শ্রেণিতেই বাবাকে হারিয়ে বড় ধরনের ধাক্কা খান তিনি। তবে তার মমতাময়ী মায়ের প্রেরণায় নিজেকে তিলে তিলে গড়ে তোলেন তিনি।

ছোট এক ভাই ও এক বোনকে নিয়ে সংগ্রামের মধ্যেই বেড়ে ওঠা ইসরাইলের স্কুল জীবন শুরু করে আতিরা প্রাইমারি স্কুলে। পরে পূমদী ইসলামিয়া হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাস করেন তিনি। হোসেনপুর মহাবিদ্যালয় থেকে ১৯৭৪ সালে ইন্টার পরীক্ষায় হোসেনপুর-গফরগাঁও পরীক্ষা কেন্দ্রের একমাত্র প্রথম বিভাগে পাশ করে মেধা তালিকায় স্থান পেয়ে যান তিনি।  এলাকায় তিনি হয়ে উঠেন অন্য শিক্ষার্থীদের প্রেরণা। 

ময়মনসিংহ মেডিকেলে চান্স 
ছোটবেলা থেকেই আকাশছোঁয়া স্বপ্ন নিয়ে প্রচুর পড়াশোনা করা তার অভ্যাসে পরিণত হয়। কিন্তু তখনও তাঁর কল্পনায় আসেনি মেডিকেলে পড়াশোনা করে ডাক্তার হবেন। 

ইন্টারে চমকপ্রদ রেজাল্টের পর শিক্ষকদের পরামর্শেই সিদ্ধান্ত নেন মেডিকেলে পড়ার।  প্রবল ইচ্ছাশক্তি, অদম্য মেধা ও চেষ্টার ফলে ময়মনসিংহ মেডিকেলে চান্স পেয়েই নিজেকে মেলে ধরতে থাকেন তিনি।
১৯৮২ সালে তিনি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে  এমবিবিএস পাস করেন।

চিকিৎসক হিসেবে যোগদান
এমবিবিএস পাসের পরপরই সহকারী সার্জন ইনসার্ভিস ট্রেইনী হিসাবে ডাক্তারি পেশা শুরু করেন। ১৯৮৩ সালে তিনি কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার (এডহক) হিসাবে যোগদান করেন। দ্রুততম সময়ে দশম বিসিএস পাশ করে স্বাস্থ্য ক্যাডারেও অন্তর্ভূক্ত হন তিনি। 

২০০৬ সাল থেকে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আরএমও হিসাবে ২০০৮ সাল পর্যন্ত চিকিৎসাসেবায় কাজ করেন। এর আগে নেত্রকোনার মদন হাসপাতালে দীর্ঘ ৮ বছর ও শরীয়তপুর জেলায় দীর্ঘ ৬ বছর কাজ করে আবার কিশোরগঞ্জ প্রত্যাবর্তন করে ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হিসাবে যোগদান করেন।  ৩৪ বছর সরকারি ডাক্তার হিসাবে চিকিৎসাসেবা দিয়ে ২০১৬ সালে তিনি অবসরে যান।

অবসরে রোগীদের ফ্রি চিকিৎসা ও বই পড়া

অবসর! সে তো অবসর নয়। সরকারি চাকরি শেষ করে পুনরায় নিজেকে নতুন উদ্যমে আর্তমানবতার সেবায় চিকিৎসায় নিয়োজিত হন ডা. ইসরাঈল। বিনামূল্য আর স্বল্পমূল্যে চিকিৎসা পেয়ে বিভিন্ন স্থান থেকেই চিকিৎসাবঞ্চিত অসহায় রোগীরা আসতে থাকে তার কাছে।  তবে ব্যস্ততম জীবনের যতটুকু সময়ই অবসর পান বই পড়া আর গান শুনেই সে সময় কাটান তিনি।

চিকিৎসক জীবনের বেশিরভাগই দেখেছেন ফ্রি রোগী

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সারাদিনে যতজন রোগী দেখেন, তার মধ্যে অধিকাংশই দেখেন বিনামূল্যে। তার ঘনিষ্টজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতি মাসে অন্তত ৩০০ জন রোগীই বিনামূল্যে দেখে থাকেন।

২০ বছর যাবৎ তার চিকিৎসা নিয়ে আসছেন শহরের গাইটাল শিক্ষকপল্লী এলাকার অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম। তার সাথে কথা বললে তিনি মেডিভয়েসকে জানান, একজন ডাক্তারের যেসব গুণাবলী থাকা দরকার, অনেকের মধ্যেই তা পাওয়া যায় না। এক্ষেত্রে ডা. ইসরাঈল হোসেন অনন্য। তিনি শুধু ডাক্তার হিসাবেই নয়, ব্যক্তি হিসাবেও অসাধারণ একজন মানুষ তিনি।

মুক্তিযোদ্ধাদের ফ্রি ঔষধ সরবরাহ
জেলা শহরের খরমপট্টি এলাকার মুক্তিযোদ্ধা মো. আব্দুস সাত্তার বকুল মেডিভয়েসকে বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে তাকে আমি স্যালুট জানাই। ওনি শুধু আমাকে বিনামূল্যে চিকিৎসাই দেন না, সবসময় বিভিন্ন ধরনের ঔষধও পেয়ে থাকি। ডাক্তার হিসাবে উনি খুব জেন্টেলমেন্ট।  

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শরীফুল ইসলাম মেডিভয়েসকে বলেন, ব্যক্তি হিসাবে ডাক্তার ইসরাঈল চমৎকার একজন মানুষ। শুনেছি প্রচুর পরিমাণ গ্রাম্য গরীব-অসহায় রোগী তার কাছে আসে এবং বিনামূল্যে চিকিৎসা নেয়। অন্যান্য ডাক্তাররা যেখানে নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত, সেখানে তিনি গরিব অসহায়দের নিরবে চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছে, তা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। 

কিশোরগঞ্জ শহরের হয়বতনগর এলাকার বাসিন্দা ও নেত্রকোনা সরকারি কলেজের অবসরপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল মাহবুবুর রহমান মেডিভয়েসকে বলেন, এরকম কর্মনিষ্ট ও মানবসেবী ডাক্তার আমাদের সমাজে খুবই দরকার। সবসময় সব রোগীর সঙ্গেই সমান সদাচরন তার। 

ডা. ইসরাঈলের কথা

ডা. ইসরাঈল হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি মেডিভয়েসকে জানান, আমি একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি আর নিজের আত্মতৃপ্তি থেকে গরিব মানুষের স্বাস্থ্যসেবায় কাজ করে যাচ্ছি। তারা যখন এসে অসহায়ত্বের কথা বলে, তখন  নিজের অজান্তেই কষ্ট অনুভব করি। 

তিনি বলেন, নানা সময়ে ডাক্তারদের ব্যাপারে নানা ধরনের কথা শুনা যায়। সব ডাক্তারই যে ভাল কাজ করে এটা বলা যাবে না, তবে ভুল বুঝাবুঝির সংখ্যাটাই বেশি। 

রোগী নিয়ে একটি স্মৃতি

নেত্রকোনা জেলার মদন হাসপাতালে মেডিকেল অফিসারের দায়িত্বরত এক ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরে ডা. ইসরাঈল বলেন, হাসপাতাল কোয়ার্টারে থাকাকালীন সময়ে একদিন সন্ধ্যায় একজন দৌঁড়ে এসে বলছে, স্যার স্যার জরুরি একজন রোগী দেখতে হবে। অ্যাডভোকেট অজয় বাবুর ছেলের পেট কেটে গেছে। তারপর তাড়াহুড়া করে গিয়ে দেখি অবস্থা বেগতিক। জানতে পারলাম খাওয়া দাওয়া শেষে পেপসির বোতল (কাচেঁর) দা দিয়ে আঘাত করে খুলতে চাইলে ভেঙে পেটে এসে ঢুকে যায়। এবং নাড়িভুরি ছিদ্র হয়ে খাবার বের হয়ে যায়।

এলাকার রাস্তা খারাপ হওয়ায় জেলা হাসপাতালেও পাঠানো সম্ভব নয়। এমতাবস্থায় সাহস করেই জুনিয়র মেডিকেল অফিসারকে নিয়ে অপারেশনের সিদ্ধান্ত নিই। তারপর অবস্থার কিছুটা উন্নতি রোগীকে হলে জেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়। দুদিন পরই সে সুস্থ্ হয়ে যায়। এ ঘটনাটি আমার স্মৃতিময় একটা ঘটনা।

পারিবারিক জীবন

পারিবারিক জীবনে তিনি ৩ কন্যা সন্তানের জনক। প্রথম মেয়ের বিয়ে হয়েছে। দ্বিতীয় মেয়ে আব্দুল হামিদ মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস পড়ছে। ছোট মেয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

অনারারি চিকিৎসকদের ভাতা প্রদানে নীতিগত সিদ্ধান্ত

অনারারি চিকিৎসকদের ভাতা প্রদানে নীতিগত সিদ্ধান্ত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: অনারারি চিকিৎসকদের ভাতা প্রদানে নীতিগত সিধান্ত নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে সরকার…

চিকিৎসাধীন নার্সের মৃত্যুতে রামেক হাসপাতালে ভাঙচুর

চিকিৎসাধীন নার্সের মৃত্যুতে রামেক হাসপাতালে ভাঙচুর

মেডিভয়েস রিপোর্ট: রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দিলারা খাতুন নামে এক…

‘দুর্বল পরিকল্পনার কারণে স্বাস্থ্যে সর্বনিম্ন বরাদ্দ’ 

‘দুর্বল পরিকল্পনার কারণে স্বাস্থ্যে সর্বনিম্ন বরাদ্দ’ 

মেডিভয়েস রিপোর্ট: ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২৫…

বিএসএমএমইউতে ৩৫৩ শ্রবণ প্রতিবন্ধীর কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট সম্পন্ন

বিএসএমএমইউতে ৩৫৩ শ্রবণ প্রতিবন্ধীর কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট সম্পন্ন

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ২০১০ সাল থেকে শুরু…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর