ঢাকা      সোমবার ১৯, নভেম্বর ২০১৮ - ৪, অগ্রাহায়ণ, ১৪২৫ - হিজরী

চিকিৎসককে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে কর্মবিরতি

চিকিৎসককে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে কলকাতায় কর্মবিরতি পালন করেছেন চিকিৎসকরা।

আজ বেলা ১২ টা থেকে ১ টা পর্যন্ত এ প্রতিবাদ চালানো হয়।

চিকিৎসকদের ছ'টি সংগঠনের এই কর্মবিরতির নাম ‘প্রতিবাদ ঘন্টা’।এই সময় সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতালের ইমারজেন্সি বাদে অন্য কোথাও চিকিৎসকরা সেবা দেননি।

দক্ষিণ কলকাতার ইকবালপুরের বেসরকারি এক হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক শ্রীনিবাস রাও গেড্ডামকে গত ২৯ অগাস্ট নিগ্রহের অভিযোগ উঠেছিল যাদবপুরের‌ ওসি পুলক দত্তর বিরুদ্ধে।ওসির শাস্তির দাবিতে গত ৩ সেপ্টেম্বর এক ঘন্টার কর্মবিরতির ঘোষণা করেছিল চিকিৎসকদের সংগঠনগুলো।সেদিন বিকেলে বেসরকারি ওই হাসপাতালের সামনে থেকে আলিপুর থানা পর্যন্ত মিছিল করেন চিকিৎসকরা।পুলক দত্তর বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না, এই প্রশ্ন তুলে আলিপুর থানার সামনে কিছুক্ষণ রাস্তা অবরোধও করেন তারা।৫ সেপ্টেম্বর এই কর্মবিরতি পালনের কথা ছিল।কর্মবিরতি সফল করতে IMA-র রাজ্য শাখার কাছে সমর্থন চেয়েছিলেন চিকিৎসকরা।

তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থিত চিকিৎসকদের সংগঠন প্রোগ্রেসিভ ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের থেকে কর্মবিরতির সমর্থন পেতে চিকিৎসকদের ছ'টি সংগঠনের তরফে আবেদন জানানো হয়েছিল। প্রতিবাদের এই ঘণ্টাকে কি সমর্থন করবে এই সংগঠন?

আজকের এই ‘প্রতিবাদ ঘন্টা’য় কালো ব্যাজ পরে জরুরি সেবা স্বাভাবিক রাখার কথা জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

চিকিৎসকদের ছ'টি সংগঠনের তরফে ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টরস ফোরামের সভাপতি রেজাউল করিম জানিয়েছেন, রোগী পরিষেবার বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কর্মবিরতি তারা চান না।‌ কিন্তু বাধ্য হয়ে কর্মবিরতির এই কর্মসূচি তাদের নিতে হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

চলে গেলেন এশিয়ার প্রথম নারী নিউরোসার্জন

চলে গেলেন এশিয়ার প্রথম নারী নিউরোসার্জন

মেডিভয়েস রিপোর্ট: চলে গেলেন এশিয়ার প্রথম নারী নিউরোসার্জন। ডা. টিএস কনকা। তার…

প্রথম হাতি স্পেশালিটি হাসপাতাল

প্রথম হাতি স্পেশালিটি হাসপাতাল

মেডিভয়েস ডেস্কঃ ভারতের উত্তরপ্রদেশ মথুরায় উদ্বোধন হল দেশের প্রথম হাতি স্পেশালিটি হাসপাতাল। যেখানে…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর