২৭ অগাস্ট, ২০১৮ ০২:৩০ এএম

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের সময় পরিবর্তন

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের সময় পরিবর্তন

মেডিভয়েস ডেস্ক: এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার আবেদনের সময় পরিবর্তন করা হয়েছে। সংশোধিত সময় অনুযায়ী, আগামী ৩১ আগস্ট থেকে অনলাইনে এ ভর্তি আবেদন শুরু হবে। চলবে ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। সম্প্রতি কয়েকটি জেলায় নতুন সরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপনের সরকারের সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের চিকিৎসা শিক্ষা ও স্বাস্থ্য জনশক্তি উন্নয়ন বিভাগ থেকে এ আদেশ জারি করা হয়।

আজ ২৭ আগস্ট (সোমবার) থেকে অনলাইনে ওই পরীক্ষার আবেদন শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সফটওয়ার প্রস্তুত সংক্রান্ত কারণে এটি পিছিয়ে ৩১ আগস্ট করা হয়েছে।

নতুন আদেশ অনুযায়ী, আগামী ৩১ আগস্ট (শুক্রবার) দুপুর ২টা থেকে এমবিবিএস পরীক্ষার জন্য অনলাইনে ভর্তি আবেদন শুরু হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, এমবিবিএস ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি সংক্রান্ত অনলাইন সফটওয়্যার প্রস্তুতকরণের সুবিধার্থে ছাত্র-ছাত্রীদের অনলাইন ভর্তি আবেদন ২৭ আগস্টের পরিবর্তে ৩১ আগস্ট দুপুর ১২ থেকে শুরু হবে। অনলাইন আবেদনের শেষ তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর অপরিবর্তিত থাকবে।

এমবিবিএস ভর্তির জন্য অনলাইন ফরম পূরণের নিয়মাবলী ও ভর্তি সংক্রান্ত বিজ্ঞরিত তথ্য http://dghs.teletalk.com.bd স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ওয়েব সাইট www.mohfw.gov.bd এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ওয়েব সাইট www.dghs.gov.bd হতে জানা যাবে।

প্রসঙ্গত, এবারের এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি আবেদনের যোগ্যতা হিসেবে এসএসসি ও এইচএসসি তে মোট জিপিএ-৯ নির্ধারণ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর৷ ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ৫ অক্টোবর সকাল ১০ টা থেকে ১১ টা পর্যন্ত৷

এমসিকিউ প্রশ্নের ১ ঘন্টার লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। লিখিত পরীক্ষায় বিষয় ভিত্তিক নম্বর: জীববিদ্যা -৩০, রসায়নবিদ্যা -২৫; পদার্থবিদ্যা -২০; ইংরেজী -১৫; সাধারণ জ্ঞানঃ বাংলাদেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি -৬, আন্তর্জাতিক -৪।

এবারের এমবিবিএস/বিডিএস ভর্তি পরীক্ষায় পূর্ববর্তী বছরের এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের সর্বমোট নম্বর থেকে ০৫ (পাঁচ) নম্বর কর্তন করে এবং পূর্ববর্তী বৎসরের সরকারি মেডিকেল বা ডেন্টাল কলেজ ইউনিট এ ভর্তিকৃত ছাত্র/ছাত্রীদের ক্ষেত্রে মোট প্রাপ্ত নম্বর থেকে ০৭.৫ (সাত দশমিক পাঁচ) নম্বর কেটে মেধা তালিকা তৈরি করা হবে। লিখিত পরীক্ষায় প্রতিটি ভুল উত্তর প্রদানের জন্য ০.২৫ নম্বর কর্তন করা হবে। লিখিত পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্যে নূন্যতম ৪০ নম্বর পেতে হবে। লিখিত পরীক্ষায় ৪০ নম্বরের কম নম্বর প্রাপ্তরা অকৃতকার্য বলে গণ হবেন। শুধুমাত্র কৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের মেধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

সকল উপজাতীয় ও পার্বত্য জেলার অ-উপজাতীয় প্রার্থীদের ক্ষেত্রে এসএসসি/সমমান ও এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় মোট জিপিএ কমপক্ষে ৮,০০ হতে হবে। তবে এককভাবে কোন পরীক্ষায় জিপিএ ৩.৫০ এর কম হলে আবেদনের যোগ্য হবেন না। সকলের জন্যে জীববিজ্ঞানে (Biology) ন্যূনতম জিপি ৩.৫০ থাকতে হবে।

নতুন চার মেডিকেল

দেশে নতুন আরও চারটি সরকারি মেডিকেল কলেজের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি জানান, চলতি বছরের অক্টোবরেই অনুমোদন পাওয়া নতুন তিনটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো নির্মাণ কাজ শুরু হবে। রোববার দুপুরে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান,নতুন চারটি মেডিকেল কলেজ চালুর প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মতি পাওয়া গেছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, নওগাঁ, নেত্রকোণা, মাগুরা ও নীলফামারীতে এই চারটি মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হবে।

এছাড়া চাঁদপুরে মেডিকেল কলেজ করার আরেকটি প্রস্তাব অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে বলে ও জানিয়েছেন নাসিম।

তিনি আরো বলেন, আসন্ন ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ থেকেই আড়াইশ শিক্ষার্থী নতুন অনুমোদিত চার মেডিকেল কলেজে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবে।

এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত সরকারি মেডিকেল কলেজের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৪১টি আর সেনাবাহিনী পরিচালিত মেডিকেল কলেজের সংখ্যা ছয়টি।  আর দেশে বেসরকারি মেডিকেল কলেজের সংখ্যা ৬৯- এ।  এছাড়া প্রত্যেকটিতে জেলায় একটি করে মেডিকেল কলেজ করার পরিকল্পনা রয়েছে বর্তমান সরকারের।

►সংশোধিত নোটিশ দেখতে ক্লিক করুন

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি