১৬ অগাস্ট, ২০১৮ ১০:১০ এএম
জাতীয় শোক দিবস

বিএসএমএমইউ সাড়ে ৪ হাজার রোগীকে ফ্রি চিকিৎসা

বিএসএমএমইউ সাড়ে ৪ হাজার রোগীকে ফ্রি চিকিৎসা

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাৎবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বুধবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো বিনামূল্যে সকল ল্যাবরেটরি ইনভেস্টিগেশন প্রদানসহ প্রায় সাড়ে ৪ হাজার রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আব্দুল্লাহ আল হারুন মেডিভয়েসকে জানান, জাতীয় শোক দিবসে চিকিৎসাসেবা কার্যক্রমে মেডিসিন অনুষদে ২৭৮২ জন, সার্জারি অনুষদে ১৫০০ জন এবং দন্ত অনুষদে ২০০ জনসহ মোট ৪৪৮২ জন রোগীকে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিভাগের অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক ও সহকারী অধ্যাপকগণসহ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকবৃন্দ চিকিৎসাসেবা প্রদান করেছেন।

এই সেবা কার্যক্রমে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকবৃন্দ ছাড়াও চিকিৎসক, ছাত্রছাত্রী, কর্মকর্তা, নার্স, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট, নমুনা সংগ্রহকারী (ফ্ল্যাবোটমিস্ট), টেকনিশিয়ানসহ সাপোর্টিং স্টাফ ও কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করে। কর্মসূচির মধ্যে ছিল সকাল সোয়া ৮টায় ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলন, সকাল ৮টা ৫১ মিনিটে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের বি ব্লকে স্থাপিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ম্যূরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ, সকাল সাড়ে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের বটতলায় স্বেচ্ছায় রক্তদান ও বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কর্মসূচীর উদ্বোধন। সকাল সাড়ে ১০টায় বনানী কবরস্থানে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠপুত্র জনাব শেখ কামালসহ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নিগত সকল শহীদ-এর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন ও দোয়া মোনাজাত, দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে বাদ জোহর কোরানখানি, দোয়া মাহফিল ও তবারক বিতরণ ইত্যাদি। 

কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলী আসগর মোড়ল, সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ, মেডিসিন অনুষদের ডীন অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ, দন্ত অনুষদের ডীন অধ্যাপক ডা. গাজী শামীম হাসান, শিশু অনুষদের ডীন অধ্যাপক ডা. চৌধুরী ইয়াকুব জামাল, মেডিক্যাল টেকনোলজি অনুষদের ডীন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এ বিএম আব্দুল হান্নান, পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ আব্দুল্লাহ আল হারুন, নিউরোসার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এ টি এম মোশারেফ হোসেন, এ্যানেসথেসিয়া বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এ কে এম আখতারুজ্জামান, হেমাটোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোঃ আব্দুল আজিজ, ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আয়েশা খাতুন, সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোঃ আসাদুল ইসলাম, সাবেক রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. মোঃ সায়েদুর রহমান, গ্রন্থাগারিক অধ্যাপক ডা. মোঃ মনিরুজ্জামান খান, সহকারী প্রক্টর অধ্যাপক ডা. এসএম মোস্তফা জামান, সহকারী প্রক্টর সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোঃ আবু তাহের, নিউরোসার্জারি বিশেষজ্ঞ ডা. মোহাম্মদ হোসেন, সহকারী প্রক্টর সহযোগী অধ্যাপক ডা. রেজাউল আমিন, সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোঃ সালাহউদ্দীন শাহ, সহযোগী অধ্যাপক ডা. হারাধন দেবনাথ, পরিচালক (অর্থ ও হিসাব) মোঃ আবদুস সোবহান, চীফ এস্টেট অফিসার ডা. এ কে এম শরীফুল ইসলাম, অতিরিক্ত পরিচালক (হাসপাতাল) ডা. নাজমুল করিম মানিক প্রমুখ ছাড়াও সম্মানিত বিভাগীয় চেয়ারম্যানবৃন্দ ও সম্মানিত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকবৃন্দ। 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কৈফিয়তনামা

ভুল কাজ করে, ভুল কথা বলে সরকারকে বিব্রত করবেন না

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কৈফিয়তনামা

ভুল কাজ করে, ভুল কথা বলে সরকারকে বিব্রত করবেন না

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি