ডা. আব্দুর রব

ডা. আব্দুর রব

মেডিকেল অফিসার, বিসিএস (স্বাস্থ্য)। 

এফসিপিএস-২ ট্রেইনি (সার্জারি)।

 সাবেক শিক্ষার্থী, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ। 


১১ অগাস্ট, ২০১৮ ১১:৪৮ এএম

চাচার চিকিৎসায় কমিশন চায় ভাইপো!

চাচার চিকিৎসায় কমিশন চায় ভাইপো!

লোকটা নিজে পল্লী চিকিৎসক। আপন চাচাকে নিয়ে এসেছেন। চাচাই নাকি মানুষ করেছে। ছোটবেলায় বাবা ছিল না।

চাচা খুবই গরিব মানুষ। এক হাতের অর্ধেক প্রায় পঁচে গেছে। টেন্ডনগুলো সরু পাটের সুতার মত অবহেলায় পড়ে আছে। সেই নাকি চিকিৎসা করে এই দুরাবস্থা করেছে। বললাম অপারেশনটা ফ্রি করে দেব। কত মানুষেরই তো ফ্রি অপারেশন করি। গরিব মানুষ, উপকার হোক তার। 

ক্লিনিকে রোগী চলে গেল। আমার আরো অপারেশন আছে। সেগুলো করতে লাগলাম। 
- অজ্ঞানের ডাক্তার ভাইকে বললাম, আমি ফ্রি অব কষ্টে করতেছি, আপনাকে কিন্তু কম নিতে হবে। 
- রাজি হল। 
- ক্লিনিক যে দাদার, তিনিও বললেন গরিব মানুষ যা দিতে পারবে দিক। 

একটা ওটি শেষ করে খোঁজ নিতে গেলাম। চাচা চলে গেছে। অপারেশন করবে না। 
- ক্লিনিকের দাদার কাছে জিজ্ঞেস করলাম ঘটনা কী? এত খারাপ রোগী, অপারেশন না করে চলে গেল কেন? মারা যাবে তো!
- দাদা বললেন, চাচার সেই ভাইপো কমিশনের টাকা চেয়েছে আমার কাছে। রোগী নাকি বড় লোক। একবার স্বামী-স্ত্রী হজ করে এসেছে। আবার ওমরাহ করতে যাবেন। ভাইপোকে কমিশন দিতে রাজি হইনি। তাই চলে গেছে। এই ভাইপোকেই সে মানুষ করেছে।

পুরো হতভম্ব হয়ে গেলাম। খুবই অদ্ভুত। জীবনে এগুলোও দেখতে হবে ভাবিনি। মানুষ এতটা অমানুষ হয় সেটাও ধারনায় ছিল না। প্রায় ১০ হাজার টাকা মাফ করে দিয়ে নিজে চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়ে একি পেলাম পরিণামে? নিজের চাচাকেও ক্ষমা করতে পারে না, এ জাতির কী হবে? 

মনটা যেভাবে নষ্ট হয়েছে, আগামীকাল কোন গরিব মানুষ খারাপ অবস্থায় আসলে আমি ভরসা করব কিভাবে? সে দুই বার হজ করা গরিব মানুষ কিনা, আমাকে কেউ ঠকাচ্ছে কিনা? আমার নামে কেউ মোটা অঙ্কের টাকা নিচ্ছে কিনা? আসলে একসময় মানুষের জন্য ভাল কিছু করার মনটাই থাকে না। দোষ এই অমানুষগুলোর। 

কিছুদিন আগে আরেক চাচার মেজর একটা ওটি করে দিলাম ফ্রি। চাচা নাকি খুবই গরিব। ঠিক মত খাইতে পারে না। মনটা নরম হয়ে গেল আমার। পরে শুনি চাচা কোটিপতি। অপারেশনের নাম করে চাচার কাছ থেকে বড় অঙ্কের টাকা খসিয়ে আমাকে গরিব বলে চালিয়ে দিয়েছে। অপারেশনের পরে গাড়ি ভরে সব ভিআইপি লোকজন দেখতে আসে। পুরো অবাক হয়ে গেলাম। আমার মনে হয় পুরো দেশেরই এই বাজে অবস্থা।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না