ডা. নাজমুল ইসলাম

ডা. নাজমুল ইসলাম

অনারারি মেডিকেল অফিসার

শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ, বগুড়া।


০৯ অগাস্ট, ২০১৮ ০৮:১৬ পিএম

জয়দেবের জয়

জয়দেবের জয়

জয়দেব বসাক গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজের শেষ পর্বের ছাত্র। ছোটবেলা থেকেই ভলান্টিয়ার শব্দটির প্রতি বেশ আকর্ষণ ছিল তার। কিন্তু বড় মামা সবসময় তাতে বাঁধ সাধতেন। স্কুলের বিভিন্ন প্রোগ্রামে স্যাররা বিভিন্ন ক্লাস থেকে ভলান্টিয়ার নিয়োগ দিতেন প্রোগ্রাম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য। এর জন্য ভলান্টিয়ারদের আলাদা একটা ড্রেস কোড ছিল। কিন্তু ভলান্টিয়ার হওয়ার পূর্ব শর্ত ছিল প্রোগ্রামের আগের দিন রাতে স্কুলে থেকে প্রোগ্রামের বিভিন্ন কাজ করতে হবে।

বাসা থেকে বড় মামা বাদ সাধতেন। রাতে বের হতে দিতে চাইতেন না। তাই অনেক প্রোগ্রামে ভলান্টিয়ার হতে পারেনি জয়দেব। হঠাৎ নবম শ্রেণীতে থাকাকালীন সময় স্কুলের বার্ষিক কুচকাওয়াজের জন্য প্যারেড কমান্ডার বাছাই চলছে। এসময় জয়দেব স্কুলের ক্রীড়া শিক্ষক সাইফুল স্যারের বিশেষ নজরে পড়েন। স্যার জয়দেবকে প্যারেড কমান্ডার হিসেবে বাছাই করলেন এবং যারা প্যারেড কমান্ডার থাকে তারা আবার অটোমেটিক ভলান্টিয়ার।

সেদিন থেকে জয়দেবের ভলান্টিয়ার হবার স্বপ্ন পূরণ হয়। বড় মামাও আর বাঁধা দেননি তাতে। সেই থেকে বিভিন্ন সামাজিক কাজে নিজেকে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে যুক্ত রয়েছেন জয়দেব। জয়দেব জয় করে নেয় সকল প্রতিকূলতাকে।

যখন মেডিকেলে কলেজে পড়তে আসে তখন পরিচয় হয় মেডিসিন ক্লাবের সাথে। মেডিসিন ক্লাব মেডিকেল ছাত্রছাত্রীদের দ্বারা পরিচালিত স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। সংগঠনটি যে কোন গ্রুপের রক্তের প্রয়োজনে কাজ করে যাচ্ছে। রক্তের প্রয়োজন মিটানো ছাড়াও শীতবস্ত্র বিতরণ, বিভিন্ন রোগের পরীক্ষা, স্বেচ্ছায় রক্তদানের প্রোগ্রাম ইত্যাদি কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

ঝড়-বাদল বা গভীর রাতেও সংগঠনটির স্বেচ্ছাসেবকদের কর্মতৎপরতা থেমে থাকে না। জয়দেব নিজেও বহু ঝড়ের রাতে অনেক রোগীকে রক্ত দিয়ে জীবন বাঁচিয়েছেন। নিজ কাজের যোগ্যতায় ক্লাবের সকল সদস্যদের মনোযোগ আকর্ষণ করে নেয় তিনি। মেডিসিন ক্লাব, গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজ ইউনিটে পালন করেন বিভিন্ন দায়িত্ব।

পরবর্তীতে সিনিয়র মেডিসিনিয়ানদের পরামর্শে মেডিসিন ক্লাবের কেন্দ্রীয় কমিটিতে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এর পোস্ট এবং পরবর্তীতে অর্থ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করার দায়িত্ব নেন। সেই পথচলা থেকে শুরু হয়ে ২০১৮-১৯ সেশনের জন্য মেডিসিন ক্লাব, কেন্দ্রীয় পরিষদের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জয়দেব। মেডিসিন ক্লাব নিয়ে নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে জয়দেব বসাক বলেন-

"মেডিসিন ক্লাব আমার কাছে শুধু একটি সংগঠন নয়, এটি আমার প্রাণের সংগঠন, এটি আমার আবেগ ও ভালোবাসার জায়গা। অসংখ্য মানুষের ভালবাসা পেয়েছি আমি এই সংগঠন করতে গিয়ে যা আমার কাছে জীবনের পরম পাওয়া। মেডিসিন ক্লাব প্রতি বছর অসংখ্য থ্যালাসেমিয়া রোগীকে বিনাশর্তে রক্ত দিয়ে আসছে যা সত্যিই খুবই প্রশংসার দাবিদার। বর্তমানে ২৬টি মেডিকেল কলেজের মাধ্যমে এটি দেশব্যাপী তার কার্যক্রম পরিচালনা করছে।"

জয়দেবের ইচ্ছা হলো বঙ্গবন্ধুর চেতনাকে বুকে লালন করে দেশের মানুষের পাশে থাকা, দেশের মানুষকে ভালোবাসা।

মেডিভয়েসকে বিশেষ সাক্ষাৎকারে পরিচালক

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শতাধিক করোনা বেড ফাঁকা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত