ঢাকা      শনিবার ২০, অক্টোবর ২০১৮ - ৪, কার্তিক, ১৪২৫ - হিজরী

সর্বাধিক যক্ষ্মা রোগীর তালিকায় বাংলাদেশ সপ্তম

মেডিভয়েস রিপোর্ট : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে বিশ্বের যে ৩০টি দেশে যক্ষ্মা রোগী সর্বাধিক তার মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সপ্তম।  আগের অবস্থা থেকে রোগটি নিয়ন্ত্রণে এলেও টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জন করতে হলে আরও নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মত প্রকাশ করেছেন।

 গতকাল সোমবার রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে ‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির সাফল্য ও প্রতিবন্ধকতা; শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এসব তথ্য দেন।
এ লক্ষ্যে তারা ছয়টি চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার সুপারিশ রেখেছেন।  চ্যালেঞ্জগুলো হলো- শনাক্ত না হওয়া যক্ষ্মা রোগী সেবার আওতায় না আসা, প্রয়োজনীয় জনবলের অভাব, তৃণমূল পর্যায়ে সর্বাধুনিক ডায়াগনস্টিক (রোগ নির্ণয়) ব্যবস্থার সুযোগ না থাকা, নগরে যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ, এই রোগ নিয়ন্ত্রণে বেসরকারি চিকিৎসকদের কম সম্পৃক্ততা ও যক্ষ্মা সনাক্তকরণ বাধ্যতামূলক না হওয়া।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, অনেক মারাত্মক রোগের ক্ষেত্রে আমরা সফলতা অর্জন করেছি। আর কিছু ক্ষেত্রে আমাদের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। পার্শ্ববর্তীরা তুলনামূলকভাবে উন্নত দেশ ভারত-পাকিস্তানের চেয়ে আমরা স্বাস্থ্যখাতে অনেক এগিয়ে আছি।

যক্ষা রোগের ক্ষেত্রে আমাদের এখন সর্বস্তরের সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালু করতে হবে। যা আমরা করছিও। যাতে মানুষ এই রোগ নির্ণয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজে এগিয়ে আসে।

ইত্তেফাকের সম্পাদক তাসমিমা হোসেনের সভাপতিত্বে বৈঠকে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির লাইন ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. মো. সামিউল ইসলাম, ন্যাশনাল অ্যান্টি টিউবারকিউলোসিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (নাটাব) প্রেসিডেন্ট মোজাফফর হোসেন পল্টু, ব্র্যাকের কমিউনিকেবল ডিজিসেস প্রোগ্রামের পরিচালক ড. মো. আকরামুল ইসলাম, জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির কো-অর্ডিনেটির ডা. রুপালী শিশির বানু।

এ বিষয়ে ব্র্যাকের কমিউনিকেবল ডিজিসেস প্রোগ্রামের পরিচালক ড. মো. আকরামুল ইসলাম বলেন, আমাদের রোগ নির্ণয়ের উপায় বা সে কাজে ব্যবহৃত যন্ত্রগুলো অনেক পুরোনো। এ রোগ নির্ণয়ের ক্ষেত্রে আধুনিক যন্ত্রপাতি থাকা অবশ্য কর্তব্য। যদিও এ সরকার ১৯৩টি জিন এক্সপার্ট মেশিন ও ৬০টি এলইডি মাইক্রোস্কোপ ব্যবহার করা শুরু করেছে।

কিন্তু তা এই বিশাল জনসংখ্যার বিপরীতে খুবই অপ্রতুল। আমাদের কাছে কোনো নতুন ওষুধ নেই। আমরা পুরোনো আমলের ভ্যাক্সিন ও ওষুধ নিয়েই আছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ভেঙে যাচ্ছে!

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ভেঙে যাচ্ছে!

মেডিভয়েস রিপোর্ট : শীগ্রই স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ভেঙে পুনর্গঠিত হচ্ছে। বিভক্ত হয়ে স্বাস্থ্য শিক্ষা…

ন্যাশনাল ডিবেট ক্যাম্পেইন-১৮ চ্যাম্পিয়ান পার্কভিউ মেডিকেল কলেজ

ন্যাশনাল ডিবেট ক্যাম্পেইন-১৮ চ্যাম্পিয়ান পার্কভিউ মেডিকেল কলেজ

মেডিভয়েস ডেস্ক: ন্যাশনাল ডিবেট ক্যাম্পেইন-১৮ এর সংসদীয় বিতর্কে পার্কভিউ মেডিকেল কলেজ সিলেট…

হার্ট ৭০ শতাংশ ব্লকে আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যু

হার্ট ৭০ শতাংশ ব্লকে আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যু

মেডিভয়েস রিপোর্ট : ব্যান্ড সঙ্গীতের কিংবদন্তি আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুতে দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে নেমে…

ফাইনাল প্রফে অংশগ্রহণ বিষয়ে শুনানি ২২ অক্টোবর

ফাইনাল প্রফে অংশগ্রহণ বিষয়ে শুনানি ২২ অক্টোবর

মেডিভয়েস রিপোর্ট: মেডিকেলের তৃতীয় প্রফেশনাল পরীক্ষায় পাস করার পর একবছর পূর্ণ হওয়ার…

এফসিপিএস পরীক্ষার অনলাইন রেজিস্ট্রেশন শুরু

এফসিপিএস পরীক্ষার অনলাইন রেজিস্ট্রেশন শুরু

মেডিভয়েস রিপোর্ট: এফসিপিএস পার্ট-১, প্রিলিমিনারি এফসিপিএস পার্ট-২, এফসিপিএস পার্ট-২ (ফাইনাল), এমসিপিএসসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন…

ডাক্তারের সফল অস্ত্রোপচারে ৪ জমজ সন্তান প্রসব

ডাক্তারের সফল অস্ত্রোপচারে ৪ জমজ সন্তান প্রসব

মেডিভয়েস রিপোর্ট: জমজ সন্তান মানেই আলাদা একটা কৌতুহল। জমজ সন্তান হলেই তা…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর