০৭ অগাস্ট, ২০১৮ ১২:৩৬ পিএম

রোগীদের চিকিৎসার টাকা দিচ্ছেন চিকিৎসকেরাই

রোগীদের চিকিৎসার টাকা দিচ্ছেন চিকিৎসকেরাই

মেডিভয়েস ডেস্ক: হৃদরোগের চিকিৎসা এমনিতেই ব্যয়বহুল। শিশুদের হৃদরোগ সেখানে কোনো কোনো ক্ষেত্রে আরও জটিল।  যেসব গরিব মা-বাবার শিশুরা এই জটিল রোগে আক্রান্ত, সেসব ভাগ্যবিড়ম্বিত শিশুদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে চাইল্ড হার্ট ট্রাস্ট বাংলাদেশ (সিএইচটিবি) নামে একটি সংগঠন।  

যেখানে চিকিৎসকেরা শুধু বিনা মূল্যে চিকিৎসাই দেন না, চিকিৎসার ব্যয়ভারও বহন করেন।  গতকাল সোমবার বার্ষিক সাধারণ সভায় দায়িত্ব নেওয়ার পর এই ঘোষণা দিয়েছে ট্রাস্টের নতুন কমিটি।

বাংলাদেশে শিশুদের চিকিৎসায় পথিকৃৎ, প্রয়াত জাতীয় অধ্যাপক ডা. এম আর খানের নেতৃত্বে ২০১৪ সনের ২৬ জুন সংগঠনটি যাত্রা শুরু করে।  হৃদরোগের সঙ্গে সম্পৃক্ত চিকিৎসকদের ঐক্যবদ্ধ করে নিজেদের জাকাত এবং অনুদানের মাধ্যমে ট্রাস্টের তহবিল গড়ে তোলা হয়। 

এই টাকায় সমাজের দরিদ্র ও অবহেলিত শিশু হৃদরোগীদের চিকিৎসা করা হয়। প্রতিষ্ঠার পর তিন বছরে সংগঠনের পক্ষ থেকে ৯৩ জন গরিব রোগীকে চিকিৎসা ব্যয় বাবদ প্রায় ৩৮ লাখ টাকা আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

ট্রাস্টের কার্যক্রমের পরিধি আরও বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে গতকালের সভায়।  ব্যয়বহুল চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে নিজেদের পাশাপাশি সমাজের বিত্তবানদেরও সম্পৃক্ত করতে চাইছেন চিকিৎসকেরা।

তাঁদের মূল লক্ষ্য হৃদরোগের জন্য বিশেষায়িত একটি একটি পূর্ণাঙ্গ শিশু হাসপাতাল স্থাপন।

বার্ষিক সাধারণ সভায় সংগঠনের সভাপতি হিসেবে অধ্যাপক ডা. এস আর খান এবং প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে অধ্যাপক ডা. মতিওর রহমানকে নির্বাচিত করা হয়৷ সহসভাপতি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অধ্যাপক নুরুন্নাহার ফাতেমা এবং ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অধ্যাপক মুসা খান, মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুস সালামসহ সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অধ্যাপক ডা. এস আর খান আশা প্রকাশ করেন যে, আগামী বছর আরও বেশি সংখ্যক রোগীকে সহায়তা করা সম্ভব হবে।  প্রধান উপদেষ্টার বক্তৃতায় অধ্যাপক মতিওর রহমান বলেন, গত ৩ বছর সিএইচটিবি যে ধরনের অনুকরণীয় কাজ করছে, তা মাইলফলক হয়ে থাকবে। এটি একটি ব্যতিক্রমধর্মী প্রয়াস৷ 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত