ঢাকা      রবিবার ১৫, সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ৩১, ভাদ্র, ১৪২৬ - হিজরী

মেধাবী নিউরণ

মেধাবী নিউরণ : উর্মিতা দত্ত

উর্মিতা দত্ত। ২০১৫ সালে জানুয়ারিতে চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ১ম স্থান অধিকার করেন। এছাড়াও ১ম ও ২য় পেশাগত পরীক্ষাতেও ছিলেন সবার শীর্ষে। এই অসাধারণ অর্জনের অনুভূতি জানতে তার মুখোমুখি হয়েছিল মেডিভয়েস। সাক্ষাতকার নিয়েছেন আহসান আব্দুল্লাহ

প্রোফাইল
নাম : উর্মিতা দত্ত 
পিতা : উত্তম দত্ত
স্কুল ও কলেজ : ভিকারুননিসা নূন স্কুল এন্ড কলেজ
মেডিকেল কলেজ : ঢাকা মেডিকেল কলেজ, ব্যাচ কে-৬৭
বিশেষ অর্জন : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চুড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষা ’২০১৫ তে প্রথম স্থান অর্জন।
প্রিয় লেখক : রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
প্রিয় বই : রবি ঠাকুরের যে কোন  বই, সত্যজিৎ রায়ের ফেলুদা সমগ্র
প্রিয় ব্যক্তিত্ব : বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন।
প্রিয় রং : সাদা, নীল
প্রিয় শখ : ফুলের বাগান করা, ঘর সাজানো।

মেডিভয়েস :  আপনার অসাধারন এই সাফল্যের পেছনের রহস্য কি ?
উর্মিতা দত্ত : আমার মতে যেকোনো লক্ষ্যে পৌঁছানোর মূল চাবিকাঠি হল দৃঢ় সংকল্প, একনিষ্ঠতা, অধ্যবসায় আর অক্লান্ত পরিশ্রম।

মেডিভয়েস : এ সাফল্যের পেছনে কাদের অবদান বড় করে দেখছেন?
উর্মিতা দত্ত : সর্বপ্রথম স্বীকার্য, পরম করুণাময়ের অশেষ কৃপা ছাড়া এমন ফলাফল অর্জন সম্ভব নয়। পাশাপাশি আমার বাবা-মা শিক্ষকদের আশীর্বাদ সবসময় আমার সঙ্গে ছিল। তাছাড়া শুভানুধ্যায়ী সহপাঠীরা যারা আমার উপর ভরসা রেখে সর্বদা উৎসাহিত করেছেন তাদের কাছেও আমি চিরকৃতজ্ঞ।

মেডিভয়েস : পেশাগত পরীক্ষার জন্য কিভাবে প্রস্তুতি নিলে ফলাফল ভাল করা সম্ভব বলে আপনি মনে করেন?
উর্মিতা দত্ত : পেশাগত পরীক্ষার প্রস্তুতিকে সামান্য ২-১ মাসের সীমানায় আবদ্ধ করে রাখলে চলবেনা। প্রস্তুতি শুরু করতে হবে ক্লাস শুরু হওয়ার প্রথম দিন থেকেই, Lecture, Tutorial, Practical class, Ward  এ নিয়মিত Attend করলে পরীক্ষার প্রশ্ন ও উত্তর দেয়ার ধরণ সম্বন্ধে সম্যক ধারণা তৈরী হয়। পাশাপাশি বিগত বছরগুলোর প্রশ্নও দেখে রাখা যেতে পারে। আর একটি কথা অবশ্যই বলব পাঠ্যবইয়ের কোন বিকল্প নেই। প্রশ্নোত্তরের গঠন সম্বন্ধে ধারণা স্বচ্ছ করতে গাইড বই এর প্রয়োজন হতে পারে কিন্তু তা অবশ্যই মূল বইয়ের প্রতিস্থাপক নয়।

মেডিভয়েস : আপনার কি রিডিং পার্টনার ছিল? 
উর্মিতা দত্ত : আমি বাসায় থেকে পড়াশুনা করেছি। তাই আমার রিডিং পার্টনার ছিল না। আর এ বিষয়টি ব্যক্তি বিশেষে ভিন্ন।

মেডিভয়েস : ‘ডেমো’কে কিভাবে মূল্যায়ন করেন?
উর্মিতা দত্ত : আমি কারো কাছ থেকে তেমন ডেমো নেইনি। নিজেই বুঝে পড়ার চেষ্টা করেছি। তবে পরীক্ষার আগে কয়েকজনের সাথে পড়াগুলো আলোচনা করে নিতাম। এতে মৌখিক পরীক্ষায় উত্তরগুলো গুছিয়ে দেয়া সহজ হতো।   

মেডিভয়েস : ভাল ফলাফল করতে এছাড়া আর কি কি দক্ষতা থাকা প্রয়োজন বলে আপনি মনে করেন?
উর্মিতা দত্ত : সুন্দর  উপস্থাপনা মেডিকেলের পরীক্ষায় ভাল করার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি মৌখিক এবং লিখিত উভয় পরীক্ষার ক্ষেত্রেই সত্য। খেয়াল রাখা উচিৎ পরীক্ষার খাতায় প্রশ্নোত্তরগুলো যেন স্বচ্ছ গোছালো ও সুনির্দিষ্ট হয়। এমন হলে একই পরিমাণ লিখেও অন্যদের চেয়ে বেশী নম্বর পাওয়া যায়। আর মৌখিক পরীক্ষার সময়েও যাতে সাবলিলভাবে জবাবগুলো দেয়া যায় সেজন্য নিয়মিত অনুশীলন প্রয়োজন। ক্লাসে নিয়মিত মিথষ্ক্রিয়ার কারণে যদি শিক্ষকদের সাথে পরিচিতি তৈরী হয় তবে তা মৌখিক পরীক্ষায় দারুণভাবে সহায়তা করে। 

মেডিভয়েস : বর্তমান মেডিকেল শিক্ষা ব্যবস্থাকে কিভাবে মূল্যায়ন করছেন?
উর্মিতা দত্ত : আমাদের দেশের মেডিকেল শিক্ষা ব্যবস্থার খুব ভাল একটি দিক হলো আমরা প্রচুর পরিমাণে রোগীর সংষ্পর্শ পাই। ফলে আমাদের প্রায়োগিক জ্ঞান অর্জন তুলনামূলক সহজ। তবে আমাদের পাঠ্যক্রমটি পরিমার্জন করে ক্লিনিক্যাল বিষয়গুলোর প্রতি আরো গুরুত্ব বাড়ানো দরকার।  

মেডিভয়েস : ক্যারিয়ার নিয়ে আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?
উর্মিতা দত্ত : কার্ডিওথোরাসিক সার্জারি, নিউরোসার্জারি, প্লাস্টিক সার্জারি এগুলো আমার খুবই পছন্দের। হয়ত এগুলোর মধ্য থেকে কোন একটি বেছে নেব বাকিটা সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছা।

মেডিভয়েস : ক্লিনিক্যাল সেক্টরে আপনার আদর্শ কে?
উর্মিতা দত্ত : আমাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক খান আবুল কালাম আজাদ স্যার। তাঁর যে অসাধারণ Knowledge, clinical skill এর পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক; সর্বোপরি প্রতিটি রোগীর প্রতি তার যে সহমর্মিতা ও ভালবাসা তা সত্যিই অনুসরনীয়। 

মেডিভয়েস : নবীন শিক্ষার্থীদের জন্য আপনার কোন উপদেশ?
উর্মিতা দত্ত : অকপটে স্বীকার করছি মেডিকেল লাইফ খুবই কষ্টের। সাফল্য অর্জন এখানে অত্যন্ত কঠিন। কিন্তু তাই বলে হাল ছেড়ে পিছিয়ে পড়ার কোনো সুযোগ নেই। কঠিন বাঁধাকে কঠিন মনোবল দিয়েই জয় করতে হয়। যে যুদ্ধে নেমেছ তাকেই আরাধ্য করে এগিয়ে চলো। সাফল্য আসবেই। 

মেডিভয়েস : ইন্টার্নি লাইফ কেমন উপভোগ করছেন?
উর্মিতা দত্ত : ইন্টার্নি লাইফ নিঃসন্দেহে  Challanging। কাজের চাপ প্রচুর; কিন্তু তারপরও হাতে কলমে শেখার অনবদ্য সুযোগ। ভবিষ্যতে যত বড় ইমারতই গড়ি না কেন তার শক্ত ভিত্তি তো এখনই স্থাপন করতে হবে- এই কথাটা প্রতি মুহূর্তেই মাথায় রাখার চেষ্টা করি। আর হ্যাঁ, বর্তমানে জীবনযাত্রার ক্রমবর্ধমান ব্যয়ের সাথে সঙ্গতি রেখে ইন্টার্নি চিকিৎসকদের মাসিক ভাতা বৃদ্ধি করা একান্ত দরকার। 

মেডিভয়েস : মেডি ভয়েস সম্পর্কে কিছু বলুন।
উর্মিতা দত্ত : এক কথায় মেডিভয়েস চিকিৎসক সমাজের ঘটনাবহুল জীবনের চালচিত্র; তাদের সুখ-দুঃখ, চাওয়া-পাওয়া, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির প্রতিচ্ছবি। পাশাপাশি বলতেই হয় মেডিভয়েস একদিকে যেমন মেডিকেল সেক্টরের সাম্প্রতিক আবিস্কার ও অগ্রগতিগুলো জানতে সাহায্য করে, তেমনি চিরস্মরণীয়-বরণীয় ব্যক্তিদের, এমনকি প্রতিভাধর  অনেক নতুন মুখের সাথেও পরিচিত করে আমাদের। ভবিষ্যতেও মেডিভয়েস তার এই আন্তরিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখে ক্রমাগত সামনে এগিয়ে যাবে। এই শুভকামনা রইল।

 

(মেডিভয়েস : সংখ্যা ৬, বর্ষ ২, ডিসেম্বর-জানুয়ারী ২০১৬ তে প্রকাশিত)

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর