ঢাকা      মঙ্গলবার ২৩, অক্টোবর ২০১৮ - ৮, কার্তিক, ১৪২৫ - হিজরী



অনিকেত চ্যাটার্জি

শিক্ষার্থী, কলকাতা মেডিকেল কলেজ। 


আক্রান্ত মেডিকেল কলেজ

১৮৪ বছরের পুরোনো এশিয়ার প্রাচীনতম কলকাতা মেডিকেল কলেজকে নিয়ে চলছে রাজনৈতিক স্বার্থের ছিনিমিনি খেলা।

গত ৩ বছর ধরে বারবার আবেদনের পরেও কোনোরকম হোস্টেল কাউন্সেলিং প্রক্রিয়া না করায় মেডিকেল কলেজের বর্তমান দ্বিতীয়, তৃতীয়, ও চতুর্থ বর্ষের ছাত্ররা কেউই হোস্টেল পায়নি। জলপাইগুড়ি, মালদা, রায়গঞ্জ, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, দিনাজপুর প্রভৃতি দূর দূর জেলা থেকে আসা ছাত্ররা তিন বছর ধরে হোস্টেল অ্যাকোমোডেশন পায়নি এবং প্রিন্সিপাল তাদের আবেদনের প্রতি ভ্রূক্ষেপও করেননি। 

এছাড়াও, শেষ হোস্টেল কাউন্সেলিং প্রক্রিয়ার মাধ্যমে যে ফাইনাল ইয়ার এবং ফোর্থ ইয়ারের ছাত্রদের একাংশ হোস্টেল পেয়েছিল, সেই মেইন বয়েজ হোস্টেলের পাঁচতলার টেম্পোরারিভাবে বানানো ফলস সিলিং গত কয়েক মাসে চার-পাঁচবার ভেঙে পড়ে গেছে এবং বেশ কিছু ছাত্র আহত হয়েছে।

এখন, কিছুদিন আগে প্রিন্সিপাল উচ্ছল কুমার ভদ্র একটি নোটিশের মাধ্যমে জানান, নতুন যে ১১ তলা হোস্টেল বিল্ডিং তৈরি হয়েছে (যে হোস্টেলে সব ছাত্রদের থাকার যথেষ্ট রুম রয়েছে), সেই হোস্টেলে কেবলমাত্র নতুন ভর্তি হতে আসা ফার্স্ট ইয়ারের ছাত্ররাই জায়গা পাবে, অন্য কেউ নয়। এবং সেই হোস্টেলের সুপারিন্টেন্ডেন্টের পদ দেওয়া হয়েছে এমবিবিএস পাশ তৃণমূল ছাত্রনেতা পার্থপ্রতিম মণ্ডলকে, যার রাজনৈতিক গুণ্ডামি করার যথেষ্ট ইতিহাস রয়েছে। 

প্রায় ১০০ এর ওপরে ছাত্র যখন হোস্টেল পায়নি, তখন এমসিআই রেগুলেশনের দোহাই দিয়ে নতুন কলেজে আসতে চলা ফার্স্ট ইয়ারের ছাত্রদের আলাদা করে একটা হোস্টেলে রেখে তৃণমূলের নেতাকে সেই হোস্টেলের সুপার বানানো তৃণমূলের নতুন 'ক্যাডার' বানানোর প্রথম ধাপ বলেই মনে করছি আমরা।

আমরা, মেডিকেল কলেজের ছাত্ররা, আমাদের দাবি নিয়ে মেডিকেল কলেজের কমন রুমে ব্যাগ-বিছানা-বালিশ নিয়ে অবস্থান শুরু করি। ৫ জুলাই পর্যন্ত প্রায় ৮০ ঘন্টা অবস্থানের পরও প্রিন্সিপাল উদাসীন থাকেন ছাত্রদের দুর্দশার প্রতি। তিনি বলেন ‘Don't bother me’, কখনো বলেন ‘আমি তোমাদের কোনো দায়িত্ব নেব না’, আবার বলেন ‘তোমাদের ফার্স্ট ইয়ারের ত্রিসীমানাতেও ঘেঁষতে দেব না’! সিনিয়র-জুনিয়র রিলেশনশিপের ঐতিহ্য বহনকারী মেডিকেল কলেজে এরকম কথা রাজনৈতিক স্বার্থ ছাড়া বলা যায় না।

এই অবস্থায় আমরা বাধ্য হয়েই গত ৫ জুলাই দুপুর তিনটে থেকে প্রিন্সিপাল রুমের সামনে শান্তিপূর্ণ অবস্থান শুরু করি এবং তাঁকে জানিয়ে দিই, শিক্ষার্থীদের ন্যায্য দাবি তিনি কোনোভাবেই অগ্রাহ্য করতে পারেন না। এরপরেই মেডিকেল কলেজ তার সাম্প্রতিক ইতিহাসের সবচেয়ে অন্ধকার সময় দেখে।

রাত ৮টার সময় প্রিন্সিপালের নির্দেশে প্রায় ৭০-৮০ জন পুলিশ ও উর্দিছাড়া গুন্ডা কলেজ ক্যাম্পাসে এসে মেডিকেল কলেজের অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ব্লকের ভেতরে ঢোকে এবং শান্তিপূর্ণ অবস্থানরত ছাত্রদের ওপর শুরু করে নির্মম অত্যাচার। একের পর এক চড়-ঘুঁষি-লাথি মারতে থাকে ছাত্রদের, ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় প্রতিবন্ধী ছাত্রদের, উপস্থিত একজন ছাত্রীকে শ্লীলতাহানি করতেও ছাড়েনি এই চটি-পুলিশের দল। 

টেনে হিঁচড়ে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়া হয় ছাত্রদের, ছুঁড়ে ফেলা হয় তাদের নিজের কলেজ বিল্ডিংয়ের বাইরে। প্রায় ২০ জন মেডিকেল পড়ুয়া আহত হন, যাদের মধ্যে ২ জন গুরুতর আহত। এরপর পুলিশ তৃণমূলের দালাল প্রিন্সিপালকে গাড়িতে নিয়ে চলে যায়। ছাত্রদের ন্যায্য দাবিকে পিষে ফেলতে মেডিকেল কলেজের ক্যাম্পাসে পুলিশ ঢুকিয়ে মার খাওয়াতে হলো প্রিন্সিপালকে।

তবে কলেজ ক্যাম্পাসে পুলিশ ঢুকিয়ে দেওয়া প্রিন্সিপালের নোংরা চক্রান্ত মেডিকেল কলেজ বাস্তব হতে দেবে না। মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা এখনো লড়ছে— স্বচ্ছ অরাজনৈতিক হোস্টেল কাউন্সেলিংয়ের দাবিতে। অবস্থান চলছে এখনো।

আমাদের বর্তমান দাবি হলো—
১. মেডিকেল কলেজের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের ছাত্র সমেত যেসকল ছাত্রেরা হোস্টেল পায়নি তিনবছর ধরে, এবং যারা পুরোনো হোস্টেলে নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে থাকছে, তাদের স্বচ্ছ ও অরাজনৈতিক হোস্টেল কাউন্সেলিং প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সিনিয়রিটি ও দূরত্বের ক্রমানুসারে কলেজের প্রত্যেকটি হোস্টেল বিল্ডিংয়ে ( উক্ত New Boys' Hostel সহ) হোস্টেল অ্যাকোমোডেশন দিতে হবে।

২. উক্ত New Boys' Hostel এর সুপারিন্টেন্ডেন্ট কোনো তৃণমূলের এমবিবিএস পাস ছাত্রনেতাকে করা যাবে না। অন্যান্য হোস্টেলের মত এমসিআই রেগুলেশন অনুযায়ী কোনো অ্যাসোসিয়েট/অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর/হেড অফ দ্য ডিপার্টমেন্টকে ওই হোস্টেলের সুপারের পদ দিতে হবে।

৩. শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ অবস্থানে কলেজ ক্যাম্পাসে পুলিশ ঢুকিয়ে মার খাওয়ানো প্রিন্সিপালকে অবিলম্বে জবাবদিহি করতে হবে এবং পদত্যাগ করতে হবে।

৪. অবিলম্বে কলেজ কাউন্সিল এর মিটিং ডেকে ছাত্রপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে সমস্ত দাবিদাওয়া নিয়ে সুস্থ আলোচনা করতে হবে।

মেডিকেল কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাদের প্রাপ্য হোস্টেলের ন্যায্য দাবিতে লড়ছে। অবস্থানের ঘন্টা যতো বাড়ছে, কর্তৃপক্ষ‌ের ঔদ্ধত্য যতো বাড়ছে, আন্দোলনের তীব্রতাও ততো বাড়ছে ।এই লড়াই আমরা জিতবোই— কলেজের জন্য, আগামীর শিক্ষার্থীদের জন্য, আমাদের জন্য। আমাদের পাশে দাঁড়ান, সাথে দাঁড়ান।

মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ অবস্থানের ওপর কলেজ ক্যাম্পাসে পুলিশ-গুন্ডা ঢুকিয়ে শিক্ষার্থীদের মার খাওয়ানোর মতো ঘৃণ্য পাশবিক ঘটনাকে ধিক্কার জানিয়ে পা মেলান মহামিছিলে। সোমবার (৯ই জুলাই) বিকেল ৪টে থেকে মেডিকেল কলেজ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ব্লকের সামনে থেকে ধর্মতলা পর্যন্ত ধিক্কার মিছিলে পা মেলান এই অমানবিক ঘটনার প্রতিবাদে।

সব গণতন্ত্রপ্রেমী মানুষ মিছিলে যোগ দিন, প্রতিবাদে-প্রতিরোধে পাশে দাঁড়ান মেডিকেল কলেজের।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

ময়মনসিংহ মেডিকেলের শিক্ষার্থীই ভুটানের নতুন প্রধানমন্ত্রী

ময়মনসিংহ মেডিকেলের শিক্ষার্থীই ভুটানের নতুন প্রধানমন্ত্রী

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হয়েছেন ময়মনসিংহ মেডিকেলের প্রাক্তন ছাত্র ডা. লোটে শেরিং।…

২২ মিনিট হার্ট বন্ধ থাকা বিস্ময়কর শিশু!

২২ মিনিট হার্ট বন্ধ থাকা বিস্ময়কর শিশু!

মেডিভয়েস ডেস্ক: লন্ডনে সেন্ট জর্জ হাসপাতালে মাত্র ২৭ সপ্তাহে 1.4 বিলিয়ন (৬৩৫ গ্রাম)…

ভারতে জিকা ভাইরাসে ৫০ জন আক্রান্ত

ভারতে জিকা ভাইরাসে ৫০ জন আক্রান্ত

মেডিভয়েস ডেস্ক: ভারতে জিকা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ জনে পৌঁছেছে।   সম্প্রতি দেশটির…

ইবোলা ভাইরাসে প্রতি ৭ দিনে ২৪ জনের মৃত্যু!

ইবোলা ভাইরাসে প্রতি ৭ দিনে ২৪ জনের মৃত্যু!

মেডিভয়েস রিপোর্ট: আফ্রিকার দেশ কঙ্গোতে ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ৭ দিনে ২৪…

বৈশ্বিক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে এঞ্জেলা মার্কেলের ঐক্যের ডাক

বৈশ্বিক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে এঞ্জেলা মার্কেলের ঐক্যের ডাক

মেডিভয়েস ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য হুমকির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর