ঢাকা      মঙ্গলবার ২৩, অক্টোবর ২০১৮ - ৮, কার্তিক, ১৪২৫ - হিজরী



আয়েশা আলম প্রান্তী

শিক্ষার্থী, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ


টিভি উপস্থাপিকা ডা. মলির সাফল্যগাঁথা

ডা. এসএম মলি রেজা। পেশায় চিকিৎসক এই নারী টিভি পর্দার সামনে ও পেছনে কাজ করে যাচ্ছেন সমানভাবে। ২০১৫ সাল থেকে দেশ টিভিতে উপস্থাপনা করে আসছেন স্বাস্থ্য বিষয়ক অনুষ্ঠান Good health ও স্বাস্থ্যকথা। তাকে নিয়ে মেডিভয়েসের আজকের বিশেষ প্রতিবেদন-

উপস্থাপিকা ও চিকিৎসক এই গুণী নারী মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি ও ভিকারুন নিসা নুন কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। ২০০৬ সালে চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে ভর্তি হন সিলেট ম্যাগ ওসমানী মেডিকেল কলেজে। বাবা মোহাম্মদ মনির হোসেইন ও মা সামসুন্নাহার এর মেয়ে মলি, ছোটবেলা থেকেই খুব মেধাবী। ডাক্তারি পাশ করেন ও ইন্টার্নশিপ শেষ করেন হলি ফ্যামিলি মেডিকেল কলেজ থেকে ২০১৩ সালে। 

শুরু হলো চিকিৎসক জীবন

শুরু হলো চিকিৎসক ডা. মলির মানবসেবার যাত্রা। ২০১৩ সালের জুলাইয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এইচএমও ( HMO)বা অনারারী মেডিকেল অফিসার হিসেবে যোগ দেন। পরবর্তীতে ঢাকা কমিউনিটি মেডিকেল কলেজে প্যাথলজি লেকচারার হিসেবে কাজ করেন ডা. মলি।

জীবনের নানা বাঁকে বাঁকে 

সব সময় স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ হতে চাওয়া মলি, পরবর্তীতে পরিবারকে সময় দেওয়ার জন্য গাইনি বিশেষজ্ঞ হননি। কাজ  করা শুরু করেন সানোফি বাংলাদেশে মার্কেটিং রিসার্চার হিসেবে। কাজ করছেন এখনও আড়াই বছর ধরে। 

কাজের পাশাপাশি ঢাকা ইউনিভার্সিটি থেকে ২০১৭ সালে এমফিল শেষ করেন ও পরবর্তীতে ভালো পারফরমেন্সের জন্য  ফুড অ্যান্ড নিউট্রেশনের ওপর পিএইচডি করার সুযোগ পান। তার পিএইচডির বিষয় গর্ভকালীন মায়ের খাদ্য ও পুষ্টি।  বর্তমানে থিসিসের কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন এই নারী।

এছাড়াও ডা. মলি সাংবাদিকতাও করছেন সমান তালে। ২০১৫ সালের আগস্ট মাস থেকে বাংলাদেশ প্রতিদিনের স্বাস্থ্য বিষয়ক ফিচার লেখক হিসেবে কাজ করছেন। নিয়মিত সংবাদপত্রে তিনি লিখছেন মা ও শিশুর স্বাস্থ্য বিষয়ক নানা রোগ, সমস্যা, সমাধান, স্বাস্থ্য বিষয়ক পরামর্শ নিয়ে লিখছেন ডা. মলি।

এত কাজ এত সফলতা এসব কিছুর পেছনে বড় অনুপ্রেরণা ব্যারিস্টার স্বামী আসিফ রেজা আবেগ।  তিনি নিজেও একজন মিডিয়া ব্যক্তিত্ব। আবেগ সব সময় স্ত্রীকে সব সময় সব কাজে অনুপ্রেরণা, উৎসাহ দিয়েছেন,পাশে থেকেছেন। 

ডা. মলির কথা
নতুনদের প্রতি ডা. মলির পরামর্শ , ‘জীবনে চলার পথে নানা বাধা আসবে। মন খারাপ না করে সব বাধা অতিক্রম করতে হবে।  মন থেকে কোনো কিছু করার প্রবল ইচ্ছা থাকতে হবে, হাজার বাধা আসলেও হাল ছাড়া যাবে না।  আর পরিবার যদি এতে সায় না দেয় তখন পরিবারের বিপক্ষে যাওয়া যাবে না। পরিবারকে বুঝিয়ে আপনার কাজগুলো করুন।’

ভবিষ্যত পরিকল্পনা
ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে ডা. মলি মেডিভয়েসকে জানান, তার প্রবল ইচ্ছা আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান WHO বা ডব্লিউএইচও-এ  কাজ করা। 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ভেঙে যাচ্ছে!

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ভেঙে যাচ্ছে!

মেডিভয়েস রিপোর্ট : শীগ্রই স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ভেঙে পুনর্গঠিত হচ্ছে। বিভক্ত হয়ে স্বাস্থ্য শিক্ষা…

তৃতীয় প্রফের পর একবছর পূর্ণ না হলেও দিতে পারবে ফাইনাল প্রফ

তৃতীয় প্রফের পর একবছর পূর্ণ না হলেও দিতে পারবে ফাইনাল প্রফ

মেডিভয়েস ডেস্ক:  মেডিকেলের তৃতীয় প্রফেশনাল পরীক্ষায় পাস করার পর একবছর পূর্ণ হওয়ার…

‘বাচ্চাকে দুধ দিতে হবে না, সকালে দেখবা আমি কী করি’

‘বাচ্চাকে দুধ দিতে হবে না, সকালে দেখবা আমি কী করি’

মেডিভয়েস রিপোর্ট : সারারাত বাচ্চাটি দুধের জন্য কান্নাকাটি করছিল। ওই মেয়ে ফোনে…

সিসিডি কোর্সে ভর্তির ফল প্রকাশ

সিসিডি কোর্সে ভর্তির ফল প্রকাশ

সার্টিফিকেট কোর্স অন ডায়াবেটোলজি –সিসিডির ২৯ তম (জানুয়ারি–জুন সেশনে) ব্যাচে ভর্তির জন্য নির্বাচিত…

হাসপাতালে এসেই ‘মৃত’ সাপ জীবিত!

হাসপাতালে এসেই ‘মৃত’ সাপ জীবিত!

মেডিভয়েস রিপোর্ট : সাপের কামড় খেয়ে রোগী এসে ভর্তি হলো হাসপাতালে। সেই রোগীর…

এবার সরকারকে কিছু দিন : ডাক্তারদের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

এবার সরকারকে কিছু দিন : ডাক্তারদের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মেডিভয়েস রিপোর্ট: গত দশবছরে আওয়ামী লীগ সরকার চিকিৎসা খাতে বিশেষ করে চিকিৎসকদের…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর