ডা. কামরুজ্জামান চৌধুরী

ডা. কামরুজ্জামান চৌধুরী

লেকচারার, উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ


১৫ জুলাই, ২০১৮ ০২:০২ পিএম

রোগী মারা গেলে সব দোষ ডাক্তারের!

রোগী মারা গেলে সব দোষ ডাক্তারের!

রোগীর তীব্র শ্বাসকষ্ট। আপনার ডায়াগনসিস হার্ট ফেইলিয়র। কী করবেন এখন? ইনজেকশন ল্যাসিক্স কি দিবেন? এই রোগী যদি আপনার কাছে মারা যায় তাহলে দোষ হবে ল্যাসিক্স ইনজেকশনের সাথে উত্তম মধ্যম আপনার ঘাড়ে। অথচ আপনার চিকিৎসা ১০০% সঠিক।

আমি এক ভাইকে চিনি যিনি ল্যাসিক্স ইনজেকশন দেওয়ার পরে রোগী মারা যায়। মারমুখি অজ্ঞ জনতার হাত থেকে নিজেকে বাঁচানোর জন্য নিজের শরীরে তিনি ২-৩ এম্পুল ল্যাসিক্স ইনজেকশন পুশ করে দেখিয়েছিলেন যে অন্তত ইনজেকশনের জন্য রোগী মারা যায়নি! 

একিউট সিভিয়ার এজমা। এই মুহূর্তে রোগী বাঁচানোর উপায়– স্টেরয়েড ইনজেকশন। দিবেন? এই রোগী মারা গেলে কিন্তু আপনার কিন্তু এক বিন্দুও ছাড় হবে না। লাইফ সেভিং ড্রাগ হিসেবে পরিচিত স্টেরয়েডকেই জনতা মৃত্যুর কারণ হিসেবে চিহ্নিত করবে। পরের দিনের পত্রিকায় নিজের নামসহ পড়বেন, ‘শ্বাসকষ্টের রোগীকে অক্সিজেন না দিয়ে স্টেরয়েড ইনজেকশন দেওয়ায় রোগীর মৃত্যু’।

রোগী এবং রোগ যাই হোক না কেন মারা গেলে দোষ আপনার ঘাড়েই আসবে। লাস্ট স্টেজের একটা ক্যান্সারের রোগী হাসপাতালে ভর্তি অবস্থায় মারা যায়। রোগীর মৃত্যুর আগে শেষ চেষ্টা হিসেবে সারারাত ধরে ভাই কিছু ইনজেকশন আর ওষুধ দিয়ে চেষ্টা করেন। আইসিউ-তে নেওয়ার মত আর্থিক অবস্থা ছিল না তার ছেলেদের। সকালে মারা গেলে হৈচৈ শুরু, ইনজেকশনের কারণে রোগীর মৃত্য!  

রোগী মারা গেলে সব দোষ কসাইদের! দোষ কেন আন্তরিকতা ইনজেক্ট করা হল না, ওষুধ কেন ইনজেক্ট করলেন? শিয়ার ওষুধ না দিয়ে পায়ুপথে অন্তরিকতা সাপোজিটরি হিসেবে দিলে রোগী হেঁটে হেঁটে বাড়ি চলে যেত!

দুঃখিত, মন খারাপ করেই লিখছি। আমাদের অভিজ্ঞতা খুব খারাপ। বহু ডাক্তার মার খেয়েছে, বহু ডাক্তার চাকুরি ছেড়েছে। বছরের পর বছর ধরে আমাদের কিছু শিক্ষা হয়েছে।

আদর করে একটা খারাপ রোগীকে চিকিৎসা দিলে কী কী হতে পারে?
- রোগীটা হয়ত বেঁচে যাবে।
- রোগীটা হয়ত মারা যাবে। 

মারা গেলে শুরু হবে আসল কাহিনী। রোগীর লোকেই বলবে এত খারাপ রোগী আপনারা রেফার করলেন না কেন? লাইফ সেভিং কিছু ওষুধ দিলে বলবে ভুল ওষুধ দিয়ে মারছে। ওষুধ না দিলে বলবে বিনা চিকিৎসায় মারছে। তারপর শুরু হত ইমার্জেন্সি ভাংচুর, ডাক্তারকে ধরে মাইর। তারপর সাংবাদিক। পরের দিন হেডলাইন ডাক্তারের অবহেলায় ও ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু, চিকিৎসক প্রহৃত।

আমরা বিধাতার কাছ থেকে জীবন মৃত্যুর টেন্ডার নেইনি যে, আপনি মারা যাবেন আর তার কৈফিয়ত আমাকে দিতে হবে। আমরা যেটা করি আমার বিশ্বাস সারা বিশ্বের ডাক্তারেরা সেটাই করে। পুরো খেসারত কিন্তু জনগণ দিচ্ছে। পথে ঘাটে মরলে কোন অভিযোগ নাই, শুধু ডাক্তারের কাছে মরলে খবর আছে। আপনি আমার আত্মীয় না যে মারা গেলে আমি কাঁদব। কিন্তু আপনি এবং আপনার রোগ যদি আমার নিরাপত্তাহীনতার কারণ হয় তো আপনি মরেছেন।

আপনারা ডাক্তারকে বিশ্বাস করুন। আপনাদের কোন ক্ষতি হবে না।

সিন্ডিকেট মিটিংয়ে প্রস্তাব গৃহীত

ভাতা পাবেন ডিপ্লোমা-এমফিল কোর্সের চিকিৎসকরা

প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অক্টোবর-নভেম্বরে ২য় ধাপে করোনা সংক্রমণের শঙ্কা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না