ঢাকা      বৃহস্পতিবার ২০, সেপ্টেম্বর ২০১৮ - ৫, আশ্বিন, ১৪২৫ - হিজরী



ডা. কামরুল হাসান সোহেল

কার্যকরী সদস্য, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ


ডাক্তারদের শত্রু ডাক্তাররাই

আমদের চিকিৎসকদের সবচেয়ে বড় শত্রু আমরা নিজেরাই। আমদের মাঝে পারষ্পরিক শ্রদ্ধাবোধের তীব্র অভাব আছে। আমরা একজন চিকিৎসক আরেকজন চিকিৎসকের পিছনে লেগে থাকি, তার ভুল ধরি, তার বদনাম করি। আর আমরা এই কাজটা করি রোগী বা তার আত্মীয়ের সামনেই হতে পারে তা ব্যক্তিগত চেম্বার বা হাসপাতাল বা ক্লিনিকে। 

আমাদের সিনিয়র চিকিৎসকরা জুনিয়র চিকিৎসকদের চিকিৎসকই মনে করেন না! জুনিয়র চিকিৎসকদের ভুল ধরতে, তাদের গালমন্দ করতে ইচ্ছে করলে অবশ্যই করবেন তবে তা ক্লোজ ডোর হলেই সবচেয়ে ভালো হয়। সবচেয়ে ভালো হয় আপনার জুনিয়রকে তার ভুলগুলো ধরিয়ে দেয়া, তাকে সঠিকটা শিখিয়ে দেয়া তাহলে সে ভবিষ্যতে আর একই ভুল করবে না।

আমদের সিনিয়র চিকিৎসকরা যদি জুনিয়র চিকিৎসক বা অন্য চিকিৎসক তাকে ভুল চিকিৎসা দিয়েছে এই কথাটা রোগীর সামনে না বলতেন তাহলে আজ আর কথায় কথায় চিকিৎসকদের চিকিৎসায় ভুল ধরতো না কেউ। ক্লিনিকে বা হাসপাতালে যদি রোগী আর তার এটেনডেন্টদের সামনে ডিউটি ডাক্তারকে বকাঝকা না করতেন তাহলে পান থেকে চুন না খসতেই ডিউটি ডাক্তারদের উপর হামলে পরতো না রোগী আর তার এটেনডেন্টরা। 

দোষ আমাদের। আমরা নিজেদের বড় ডাক্তার প্রমাণ করতে গিয়ে; বিশেষজ্ঞ ডাক্তার, কত কিছু জানি তা দেখাতে গিয়ে আমার জুনিয়র ডাক্তার বা আমার অন্য কলিগকে নীচু দেখাতে গিয়ে নানা আজেবাজে কথা বলি, চিকিৎসায় ভুল হয়েছে বলি। 

এখন আমাদের এই কথাগুলোই বুমেরাং হয়ে বারবার ফিরে আসছে আমাদের কাছে। আমাদের পুরো ডাক্তার সমাজ আমাদের এই বাজে স্বভাবের কারণে এখন সাফার করছি। এখন সবাই আমাদের চিকিৎসায় ভুল ধরে, সাংবাদিকরা চিকিৎসকদের ভুল একটু বেশিই ধরে।

আমরা নিজেরাই নিজেদের পায়ে কুড়াল মেরেছি। নিজেকে বড় বানাতে গিয়ে আরেকজনকে নীচু দেখাতে গিয়ে আজ এই বাজে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এখনো সময় আছে আমাদের উচিত আমাদের এই বাজে অভ্যাস পরিবর্তন করা, তা নাহলে ভবিষ্যৎ এ অবস্থা আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


পাঠক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আমি পড়ি ঠিকই কিন্তু আইটেমের সময় সব ভুলে যাই

আমি পড়ি ঠিকই কিন্তু আইটেমের সময় সব ভুলে যাই

স্যার, আমি মেডিকেলের ৩য় বর্ষের ছাত্রী। মেডিকেলে ইতিমধ্যেই ১ বছর লস করেছি।…

হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার ভয়াবহতা!

হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার ভয়াবহতা!

সার্জারিতে ইন্টার্নশিপ প্রায় শেষ দিকে। এক ব্যাচমেট রিকুয়েস্ট করলো মেডিসিনে তার একটি নন-এডমিশন…

‘ডাক্তার সাব, আপনি স্টেথোস্কোপ কানে লাগাননি’

‘ডাক্তার সাব, আপনি স্টেথোস্কোপ কানে লাগাননি’

১৯৮৫ সনে যখন আমরা এমবিবিএস পাস করার পর ইন-সার্ভিস-ট্রেইনিং করতাম তখন প্রতি…

বাংলাদেশি ডাক্তারদের সেবার কথা এখনো ভুলেনি ইরানিরা! 

বাংলাদেশি ডাক্তারদের সেবার কথা এখনো ভুলেনি ইরানিরা! 

ইরানের ইস্পাহান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘জিহাদে সালামাত’ নামক একটি সংস্থার উদ্যোগে ইরানের পাহাড়ি…

মা তার মেঘে ঢাকা তারা

মা তার মেঘে ঢাকা তারা

শুভ্র মেডিকেলে ফাইনাল ইয়ারে পড়ে তখন। হঠাৎ এক সকালে বাবা তাকে ফোন…

একটা ভুত আমার সামনে দিয়ে কবরখানায় ঢুকে পড়লো!

একটা ভুত আমার সামনে দিয়ে কবরখানায় ঢুকে পড়লো!

খুব সম্ভব ১৯৮২ সনের কথা। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে থার্ড ইয়ারে পড়ি। এল…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর